সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

খুন করে ক্ষান্ত হয়নি খুনি, তুলে ফেলেছে চোখও

সংবাদ চলমান ডেস্ক : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর সীমান্তে শিশু তোফাজ্জলকে শুধু নৃশংসভাবে হত্যাই করেনি খুনি। তুলে ফেলেছে চোখও।

স্থানীয়রা জানায়, পারিবারিক বিরোধের জেরেই নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে শিশু তোফাজ্জলকে।

তোফাজ্জলের চাচা সালমান হোসেন জানান, ৮ জানুয়ারি বিকেলে গ্রামের মাঠে ওয়াজ শুনতে গিয়ে নিখোঁজ হয় তোফাজ্জল। কোথাও তার সন্ধান না পেয়ে ৯ জানুয়ারি থানায় জিডি করেন তোফাজ্জলের দাদা জয়নাল আবেদীন। শুক্রবার রাতে তাদের বাড়িতে তোফাজ্জলের জুতা ও একটি চিঠি আসে। চিঠিতে লেখা ছিলো- ‘তোমাদের ছেলে ভালো আছে। টেকেরঘাটে আমার বন্ধুর বাড়িতে তাকে রেখে এসেছি। ৮০ হাজার টাকা দিলে তাকে ফিরিয়ে দেয়া হবে। বাড়ির গোয়াল ঘরে রাত ৪টায় টাকা নিয়ে থাকবে।’

সালমান হোসেন আরো বলেন, চিঠি অনুযায়ী আমি টাকা নিয়ে রাত সাড়ে ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করি। পরে তোফাজ্জল না আসায় নামাযে যাই। অজু করতে গিয়ে গোয়ালঘরের সামনে থেকে একটা শব্দ পাই। সেখানে গিয়ে দেখি কেউ বস্তায় ভরে তোফাজ্জলের মরদেহ ফেলে গেছে।

তোফাজ্জলের বাবা জুবেল হোসেন বলেন, প্রতিবেশী কালা মিয়ার ছেলে সেজাউল কবিরের কাছে ছোট বোন শিউলিকে বিয়ে দিয়েছি। তারা আমার বোনকে যৌতুকের জন্য মারধর করে বাড়িতে পাঠিয়ে আর ফিরিয়ে নেয়নি। উল্টো আমাদের হুমকি দিয়েছে। এ কারণে তাদের সন্দেহ করি। পরে সেজাউল ও তার বাবাকে আটক করে পুলিশ।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান জানান, শিশুটির মাথাসহ সারাদেহ রক্তাক্ত ছিলো। এমনকি চোখও তুলে ফেলা হয়েছে। নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের কারণ জানা যায়নি। পরিবারের সন্দেহে দুইজনকে আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button