সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে যৌতুক চেয়ে পুলিশ স্বামী কারাগারে

সংবাদ চলমান ডেস্ক : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্ত্রীর মামলায় সাবেক পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সালাউদ্দিনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

রোববার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আদালতে হাজির হলে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আনোয়ার ছাদাত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

সালাউদ্দিন কুমিল্লার কতোয়ালি থানার পরির্দশক (তদন্ত) ছিলেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পৌর শহরের মেড্ডা এলাকার তাহমিনা আক্তার পান্না সালাউদ্দিনের দ্বিতীয় স্ত্রী।

গত ১ ডিসেম্বর দুপুরে স্বামী সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক নিরোধ আইনের ধারায় একটি এজাহার দাখিল করেন তাহমিনা আক্তার। বিচারক সমন জারি করে সালাউদ্দিনকে ১৫ ডিসেম্বর আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেন।

২০১৪ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের পশ্চিম মেড্ডা এলাকার  শরাফ উদ্দিনের মেয়ে তাহমিনা আক্তার পান্নার সঙ্গে চট্টগ্রামের হাটহাজারী উত্তরমাদরাসা এলাকার সামসুল আলমের ছেলে সালাউদ্দিনের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় ১৫লাখ টাকা দেনমোহর নির্ধারণ করা হয়। বিয়ের পর তাহমিনা একটি মেয়ের সন্তানের জন্ম দেন।

তার বয়স তিন বছর। তিন-চার মাস আগে তাহমিনার কাছে ২০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন স্বামী সালাউদ্দিন। গত ১৫ নভেম্বর সালাউদ্দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসে শ্বশুড়বাড়ির লোকজনের সামনে পুলিশের চাকরিতে পদোন্নতির কথা বলে আবার ২০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। ওই মুহূর্তে যৌতুকের ২০ লাখ টাকা না দিলে অন্যত্র বিয়ে করবে বলে তাহমিনাকে ভয় দেখান সালাউদ্দিন।

টাকা দিতে অপারগতকা প্রকাশ করলে তাহমিনাকে নাকে মুখে চর, থাপ্পড়, কিল, ঘুষি মারেন সালাউদ্দিন। পরে স্ত্রী ও সন্তানকে ফেলে রেখে ঘটনাস্থল থেকে চলে যান। ঘটনার পর বিষয়টি কুমিল্লার এসপিকে জানিয়েও কোনো বিচার পাননি তাহমিনা। পরে বিচার পাওয়ার আশায় তিনি আদালতে যান। গত ২ ডিসেম্বর সালাউদ্দিনকে কোতোয়ালি থানা থেকে প্রত্যাহার করে কুমিল্লা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়।

বাদীপক্ষের আইনজীবী তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত বলেন, যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায় স্বামী পুলিশ পরিদর্শকের (তদন্ত) বিরুদ্ধে মামলা করেছেন স্ত্রী তাহমিনা। রোববার হাজির হলে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাকিম পুলিশ সদস্যকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button