সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

তীব্র শীতে কাঁপছে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল

নিজস্ব প্রতিবেদক : সারাদেশে দুর্বিসহ শীত। ঠান্ডা বাতাসে কাবু দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল। সকাল বেলা দাঁতে দাঁতে ঠুকাঠুকি শুরু হয়ে মানুষের। কষ্ট হয় কথা বলতে। শীতের কামড় থেকে রক্ষা পেতে প্রয়োজন না হলে ঘরের বাইরে যেতে চাচ্ছে না মানুষ। রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগে জেঁকে বসেছে শীত। হিমের হাওয়ার সাথে দেশ ব্যাপি মাঝারী থেকে ঘন কুয়াশা শীতের মাত্রাকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

কুয়াশার কারণে গত বুধবার থেকে সূর্য দেখা যায় না। ফলে পরিবেশও উষ্ণ হচ্ছে না। বাতাসের আর্দ্রতার পরিমাণ এতো বেশি যে পরিবেশে যতটুকু উষ্ণতা ছিল তাও শুষে নিচ্ছে। দেশব্যাপি বয়ে চলা প্রচন্ড শীতের এটাও একটি অন্যতম কারণ।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আজ থেকে পরিবেশ ধীরে ধীরে উষ্ণ হতে থাকবে। আজও সূর্যের কিরণও পাওয়া যাবে অপেক্ষাকৃত একটু বেশি। দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের কোথাও কোথাও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হতে পারে। বৃষ্টির কারণে সাময়িকভাবে ঠান্ডা বাড়লেও এটা কুয়াশার পরিমাণ কমিয়ে দিতে পারে। কুয়াশা কমে গেলে সূর্য কিরণ স্পষ্ট করে পাওয়া যাবে। এভাবে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে পারে।

খুলনা ও রাজশাহী বিভাগের মধ্যে কেবল রাজশাহী, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলে মৃদু শৈত্য প্রবাহ থাকবে। গত বৃহস্পতিবার আবহাওয়া অফিস শৈত্য প্রবাহের আওতা বাড়ার পূর্বাভাস দিলেও গতকাল শুক্রবার হঠাৎ পরিবর্তন আসে এবং শৈত্য প্রবাহ কমে গিয়ে রাজশাহী, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা পর্যন্ত আটকে আছে। তাপমাত্রা কিছু বাড়লে হয়তো কাল কোনো শৈত্য প্রবাহ নাও থাকতে পারে।

শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গায় ৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ২৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রাজধানী ঢাকায় সকাল ৯টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সন্ধ্যা ৬টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চুয়াডাঙ্গায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আজ শুক্রবার সারাদেশেই আকাশ আংশিক মেঘলা থাকতে পারে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বর্তমান নিম্ন তাপমাত্রার পরিবর্তন ঘটবে আগামী সোমবার থেকে। সোমবার থেকে শীতটা চলে আসতে পারে সহনীয় মাত্রায়।

মূলতঃ দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ঠান্ডা আসে বিহারের ওপাশ থেকে হিমালয় অঞ্চল থেকে। সাইবেরিয়া অঞ্চলের শূণ্য ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচের হিমেল হাওয়া আসতে থাকে পূর্ব ও দক্ষিণ দিকে। এটা এসে হিমালয়ের পর্বত শ্রেণীতে বাধা প্রাপ্ত হয়। এর সামান্য একটু অংশ ভারতের বিহার ও পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এতেই এখানে অসহনীয় পরিবেশের সৃষ্টি করে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button