সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

‘আমি কখনো নারীকে পরাজিত হতে দেখিনি’

সংবাদ চলমান ডেস্ক : কিভাবে পানিশূন্যতার চিকিৎসা করতে হয় মায়েদের সেই শিক্ষা দেয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের গ্রামীণ শিশুদের মধ্যে মৃত্যুহার কমিয়ে আনার লক্ষ্য স্থির করেছিলেন স্যার ফজলে হাসান আবেদ। শুধু তাই নয়, তিনি তার মাঠপর্যায়ের কর্মীদের শুধু বাড়ি বাড়িই পাঠাননি, একই সঙ্গে অশিক্ষিত ও আধা শিক্ষিত মায়েরা কিভাবে এর পরবর্তী বিষয়গুলোতে অগ্রসর হতে পারেন তাও শিখিয়েছেন।

১৯৮০র দশকে ঘরে ঘরে উচ্চ মানের নির্দেশনা ও কঠোর নজরদারির মধ্য দিয়ে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা থেকে তিনি ঢাকায় একটি ল্যাবরেটরিতে গবেষণা করেন। বাংলাদেশে শিশু মৃত্যুর বড় একটি কারণ হলো ডায়রিয়া। এই রোগ থেকে অসংখ্য জীবন রক্ষার জন্য তার এই উদ্যোগকে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এ থেকে ব্র্যাক সৃষ্টিতে শক্তি যোগায়। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের পর যেসব শরণার্থী দেশে ফিরে আসছিলেন তাদেরকে সহায়তা করার জন্য তিনি ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশ রিহ্যাবিলিটেশন এসিসট্যান্স কমিটি (ব্র্যাক)। বিশ্বের মধ্যে এটিই হয়ে ওঠে সবচেয়ে বড় অলাভজনক উন্নয় সংগঠনের অন্যতম।

৮৩ বছর বয়সে গ্লিওব্লাস্টোমা নামের ব্রেন ক্যান্সারে মারা গেছেন আবেদ।

তিনি ছিলেন একজন একাউন্টেন্ট। একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে তিনি সিনিয়র নির্বাহী হিসেবে কাজ করেছেন। দেশের দারিদ্র্য মোকাবিলার জন্য তিনি সেই চাকরি ছেড়ে দেন। তিনি কথা বলেছেন, ‘বিজনেস ডিএনএ’ নিয়ে, যা তিনি প্রবর্তন করেছেন ব্র্যাকে। প্রকল্পগুলোতে নজরদারি ও মূল্যায়ন করে এর ফলকে ব্যবহার করা যেতে পারে সবোচ্চ কার্যকরভাবে।

২০১৪ সালে তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেছিলেন,পানিশূন্যতা পূরণে তিনি ঘরে তৈরি মুখে খাওয়ার (স্যালাইন) বিষয়ক স্কিমের অনেক গবেষককে চাকরিচ্যুতির কথা উল্লেখ করে একথা বলেছিলেন। তারা ফল বিভ্রাট ঘটিয়েছিল। শুধু এটার তদন্তে তিনি এমনটা করেন।

তিনি যে প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছেন সেখানে এখন এক লাখ মানুষ কর্মরত। এ প্রতিষ্ঠানটি ১১টি দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ক্ষুদ্র ঋণ বিষয়ক অর্থনীতি ও অন্যান্য সেবা নিয়ে পৌঁছে গেছে ১০ কোটিরও বেশি মানুষের কাছে। আবেদের দর্শনের মূলে ছিল একটি মৌলিক বিশ্বাস। তা হলো, দরিদ্রদের কোনো শক্তি না থাকার কারণে তারা আরও গরিব হচ্ছে। তাদেরকে উপযুক্ত পরিস্থিতি দেয়া হলে তারা কঠোর কাজ করতে পারেন এবং হতে পারেন পরিবর্তনের এজেন্ট। ২০১৫ সালে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ গ্রহণকালে আবেদ বলেছিলেন, আমরা ইতিহাসজুড়ে অদৃষ্টবাদী বিশ্বাস ও বিদ্যমান ধারণাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছি। সেটা হলো, ব্যাপক মাত্রায় বিস্তৃত মানবিক বিপর্যয় হলো প্রকৃতির অলঙ্ঘনীয় অংশ।

একসময় মানুষের দুর্দশার অভিজ্ঞতাকে মনে করা হতো অপরিহার্য। যেমন ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নারীদের ওপর নিষ্পেষণ, সমাজের বৃহৎ একটি অংশকে একপেশে করে রাখা। কিন্তু তিনি দেখেছেন, মানব প্রকৃতির শক্তি ব্যবহার করে এসব পরিবর্তনীযোগ্য। ব্র্যাকের প্রাথমিক ও প্রকল্পগুলোর কেন্দ্রীয় লক্ষ্য ছিল নারীদের জীবনের উন্নতি ঘটানো। আবেদ যেমনটা বহুবার বলেছেন- ‘আমার জীবনে বহু পরাজিত পুরুষকে দেখেছি। আমি কখনো পরাজিত নারীকে দেখি নি’।

পানিশূন্যতা বিষয়ক স্কিমের মাধ্যমে এক কোটি ৪০ লাখ মাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে কিভাবে চিনি, লবণ ও পানি দিয়ে ডায়রিয়ার প্রতিকার তৈরি করা যায় এবং শিশুদের জীবন রক্ষা করা যায়। এখান থেকে ব্র্যাক শিক্ষা বিস্তার পর্যন্ত গিয়েছে। ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত তারা কমপক্ষে ৩৪০০০ স্কুল পরিচালনা করেছে।

বাংলাদেশে ক্ষুদ্র অর্থনীতির প্রথম দিকের প্রস্তাবকদের অন্যতম আবেদ। তিনি বিশ্বাস করতেন বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষ গরিব। তাদের আর্থিক সহায়তা পাওয়া সবচেয়ে বড় সমস্যাগুলোর অন্যতম। তাই বার্ষিক ৪০০ কোটি ডলার ক্ষুদ্রঋণ দেয় ব্র্যাক। এরপর তিনি চরম দারিদ্র্যে থাকা মানুষদেরকে টেকসই সাহায্য করা প্রবর্তন করেন। তার এই মডেল অনুমোদন করেছে কমপক্ষে ৪০টি দেশ।
বাংলাদেশে গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনুস। তিনি সমাজের অতি দরিদ্রদের ক্ষুদ্রঋণ দিয়ে তাদের জীবনের পরিবর্তন ঘটানোর জন্য ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জেতেন। তিনি ফজলে হাসান আবেদকে দরিদ্রদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক মুক্তি দানের এক অসাধারণ কারিগর হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

আবেদের জন্ম বাংলাদেশের বানিয়াচংয়ে। পিতা সিদ্দিক হাসান ও মাতা সৈয়দা সুফিয়া খাতুনের আট সন্তানের অন্যতম তিনি। তারা ছিলেন বৃটিশ ভারতের সিলেট অঞ্চলের সুপিরিচিত জমিদার পরিবারের। আবেদের স্মৃতিতে ছিল ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষ। এতে অনাহারে মারা গেছেন ৩০ লাখ মানুষ। এ ছাড়া তার স্মৃতিতে ছিল ভারত ভাগ, যার মাধ্যমে বাংলার অংশবিশেষ পরিণত হয় পূর্ব পাকিস্তানে। এই দুটি ঘটনাই তার মনে গভীর ছাপ ফেলে যায়, যা থেকে তিনি ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেন।

ইউনিভার্সিটি অব গ্লাসগোতে নেভাল আর্কিটেকচার পড়ার জন্য ১৮ বছর বয়সে তিনি বৃটেন যান। পরে সেখান থেকে যান লন্ডনের চার্টার্ড ইন্সটিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট একাউন্ট্যান্টসে। এখান থেকেই তার মধ্যে কবিতা ও চিত্রশিল্পের প্রতি ভালবাসা বৃদ্ধি পায়। ১৯৬৮ সালে তিনি দেশে ফিরে আসেন। যোগ দেন শেল পাকিস্তান নামের প্রতিষ্ঠানে। তাকে পোস্টিং দেয়া হয় চট্টগ্রামে। দ্রুততার সঙ্গে তিনি এ প্রতিষ্ঠানের অর্থ বিষয়ক বিভাগের প্রধান হিসেবে উঠে আসেন।

১৯৭০ সালের ১২ই নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে ভোলায়। এতে মারা যান ৩ লাখ মানুষ। এ ঘটনা তার জীবনের লক্ষ্যকে পাল্টে দেয়। তিনি ওই সময় বন্ধুবান্ধব ও সহকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ঘূণিঝড় কবলিত এলাকার মনপুরায় যান ত্রাণ বিতরণ করতে। এ নিয়ে ২০১৪ সালে তিনি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে একটি সাক্ষাতকার দেন। তাতে তিনি বলেন, আমার দেশে (ওই সময়) আমি যে মৃত্যু আর বিপর্যয় দেখেছি, তাতে একটি তেল কোম্পানির নির্বাহী হিসেবে নিজের জীবনকে মনে হয়েছে অত্যন্ত নিষ্ফল ও অর্থহীন।

কয়েক মাসের মধ্যেই দেখা দেয় গৃহযুদ্ধ। এ সময় শেল কোম্পানি থেকে পদত্যাগ করেন তিনি। ফিরে যান বৃটেনে। গঠন করেন অ্যাকশন বাংলাদেশ নামের একটি এনজিও। স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য সংগ্রহ করেন তহবিল এবং ইউরোপীয় সরকাগুলোর কাছে তদবির করেন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য।

১৯৭১ সালের শেষের দিকে স্বাধীনতা অর্জনের পর ধ্বংসস্তূপের মধ্যে অর্থনীতির সন্ধানে, জরুরি ত্রাণ ও পুনর্বাসনের প্রয়োজনীয়তা মাথায় রেখে তিনি দেশে ফিরে আসেন। ভারত থেকে দেশে ফিরে আসেন এক কোটির মতো শরণার্থী। লন্ডনে ছোট্ট ফ্লাটটি বিক্রির ১৬০০০ পাউন্ড ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠা করেন ব্র্যাক।

ব্র্যাকের আকার ও প্রভাব নিয়ে অনেক সমালোচকের মধ্যে উদ্বেগ দেখা দেয়। তারা মনে করতে থাকেন এটা বাংলাদেশের মধ্যে আরেকটি সমান্তরাল স্টেট হিসেবে।  পর্যায়ক্রমিক প্রশাসনগুলো ভূমিহীন দরিদ্রদের সেবা দিতে ব্যর্থতার মধ্যে ব্র্যাকের সমর্থকরা এর কার্যকারিতা তুলে ধরেন। ২০০১ সালে এর প্রভাব বাংলাদেশের বাইরেও বিস্তৃত হয়, যখন তালেবানের পতনের পর লাখ লাখ শরণার্থী ফিরে যাচ্ছিলেন আফগানিস্তানে।

আবেদের এই কাজের স্বীকৃতি হিসেবে অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে ২০১৮ সালের লেগো প্রাইজ, ২০১৯ সালে শিক্ষা উন্নয়নে ইদান প্রাইজ। ২০১০ সালে তিনি নাইট উপাধিতে ভূষিত হন। একজন নেতা হিসেবে তিনি ছিলেন স্বপ্রভাবিত ও বিনয়ী। বিশ্বাস করতেন ব্র্যাকের কাজ নিজেই কথা বলবে। তার প্রতিষ্ঠানে তিনি ছিলেন ‘আবেদ ভাই’ হিসেবে খুব বেশি পরিচিত। তিনি তিনবার বিয়ে করেছেন। প্রথম স্ত্রী আয়েশা চৌধুরী সন্তান জন্মদানের সময় মারা গেছেন। এরপর দ্বিতীয় স্ত্রী শিলু আহমেদ মারা যান ১৯৯৭ সালে। এরপর তৃতীয় স্ত্রী সারওয়াত সেকান্দারের সঙ্গে তিনি জীবন কাটান। তার রয়েছে মেয়ে তামারা, ছেলে শামিরা। তিনটি নাতিপুতি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button