সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

কারাগারে চিকিৎসকের সংকট কাটছেই না

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
কাশিমপুর-২ কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের চিকিৎসার জন্য প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল ২০০ শয্যার একটি হাসপাতাল। কিন্তু চিকিৎসক না থাকায় তখনকার অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছিলেন ৩২ জন চিকিৎসক চেয়ে। পরে ২০১২ সালের মার্চ মাসে সারা দেশের কারাগারগুলোর জন্য ৭৮ জন চিকিৎসক ও ৯ জন প্যাথলজিস্ট চেয়ে আলাদা একটি চিঠি দেয় কারা কর্তৃপক্ষ। এরপর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিকিৎসক চেয়ে চিঠি দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে। ওই রকমভাবে ২০১১ সালের মে থেকে গত ২৫ মার্চ পর্যন্ত মোট ৩৪ বার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে কারা অধিদপ্তর থেকে। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গত সাত বছরে জনপ্রশাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে ৯ বার। কিন্তু এখনো প্রয়োজনীয়সংখ্যক চিকিৎসক পাঠায়নি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এদিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সব সংস্থায় চাহিদা অনুযায়ী দ্রুত চিকিৎসক নিয়োগের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ‘ডাক্তার পুল’ গঠন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, দফায় দফায় চিঠি দেওয়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গত বছরের ২৮ জানুয়ারি ২০ জন চিকিৎসক প্রেষণে নিয়োগ দিলেও মাত্র চারজন কারাগারে যোগ দেন। বাকি ১৬ জন চিকিৎসক এখনো যোগ দেননি। তাঁদের মধ্যে বেশির ভাগ চিকিৎসকই শিক্ষা ছুটিতে থাকা এবং বিভিন্ন কোর্সে অধ্যয়নরত। ফলে তাঁদের প্রেষণে নিয়োগ দেওয়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এ অবস্থায় কারা কর্তৃপক্ষ গত বছরের নভেম্বরের পর থেকে গত ১৯ মার্চ পর্যন্ত আরো চিকিৎসক চেয়ে পাঁচ দফা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে। এরপর স্বাস্থ্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়; কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। এভাবে কারা অধিদপ্তর এবং তিনটি মন্ত্রণালয়ের মধ্যে চিঠি চালাচালি চলছেই।

কারা হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকটের বিষয়ে কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা  বলেন, কারাগারে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকট দীর্ঘদিনের। এই সংকট দূর করতে কারা কর্তৃপক্ষ বারবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে; কিন্তু আশানুরূপ ফল পাওয়া যায়নি। তা ছাড়া কারা কর্তৃপক্ষ সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগও দিতে পারে না। এখানে নিয়োগ বিধিমালা অন্তরায়। এ কারণে বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরে আনা হয়। শুধুই কারাগারে নয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ যেসব সংস্থা রয়েছে, যেমন—পুলিশ, র‌্যাব, আনসার-ভিডিপি ইত্যাদি সংস্থা যাতে দ্রুত প্রয়োজনীয়সংখ্যক চিকিৎসক পায় সে জন্য প্রধানমন্ত্রী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি ‘ডাক্তার পুল’ গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন। এই পুল গঠনের কাজ চলছে। তিনি বলেন, এই পুল গঠিত হলে এর মাধ্যমে প্রয়োজনীয়সংখ্যক চিকিৎসক পাওয়া যাবে বলে প্রত্যাশা করছি।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ২০১১ সালের মার্চ থেকে ২০১৬ সালের মার্চ পর্যন্ত পাঁচ বছরে ২৩ বার চিঠি দিয়েও যখন কোনো কাজ হচ্ছিল না তখন পর্যাপ্ত চিকিৎসার অভাবে দেশের বিভিন্ন কারাগারে মারা যাওয়া বন্দির সংখ্যা উল্লেখ করে কারা অধিদপ্তর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়। ২০১৬ সালের এপ্রিলে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, বিভিন্ন কারাগারে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে ওই বছরের জানুয়ারি থেকে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত তিন মাসে ৪২ জন বন্দি মারা গেছেন। বিষয়টি তখনকার স্বাস্থ্য ও জনপ্রশাসন সচিবকে জানানোর পরও কোনো কাজ হয়নি। এই চিঠির একটি কপি সম্প্রতি হাইকোর্টে দাখিল করেছে কারা কর্তৃপক্ষ।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ১৩টি কেন্দ্রীয় কারাগার ও ৫৫টি জেলা কারাগার মিলে সারা দেশে সর্বমোট ৬৮টি কারাগার আছে। বর্তমানে দেশের কারাগারগুলোর জন্য ১৪১ জন চিকিৎসকের পদ অনুমোদিত আছে। এর মধ্যে দায়িত্বরত আছেন মাত্র ১০ জন চিকিৎসক। বাকি পদ শূন্য। গত ৫ নভেম্বর কারা কর্তৃপক্ষের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, গত ২৭ আগস্ট পর্যন্ত ৪০ হাজার ৬৬৪ জনের ধারণসংখ্যার বিপরীতে বন্দি ছিলেন ৮৬ হাজার ৯৯৮ জন। গত বছর এই সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গিয়েছিল। এই বিপুলসংখ্যক বন্দির চিকিৎসার জন্য মাত্র ১০ জন চিকিৎসক নিয়োজিত।

এদিকে গত বছর নিয়োগ দেওয়া যে ১৬ জন চিকিৎসক কারাগারে কর্মস্থলে যোগ দেননি, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিঠি দেয় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে। কিন্তু গত এক বছরেও জানা যায়নি তাঁদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় হাইকোর্ট গত ১৭ নভেম্বর এক আদেশে ওই চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তা জানতে চেয়েছেন সরকারের কাছে।

জানা যায়, কারা কর্তৃপক্ষ সরাসরি বা চুক্তিভিত্তিক চিকিৎসক নিয়োগ দিতে পারে না। কারা নিয়োগবিধি এখানে প্রধান প্রতিবন্ধক। কারা অধিদপ্তর (কর্মকর্তা ও কর্মচারী) নিয়োগ বিধিমালায় শুধু বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারের সহকারী সার্জন বা সমমানের পদ থেকে প্রেষণে নিয়োগ দেওয়ার সুযোগ আছে। কারা কর্তৃপক্ষের সরাসরি চিকিৎসক নিয়োগের সুযোগ না থাকায় তাদের বারবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিতে হচ্ছে। প্রয়োজনীয়সংখ্যক চিকিৎসকের জন্য সরকারের অন্য দপ্তরের দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে।

ওই প্রেক্ষাপটে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এবং সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জে আর খান রবিনের পক্ষ থেকে হাইকোর্টে আলাদা দুটি রিট আবেদন করা হয়েছে। আবেদন দুটি বিচারাধীন। অ্যাডভোকেট জে আর খান রবিন বলেন, কারা বিধি অনুযায়ী কারাগারে সরাসরি বা চুক্তিভিত্তিক চিকিৎসক নিয়োগের কোনো সুযোগ নেই। শুধু প্রেষণে বদলির মাধ্যমে কারাগারে চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়ার বিধান আছে। নিজেরা সরাসরি নিয়োগ দিতে না পারায় কারাগারগুলোতে চিকিৎসকের মারাত্মক সংকট দেখা দিয়েছে। চিকিৎসকের অভাবে আমাশয়, ডায়রিয়া, বিভিন্ন চর্মরোগ, হৃদরোগসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন বন্দিরা। যথাযথ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তাঁরা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button