সংবাদ সারাদেশ

কাগজের টুকরোর ভেতর মিললো এক ছাত্রের লাশ

সংবাদ চলমান ডেস্কঃ

পাড়াগাঁও নবদিগন্ত হাই স্কুলের অষ্টম থেকে নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়ে নতুন বই পেয়েছিল মেহেদী হাসান। অন্যান্য সহায়ক বই কিনার কারণে তার কিছু টাকার দরকার ছিল। এর জন্য কয়েকদিন আগে স্থানীয় একটি পেপার মিলে কাজ নেয় সে।

গতকাল সোমবার ভোরে কাগজের টুকরোর ভেতর পাওয়া যায় তার ক্ষতবিক্ষত লাশ। ঘটনাটির কারণ সম্পর্কে জানা যায়, মেশিনের কনভেয়ার বেল্টে রাখা কাগজের বান্ডিলের ভেতরে ঘুমিয়েছিল ক্লান্ত মেহেদী। মিনিট বিশেকের মধ্যে মেশিনের ফিতা ঘুরতে শুরু করলে কাগজের বান্ডিলের সঙ্গে সেও ঢুকে যায়।

মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি ছোট কাঁসর এলাকার ভূঁইয়া পেপার মিলসে।নিহত মেহেদী হাসানের বাবা ট্রাকচালক রফিকুল ইসলাম। থাকত উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের পাড়াগাঁও গ্রামের আশ্রয়ণ প্রকল্পে। পাড়াগাঁও নবদিগন্ত হাই স্কুলের ছাত্র মেহেদী পড়াশোনা করে পরিবারের অভাব ঘোচানোর স্বপ্ন দেখেছিল।

কাগজের টুকরো সঙ্গে তার স্বপ্নও টুকরো টুকরো হয়ে মিশে গেল।ভালুকা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদী হাসান বলেন, কারখানাটির সিসিটিভির ফুটেজ দেখে তারা জানতে পেরেছেন, ভোর রাতে ৯ জন শ্রমিক কারখানায় কাজ করছিলেন। শীতের ভোরে কাজের ফাঁকে কোনো কোনো শ্রমিক বিশ্রামও নিচ্ছিলেন। এ সময় সবার অজান্তে পেপার মিলে নতুন কাজে যোগ দেয়া মেহেদী হাসানও মেশিনের ফিতার ওপরে রাখা কাগজের বান্ডিলের ভেতরে ঢুকে ঘুমিয়ে পড়ে।

এর মিনিট বিশেকের মধ্যে মেশিনের ফিতা ঘুরতে শুরু করে। মেহেদীকে নিয়েই কাগজের বান্ডিল মেশিনে ঢুকে যায়। এতে মেশিনের ভেতরের পাখায় কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সে।নিহত কিশোরের মা হামিদা খাতুন বলেন, তার ছেলে পবিত্র কোরআনের ১০ পারার হাফেজ। করোনার কারণে মাদ্রাসা বন্ধ। মাদ্রাসার পাশাপাশি স্কুলেও পড়ালেখা করত সে। স্কুল থেকে বাড়িতে বই আনার পর নোটবই কিনে দিতে বলেছিল। একটু দেরি হবে বলায় কাজে যোগ দিয়েছিল।

ভূঁইয়া পেপারস মিলের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবদুর রহিম জানান, চলতি মাসের ৭ তারিখে মেহেদী হাসান শ্রমিক হিসেবে চাকরিতে যোগদান করে। তবে তার মৃত্যুর ঘটনায় তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, কিশোরের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলে জানা যায়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button