সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর দায়ে রিমান্ডে ৩ পুলিশ

সংবাদ চলমান ডেস্ক : টাঙ্গাইলের সখিপুরে পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে ফাঁসানোর ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া তিন পুলিশ সদস্যসহ চারজনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শুক্রবার বিকেলে পুলিশের পক্ষ থেকে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে সখিপুর আমলি আদালতের বিচারক শামছুল আলম রিমান্ড শুনানি শেষে এ রায় দেন।

আটককৃতরা হলেন- মির্জাপুরের বাঁশতৈল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ পরিদর্শক রিয়াজুল ইসলাম, পুলিশ সদস্য রাসেলুজ্জামান, গোপাল সাহা ও সোর্স হাসান মিয়া।

অন্যদিকে ওই তিন পুলিশ সদস্য ও পলাতক আ.হালিম ও তোজাম্মেল হকসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশের একাধিক সূত্র। পুলিশের পাঁচ সদস্য ও দুই সোর্সসহ মোট সাতজনকে আসামি করে সখিপুর থানার উপপরিদর্শক আইনুল হক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

জানা গেছে, টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের বাশতৈল ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা পাশ্ববর্তী উপজেলা সখিপুরের ভাতকুড়াচালার ফরহাদ মিয়ার ছেলে বজলুকে দীর্ঘদিন ধরে নিরীহ মানুষকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর জন্য নানা প্রলোভন ও চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এতে বজলু রাজী হওয়ায় তাকে নানা ভয়ভীতি দেখায় তারা।

এর ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার বিকেলে বাঁশতৈল ফাঁড়ির ইনচার্জ রিয়াজুল ইসলামের নেতৃত্বে সাদা পোশাকে কনস্টেবল গোপাল সাহা, মো. রাসেল, তোজাম্মেল, হালিম ও সোর্স হাসান মিয়া ও আল আমিন সাধারণ মানুষকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর জন্য বজলুকে চাপ প্রয়োগ করে। এসময় বজলু রাজী না হওয়ায় তাকে পকেটে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করে তারা। বিষয়টি স্থানীয়রা টের পেয়ে পুলিশ সদস্যদের আটক করে রাজাবাড়ি বাজারে নিয়ে যায়। এসময় পালিয়ে যায় তোজাম্মেল ও হালিম নামের দুই পুলিশ সদস্য। পরে উত্তেজিত জনতা গণধোলাই দিয়ে তাদের একটি কক্ষে আটকে রাখে তাদের। উদ্ধার করা হয় মানুষকে ফাঁসানোর জন্য আনা ২৫ পিস ইয়াবা। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে সখিপুর এবং মির্জাপুর থানা পুলিশ। তারা অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিলে শান্ত হয় উত্তেজিত জনতা।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় জানান, তারা ঘটনা ঘটিয়েছে তখন কিন্তু পুলিশ সদস্য হিসেবে ঘটায়নি। পুলিশের নিয়মকানুন মেনে তারা কিছুই করেনি। ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্যে তারা সেখানে গিয়েছিল। তাই তারা যে অপরাধ করেছে অন্য সব অপরাধ ও অপরাধীর মতোই বিবেচিত হচ্ছে। পুলিশ অপরাধ করলেও তার কোনো ছাড় নয়। আমরা তেমন দৃষ্টান্তই স্থাপন করছি।

গ্রেপ্তার পুলিশ সদস্যরা হলেন- মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার গুলরা গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে বাঁশতৈল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারি উপ পরিদর্শক (এএসআই) রিয়াজুল ইসলাম, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মোজাটি গ্রামের আক্তারুজ্জামানের ছেলে কনস্টেবল মো. রাসেলুজ্জামান, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি উপজেলার ঢুলদিয়া গ্রামের জীবন সাহার ছেলে গোপাল সাহা, আ: হালিম ও তোজাম্মেল হক। এছাড়া পুলিশের সোর্স মির্জাপুর উপজেলার বাঁশতৈল নয়াপাড়া গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে হাসান মিয়া ও সখিপুরের রাজাবাড়ী গ্রামের আল আমীন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button