লাইফস্টাইল

গবেষণা: স্ট্রেস কমাতে অফিসের ডেস্কে রাখুন একটি গাছ!

সংবাদ চলমান ডেস্ক : বেশিরভাগ মানুষকেই জীবিকার তাগিদে বাসা ছেড়ে দিনের বেশিরভাগ সময় অফিসেই কাটাতে হয়। তাইতো অফিসকে দ্বিতীয় বাড়িও বলা হয়। অফিসই হলো সেই জায়গা, যেখানে সহকর্মীদের সঙ্গে সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না ভাগাভাগি করে মনকে শান্ত করা যায়।

সমস্যাটি হলো, বাড়িতে যেমন চাইলেই তেমন আরাম-আয়েশ করা যায় যা অফিসে সম্ভব হয় না। বরং সেখানে নিজেকে সবার থেকে এগিয়ে রাখার চেষ্টা করতে হয় সর্বক্ষণ। আর তখনই নানা কাজের চাপে খুব সহজেই বাড়ে স্ট্রেস। অফিসের দুশ্চিন্তার ফলে শুধু আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য নয়, ক্ষতিগ্রস্ত হয় শরীরও। জানেন কি, অফিসের এই মাত্রাতিরিক্ত স্ট্রেস কমাতে আপনার বন্ধু হতে পারে গাছ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন অফিসের ডেস্কে একটা গাছ লাগান, যা আপনার মনে পজিটিভ প্রভাব বিস্তার করে টেনশন কমাতে অনেক সাহায্য করবে।

জাপানে ৬৩ জন কর্মীর ওপর জরিপ চালিয়ে দেখা গেছে যে, ডেস্কে কোনো ইনডোর প্ল্যান্ট বসানো থাকলে তা স্ট্রেস রিলিফের কাজ করে। টানা কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে আমরা মানসিকভাবে অবসন্ন হয়ে পড়ি। একটুখানি সবুজ দেখতে পেলে মন উত্ফুল্ল হয়ে ওঠে। তার প্রভাব আমাদের কাজেও পড়ে। তাই কোনো ঘরোয়া গাছ আপনার অফিস ডেস্কে অবশ্যই রাখুন।

গাছ লাগানোর পর সবচেয়ে জরুরি বিষয় হচ্ছে যত্ন নেয়া। অল্প আলো ও অল্প জায়গায় জন্মানো এসব ঘরোয়া গাছের পরিচর্যার দিকে নজর দিতে হবে শত ভাগ। এসব গাছ লাগানোর জন্য বেলে ও বেলে-দোঁআশ মাটি উপযুক্ত। মাটির সঙ্গে জৈব সার সমান ভাবে মিশিয়ে টবে ভরতে হবে।

বাজারে সুন্দর ডিজাইন করা মাটি, তামা, পিতল, প্লাস্টিক, সিরামিক ও সিমেন্টের তৈরি টব পাওয়া যায়। যেহেতু জায়গা অনেক কম সেহেতু অপেক্ষাকৃত ছোট ও মাঝারি আকৃতির টব নির্বাচন করা ভালো। প্রয়োজন অনুযায়ী দিনে ১ থেকে ২ বার গাছে পানি দিতে হবে। টবের মাটি ভেজা থাকলে পানি না দেয়াই ভালো। অতিরিক্ত পানি দিলে গাছ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। মাঝে মাঝে স্প্রেয়ারের সাহায্যে গাছের পাতা ধুয়ে দিলে ভালো হয়।

সপ্তাহে একবার গাছগুলো রোদে দিতে হবে। ২ থেকে ৩ দিন পর পর রোদে দিলে ভালো হয়। গাছের পুষ্টি উপাদান নিশ্চিত করতে তরল সার ব্যবহার করতে হবে। মাঝে মাঝে গাছের গোড়ার মাটি উল্টেপাল্টে দিতে হবে। পোকামাকড় আক্রমণ করলে বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। পানিতে গাছ থাকলে সপ্তাহে একবার পানি পরিবর্তন করতে হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button