সংবাদ সারাদেশসারাদেশ

আমদানির আড়ালে অর্থপাচার

সংবাদ চলমান ডেস্ক: পেঁয়াজ আমদানির আড়ালে বিপুল অর্থ বিদেশে পাচার হয়েছে। আমদানিকারকরা আমদানি মূল্যের চেয়ে দাম কম দেখিয়েছে। এসব আমদানিকারক তৈরি করেছিল একটি শক্তিশালী সিন্ডিটে।

হঠাৎ পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় মাঠে নামে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। তারা বিভিন্নভাবে তদন্ত করে দেখতে পায় একটি সিন্ডিকেট পেঁয়াজের বাজার অস্থির করেছিল। এতারা হাতিয়ে নিয়েছে কয়েক হাজার কোটি টাকা যা বিদেশে পাচার করা হয়েছে।

এনবিআরের এ তদন্ত সংস্থাটি তাদের তদন্ত প্রতিবেদনে পেঁয়াজসহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম নিয়ে কারসাজির লাগাম টেনে ধরা এবং মূল্য স্থিতিশীল রাখার জন্য কয়েকটি সুপারিশ পেশ করেছে।

পেঁয়াজের বাজার অনুসন্ধান করতে গিয়ে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর বিভিন্ন সময় ৪৩টি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের প্রধানের সাথে কথা বলেন।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে— শুধু মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির আড়ালে আমদানিকারকরা প্রায় ২০০ কোটি টাকা পাচার করেছেন। চলতি বছরের গত আগস্ট থেকে নভেম্বর পর্যন্ত চার মাসে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা হয়েছে ৩৪ হাজার ৮৬১ টন পেঁয়াজ।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্র জানায়, মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানির মূল্য টন প্রতি ১২০০ মার্কিন ডলার পরিশোধ করা হলেও দেখানো হয়েছে ৫০০ মার্কিন ডলার।

এভাবে অন্ডার ইনভয়েজের মাধ্যমে প্রতি টন পেঁয়াজে ৭০০ মার্কিন ডলার পাচার করা হয়েছে। এই বিপুল অর্থ কীভাবে পরিশোধ করা হয়েছে তা বের করতে কাজ করছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বলেন, মুদ্রা পাচারকারীরা সাধারণত পণ্যের দাম কম দেখিয়ে মুদ্রা পাচার করে। তারা এভাবে অর্থপাচার করে অন্য পণ্যের দায় শোধ করে। তারা এজন্য ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে হুন্ডির মাধ্যমেও টাকা পাঠায়। পেঁয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে এরকম ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন শুল্ক গোয়েন্দা যদি যথাযথভাবে তদন্ত করে তবে তারা প্রকৃত অপরাধীকে বের করে আনতে পারবে। তিনি আরও বলেন, একমাত্র ব্যাংকিং চ্যানেলই পারে এভাবে মুদ্রাপাচার রোধ করতে।

আমদানিকারকরা যখন এলসি খোলে তখন পণ্যের সত্যিকার দাম যাচাই করে ব্যাংকগুলোর এলসি খোলা উচিত বলে তিনি মনে করেন। যদি এটি না করে যেমন ইচ্ছা তেমন দাম দেখিয়ে এলসি খোলা হয় তবে মুদ্রাপাচার বোধ করা সম্ভব নয় বলে তিনি মনে করেন।

এনবিআর সূত্র জানায়, সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টির পর এনবিআর মাঠে নামায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরকে। চলতি বছরের আগস্ট থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সময়কালে পেঁয়াজের আমদানিকারকদের তথ্য পর্যালোচনা করে তদন্ত কমিটি।

এতে তারা দেখতে পায় গত দুবছরের তুলনায় এবার আমদানি হয়েছে কম। কমিটি ৩৪০ আমদানিকারকের ২ হাজার ৪০৯টি বিল অব এন্টি পর্যালোচনা করে। তারা দেখতে পায় এই সময়ে আমদানি করা হয়েছে প্রায় ১ লাখ ৬৭ হাজার ৮০৬ টন পেঁয়াজ।

এর মধ্যে ৪৩ জন আমদানিকারককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, একশ্রেণির ব্যবসায়ী পেঁয়াজ সংকটের সুযোগ নিয়েছে।

তারা মিয়ানমারসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির বিপরীতে অর্থপাচার করে থাকলে তা খুঁজে বের করা খুব বেশি কঠিন কাজ নয়।

তিনি বলেন, পেঁয়াজ আমদানি করতে যদি অর্থপাচার করে তা হবে একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। যারা এধরনের অপরাধ করেছে তাদের শাস্তি হওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button