রাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী কে নিরাপদ নগরী হিসেবে ঘোষনা দিতেচান- আবুকালাম সিদ্দিক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

এবার  রাজশাহী মহানগরীকে ‘নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দিতে চান আর এম পির পুলিশ কমিশনার আবুকালাম সিদ্দিক।আগামী  ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে এই ঘোষণা দিতে চান আরএমপি’র সু যোগ্য কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক।

এলক্ষে তিনি কাজ করে চলেছেন আর এম পির জন্য। তিনি আর এম পির অবিভাবকের দায়িত্বভার গ্রহণের মাত্র দুই মাসের মধ্যেই  রাজশাহীবাসীর মাঝে আশার দানা বাধাতে সক্ষম হয়েছেন অনেক টাই।
গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর আরএমপিতে যোগদানের পর তিনি বেশকিছু গরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপ গ্রহণ করেন যা নিয়ে আলোচনায় আসেন তিনি।অপরাধ দমনে ও অপরাধীকে ধরতে প্রযুক্তির সর্বোচ্চ সেবা ব্যবহার করছেন বিভিন্ন সময়।  এই নগরী সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় শুরুতেই তিনি মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। মহানগরীকে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত করতে নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন এই পরিশ্রমি পুলিশ কর্মকর্তা।

কমিশনার হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণের পর তার নেতৃত্বে  আরএমপিতে বেশ কিছু নতুন ইউনিট চালু করেছেন যা সুনির্দিষ্ট অপরাধ দমনে কাজ করছে সকল সময় । এর সুফলও পেতে শুরু করেছে নগরবাসী। এর মাঝে  রয়েছে, অপারেশন কন্ট্রোল এ্যন্ড মনিটরিং সেন্টার, মোবাইল ট্রাকিং, কিশোর গ্যাং ডিজিটাল ডাটাবেজ, হ্যালো আরএমপি এ্যপ সহ বিভিন্ন কৌশল।

অপারেশন কন্ট্রোল এ্যন্ড মনিটরিং সেন্টার : সিকিউরিটি ক্যামেরা বা সিসি টিভির মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ মোড় বা এলাকা সার্বক্ষণিক মনিরটরিং করা হচ্ছে যা আর এম পির ভেতরে অপরাধ করতে আসা ব্যক্তিদের ভাবিয়ে তুলেছে। সার্বক্ষণিক মনিটরিং এর জন্য আলাদা ইউনিট চালু করা হয়েছে। সন্দেহভাজন ও অপরাধীদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ, দ্রুত সময়ের মধ্যে অপরাধী শনাক্ত সহ মেট্রো এলাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে সর্বক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এই কন্ট্রোলরুম। অপরাধী চিহ্নিত করা, অপরাধ দমন ও নিয়ন্ত্রণ, জনসাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সিসি টিভির ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিরা রাখছে। এরই মধ্যে  কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ও জটিল মামলায় সফলাতাও এসেছে।

মহানগরীতে হারানো মোবাইল উদ্ধারে মোবাইল ট্রাকিং সিস্টেম কার্যকর ভূমিকা রাখছে সকল সময়। পলাতক আসামী বা সন্দেহভাজনদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনার মাধ্যমে মূল অপরাধী ধরতে সহায়তা করছে। এরই মধ্যে কয়েকটি হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে এধরণের প্রযুক্তির ব্যবহারে কার্যকর ভূমিকা রাখছে।
কিশোর অপরাধ দমনে তৈরি করা হয়েছে কিশোর গ্যাং এর বিস্তারিত তথ্য সম্বলিত ডিজিটাল ডাটাবেজ। এরই মধ্যে প্রায় ৪শ কিশোরের বিস্তারিত তথ্য ডাটাবেজে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যাদের বয়স ২১ বছরের মধ্যে। ডাটাবেজে সংশ্লিষ্ট কিশোরের ছবিসহ ঠিকানা এবং তার অবিভাবকদের বিস্তারিত তথ্য সংযুক্ত করা হচ্ছে। এই তথ্য ধরে স্থানীয় থানা পুলিশের মাধ্যমে তাদের দৈনন্দিন কার্যক্রম মনিটরিং করা হচ্ছে এটিও।

আরএমপির পুলিশ কমিশার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন,মহানগরীর ৪৭২ বর্গকিলোমিটার এলাকার প্রতিটি ইঞ্চি আমাদের  আওতায় থাকবে। বিশ্ববিদ্যালয়, ভদ্রা, কামারুজ্জামান চত্বর, লক্ষিপুর মোড়, সিএ্যন্ডবি মোড়, জিরো পয়েন্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ এলাকা সার্বক্ষণিক মনিটরিংএ রাখা সম্ভব হচ্ছে। অপারেশন কন্ট্রোল এ্যন্ড মনিটরিং সেন্টারের আওতায় স্থাপিত ক্যামেরাগুলো হাই রেজুলেশনের এবং নাইট ভিশন সুবিধা রয়েছে। যা ৮০ মিটার পর্যন্ত কার্যকর হবে এমন ক্যামেরা।
সকল শ্রেনির মানুষের সহযেগাীতায় রাজশাহী নগরীকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দিতে চান এই দক্ষ পুলিশ কমিশনার। আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীতা দিবসে নিরাপদ নগরী হিসাবে ঘোষণা দিতে চান তিনি।

তিনি বলেন রাজশাহী নগরী হবে নিরাপত্তার নগরী, প্রতিটি মানুষ এর সুফল ভোগ করবে। রাজশাহী নগরী হবে শান্তির প্রিয় নগরী।মহানগরীতে কোন মাদকের আলামত থাকবে না, কোন জঙ্গিবাদ থাকবে না,কোন  সন্ত্রাসী থাকবে না। এই শান্তির নগরীকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার জন্য মহানগরীর সকলের সহযোগীতা কামনা করেন এই আর পি প্রধান।তিনি বলেন প্রয়োজনে যারা মাদকাসক্ত তাদের পূর্ণবাসনের ব্যবস্থা করা হবে। তবুও আর এম পিতে কোন প্রকার অনিয়মের জায়গা হবেনা। আর এম পির একটি সুত্র বলছে কাশিয়াডাঙ্গা বিভাগের সহকারি পুলিশ কমিশনার উৎপল চৌধুরীর দক্ষতা কৌশলের কারনে মাদক প্রবন এলাকা কাশিয়াডাঙ্গা বিভাগ অনেকটাই নিয়ন্ত্রনে এসেছে।যার সুফলে জড়িয়ে রয়েছে কাশিয়াডাঙ্গা থানার দক্ষ অফিসার এস এম মাসুদ পারভেজ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button