সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

জুতা পায়ে শহীদ মিনারে শিক্ষকরা!

সংবাদ চলমান ডেস্কলালমনিরহাটের কালীগঞ্জে এক মাদরাসার শিক্ষকদের বিরুদ্ধে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে ওঠে বই বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেই ছবি ফেসবুকে নিজেদের ওয়ালে শেয়ার করে সমালোচনায় পড়েন তারা।

বছরের প্রথম দিন উপজেলার গোড়ল দাখিল মাদরাসায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিনের বিরুদ্ধে জেলাজুড়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে।

জানা গেছে, ওই দিন মাদরাসার সুপার মোবাশ্বের আহমেদ, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিন, সহকারী শিক্ষক (কম্পিউটার) মো. আব্দুর রশিদ, আতাউর রহমান ছোট, বিএসসি শিক্ষক আনিছুর রহমানসহ কয়েকজন শিক্ষক স্কুল মাঠে নির্মিত শহীদ মিনারে জুতা পায়ে দিয়ে ওঠেন। পরে তারা শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেন। সেই ছবি তুলে নিজেদের ফেসবুকে পোস্ট করলে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় এলাকাবাসী বিস্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করে।

জেলার সংস্কৃতিকর্মীরা জানান, এভাবে শহীদ মিনারে জুতা পায়ে ওঠে বই বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড খুবই দুঃখজনক। দিন দিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধ্বংস করছে এসব শিক্ষক ও জনপ্রতিনিধি।

অভিযুক্ত মাদরাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিন বলেন, ব্যস্ততার কারণে জুতা পায়ে দিয়ে শহীদ মিনারে উঠে পড়েছি। এজন্য লজ্জিত। আর বই বিতরণের সময় জুতা পায়ে ছিল কিনা মনে নেই বলে ফোন কেটে দেন।

লালমনিরহাটের ডিসি আবু জাফর জানান, জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠা দুঃখজনক। প্রমাণ পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে এক মাদরাসার শিক্ষকদের বিরুদ্ধে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে ওঠে বই বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেই ছবি ফেসবুকে নিজেদের ওয়ালে শেয়ার করে সমালোচনায় পড়েন তারা।

বছরের প্রথম দিন উপজেলার গোড়ল দাখিল মাদরাসায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিনের বিরুদ্ধে জেলাজুড়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে।

জানা গেছে, ওই দিন মাদরাসার সুপার মোবাশ্বের আহমেদ, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিন, সহকারী শিক্ষক (কম্পিউটার) মো. আব্দুর রশিদ, আতাউর রহমান ছোট, বিএসসি শিক্ষক আনিছুর রহমানসহ কয়েকজন শিক্ষক স্কুল মাঠে নির্মিত শহীদ মিনারে জুতা পায়ে দিয়ে ওঠেন। পরে তারা শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেন। সেই ছবি তুলে নিজেদের ফেসবুকে পোস্ট করলে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় এলাকাবাসী বিস্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করে।

জেলার সংস্কৃতিকর্মীরা জানান, এভাবে শহীদ মিনারে জুতা পায়ে ওঠে বই বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড খুবই দুঃখজনক। দিন দিন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধ্বংস করছে এসব শিক্ষক ও জনপ্রতিনিধি।

অভিযুক্ত মাদরাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নুর আমিন বলেন, ব্যস্ততার কারণে জুতা পায়ে দিয়ে শহীদ মিনারে উঠে পড়েছি। এজন্য লজ্জিত। আর বই বিতরণের সময় জুতা পায়ে ছিল কিনা মনে নেই বলে ফোন কেটে দেন।

লালমনিরহাটের ডিসি আবু জাফর জানান, জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠা দুঃখজনক। প্রমাণ পেলে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button