সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যায় দুইজন আটক, স্বামী পলাতক

সংবাদ চলমান ডেস্ক  নেত্রকোনায় এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর শ্বশুর ও শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত গৃহবধূ তমালিকা আক্তার চরসিংধা গ্রামের রাসেল মিয়ার স্ত্রী। তমালিকা সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন।

বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি)  জেলার বারহাট্টা উপজেলা সিংধা ইউনিয়নের চরসিংধা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সিংধা ইউপির ভাটিপাড়া গ্রামের রইছ মিয়ার মেয়ে তমালিকা আক্তারের সঙ্গে এক বছর আগে একই এলাকার চরসিংধা গ্রামের রাসেল মিয়ার বিয়ে হয়। রাসেল ময়মনসিংহের ভালুকার মাস্টারবাড়ি এলাকায় একটি সোয়েটার ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন। এর আগেও তিনি গাজীপুরে এক নারীকে বিয়ে করেছিলেন। ওই নারীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর তিনি তমালিকাকে বিয়ে করেন।

তমালিকার বাবা রইছ মিয়া জানান, তমালিকাকে বিয়ের কিছুদিন পর আগের স্ত্রীর সঙ্গেও তার সম্পর্কের উন্নতি হয়। এ নিয়ে তমালিকার সঙ্গে রাসেলের বিরোধ চলে আসছিল। তমালিকাকে তিনি প্রায়ই নির্যাতন করতেন।

বুধবার (৮ জানুয়ারি) দিনগত রাতে চিৎকার ও কান্নাকাটি শুনে রাসেলের বাড়িতে গিয়ে স্থানীয়রা ঘরের বারান্দায় তমালিকার গলা কাটা মরদেহ দেখতে পায়। পরে পুলিশে খবর দেয়া হলে ভোর ৫টার দিকে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহত তমালিকার পিতা রইছ মিয়ার অভিযোগ, রাসেল এবং তার পরিবারের লোকজন মিলে তমালিকাকে নৃশংসভাবে হত্যা করেন। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নেত্রকোনার অতিরিক্ত এসপি (অপরাধ) শাহজাহান মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন ক জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক বিরোধের জের ধরেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

বারহাট্টা থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে স্বামী রাসেল জড়িত কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। রাসেল পলাতক তাকে গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে। রাসেলের বাবা আব্দুল হাসিম এবং মা মাজেদা বেগমকে আটক করা হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button