সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

দম্পতিকে আটকে চাঁদা দাবি, পুলিশ পরিদর্শক প্রত্যাহার

সংবাদ চলমান ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এক দম্পতিকে পুলিশ ফাঁড়িতে আটকে রেখে চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শফিকুল ইসলামের ফুফাতো ভাই হুমায়ূন হোসেনসহ দুইজনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা হয়েছে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর (পরিদর্শক) শফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। একই সঙ্গে আলামিন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে রূপগঞ্জ পুলিশ।

বুধবার বিকেলে ভুক্তভোগী আজিজুল ইসলাম সুজন রূপগঞ্জ থানায় বাদী হয়ে এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করলে অভিযুক্ত পুলিশ পরিদর্শকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় জেলা পুলিশ।

ইন্সপেক্টর (পরিদর্শক) শফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার ও চাঁদাবাজির ঘটনার মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান জানান, অন্যায়কারী যে-ই হোক না কেন পুলিশ প্রশাসন কাউকে ছাড় দেবে না।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ভোলাব ইউপির পাইস্কা এলাকার চাঁন মিয়ার ছেলে আজিজুল ইসলাম সুজন ও তার স্ত্রী কাঞ্চন এলাকার হানিফ হুজুরের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করে আসছিলেন। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রোজিনা বেগমকে কাঞ্চন বাজারের নুপুর ফার্মেসিতে ডাক্তার দেখিয়ে বাসায় ফিরছিলেন আজিজুল।

তারা কালাদী বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছালে ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলামের ভাই হুমায়ূন হোসেন ও তার সহযোগী আলামিন নিজেদের পুলিশ পরিচয় দিয়ে ওই দম্পতিকে জোরপূর্বক কাঞ্চন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জের কক্ষে নিয়ে আটকে রাখেন। পরে তাদের থেকে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন।

আজিজুল চাঁদার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাদেরকে ১শ’ ইয়াবা দিয়ে মামলা দেয়ার হুমকি দেন। একপর্যায়ে ইনচার্জের ভাই ও তার সহযোগীরা ভুক্তভোগী আজিজুল ইসলামকে বেধড়ক পেটান এবং তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। পরে আজিজুল ইসলাম সুজন তার মা হাসনারা বেগমকে খবর দিলে তিনি পুলিশ ফাঁড়িতে আসেন।

পুলিশ পরিচয়দানকারী ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জের ভাই চাঁদাবাজ হুমায়ূন হোসেন ও আলামিন হাসনারা বেগমকেও ইনচার্জের কক্ষের ভেতরে নিয়ে যান। পরে হাসনারা বেগম ৩৫ হাজার টাকার বিনিময়ে তার ছেলে ও ছেলের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান।

এ সময় ভুয়া পুলিশ পরিচয়দানকারীরা এ ঘটনা নিয়ে জানাজানি হলে তাদেরকে হত্যা করা হবে বলে হুমকি প্রদান করেন। এ ঘটনায় আজিজুল ইসলাম সুজন বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযুক্ত আলামিনকে গ্রেফতার করেন। একই সঙ্গে এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর (পরিদর্শক) শফিকুল ইসলামকে তার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করা হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button