সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

ইউপি সদস্যের কার্যালয়ে দুই যুবককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

সংবাদ চলমান ডেস্ক : বছরের শেষ রাত অর্থাৎ থার্টি ফার্স্ট নাইট। এ রাতে সবাই আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠে। কিন্তু ওই রাতেই নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় নাঈম ও রাতুল নামে দুই যুবককে চোর আখ্যা দিয়ে ইউপি সদস্যের কার্যালয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়। পরবর্তীতে একটি ছাগল দিয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় তাদের সোপর্দ করা হয়েছিল।

এমনই ঘটনা ঘটেছে সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার কুতুবপুর ইউপি পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আলাউদ্দিন হাওলাদারের কার্যালয়ে। বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়।

দুই মিনিট সাত সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, বিশ থেকে বাইশ বছর বয়সী দুই যুবককে একটি বিলাসবহুল কক্ষে মাটিতে ফেলে কয়েকজন পালাক্রমে পেটাচ্ছে। এরপর তাদের দুই পা জাপটে ধরে ওপরে তুলে শূন্যে ঝুলিয়ে রাখা হয়।

এ অবস্থায় তাদের পায়ে, পিঠে ও কোমরে এলোপাতাড়ি পেটানো হয়। ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন চেয়ারে বসে বিষয়টি দেখছেন ও আরো জোরে পেটানোর নির্দেশ দিচ্ছেন।

আলাউদ্দিন হাওলাদারের টেবিলের পাশে চেয়ারে বসে টুপি-পাঞ্জাবি পরা দুই বৃদ্ধাও বিষয়টি স্বাভাবিকভাবে দেখছিলেন। আলাউদ্দিনের পাশে একজন নারীও নির্যাতনের ঘটনা উপভোগ করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে, ওই নারী তার স্ত্রী।

এ সময় ওই কক্ষে আরো ১০-১৫ জন চারপাশে বসে ও দাঁড়িয়ে থেকে এ নির্যাতনের ঘটনা দেখছিলেন। দুই যুবকের কান্নাকাটি আর চিৎকারে কারো মনে একটু মায়া হয়নি। কেউ প্রতিবাদ করে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি।

নির্যাতনের শিকার নাঈমের মা নাজমা বেগম বলেন, আমার ছেলে প্রিন্টিং কারখানায় কাজ করে। ৩১ ডিসেম্বর রাতুলের সঙ্গে নাঈমকেও মারতে মারতে ধরে নিয়ে যায়। পরে আলাউদ্দিন হাওলাদারের অফিসে নিয়ে ইচ্ছামতো মারধর করে। কুকুরকেও মানুষ এভাবে পেটায় না।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন হাওলাদার মারধরের কথা স্বীকার করে বলেন, নাঈম ও রাতুল ছাগল চুরি করেছে। সিসি টিভির ফুটেজে বিষয়টি ধরা পড়ে। ছাগলের মালিক থানায় অভিযোগ করলে একজন দারোগা আমারে মীমাংসার দায়িত্ব দেন। এ ঘটনায় রাতুল নামে একজনকে ধরে আনলে চুরির কথা স্বীকার করছিল না। পরে তাকে কয়েকটি পিটুনি দিলে স্বীকার করে।

তিনি আরো বলেন, নাঈমও প্রথমে স্বীকার করেনি। পরে তাকেও পিটুনি দেয়া হয়। তারা জালকুড়িতে ছাগল বিক্রি করে দিয়েছে বলে স্বীকারোক্তি দেয়। এরপর দারোগাকে খবর দিলে সেই ছাগলসহ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

মানুষকে পেটানো অপরাধ, সেটি জানেন কিনা, এমন প্রশ্নে আলাউদ্দিন বলেন, এটি অন্যায় হয়েছে। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি। তাই মারধর একটু বেশি হয়ে গেছে। কিন্তু ছাগল তো উদ্ধার করেছি।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মিজানুর রহমান বলেন, কেউ আইন হাতে তুলে নিতে পারে না। এটা অবশ্যই অপরাধ। এভাবে যদি পিটিয়ে থাকে, আর কেউ যদি লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button