সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

ধর্ষণ মামলা ৮০ হাজারে মিমাংসার অভিযোগ, আটক ৯

সংবাদ চলমান ডেস্ক:পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলা সালিশ বৈঠকে ৮০ হাজার টাকায় মিমাংসার অভিযোগে সলেমান মোল্যাসহ নয়জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের শনিবার দুপুরে আদালতে সোপর্দের পর জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আটক অন্যরা হলেন মাইজপাড়া ইউপি সদস্য সবুর মোল্যা, সালিশের সঙ্গে জড়িত মোনায়েম শেখ, আবু তাহের মোল্যা, বক্কার মোল্যা, আজিজার মোল্যা, আমজাদ মোল্যা, সুপ্রেম উল আলম ও আলী মিয়া।

এর আগে বৃহস্পতিবার(১৯ ডিসেম্বর) রাতে ধর্ষক আমজাদ মুন্সীর বাড়িতে  মামলাটি মিমাংসার জন্য সালিশ বৈঠক বসে। এতে সোলেমান মোল্যার সভাপতিত্বে মাত্র ৮০ হাজার টাকায় মিমাংসা হয়। সালিশ বৈঠকে আটকরা ছাড়াও আরো ২০/২৫ জন উপস্থিত ছিলেন।

গত ২ ডিসেম্বর দুপুরে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রতিবেশী আমজাদ মুন্সী ধর্ষণ করেন। এ সময় শিশুটির কান্নাকাটির চিৎকারে তার ভাবি দৌড়ে এলে আমজাদ মুন্সী পালিয়ে যান। ঘটনার সময় শিশুটির বাবা খুলনায় এবং মা জরুরি প্রয়োজনে পাশের গ্রামে গিয়েছিলেন।

এ ঘটনায় ৩ ডিসেম্বর শিশুটির বোন বাদী হয়ে নড়াইল সদর থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পর থেকে আসামি আমজাদ মুন্সী পলাতক রয়েছেন।

ধর্ষণের শিকার শিশুটির পরিবার জানায়, তৃতীয় দফা সালিশে ৮০ হাজার টাকায় মিমাংসা হয়। এরমধ্যে ১০ হাজার টাকা গ্রাম্য সালিশকারীরা পাবেন। বাকি ৭০ হাজার সালিশে নেতৃত্বদানকারী সলেমান মোল্যার কাছ থেকে ধর্ষিতার পরিবারের সদস্যরা পেয়েছেন। এছাড়া পুলিশের জন্য যা করা দরকার তা আসামি পক্ষ করবে এই মর্মে সালিশে সিদ্ধান্ত হয়।

আমজাদ মুন্সীর স্ত্রী পিয়ারী বেগমসহ পরিবারের সদস্যরা দাবি করেন, সালিশে মোট ৮০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য করেন গ্রাম্য মাতব্বর।

নড়াইল সদর থানার ওসি মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, গ্রাম্য মাতব্বররা সালিশে পুলিশের নাম ভাঙিয়ে টাকা তুলতে পারে। তবে পুলিশের জড়িত থাকার কোনো সুযোগ নেই। সালিশের সঙ্গে জড়িত নয়জনকে আটকের পর আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button