রাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীর শ্যামপুর ঘাটের বালু উত্তোলনের অপেক্ষায় শতাধিক পরিবার

নুরজামাল ইসলামঃ

কিছুতেই যেন কাটছেনা রাজশাহীর মতিহার সংলগ্ন শ্যামপুর বালু ঘাটের জড়তা, এই নিয়ে স্থানিয়দের মাঝে জমেছে অভিযোগের পাহাড়। অনেকেই ক্ষোভে ফেটেপড়ছে তাদের বৈধ ঘাট পরিচালনায় বিভিন্ন প্রকার অভিযোগ উঠায়।

জানা গেছে এই শ্যামপুর বালু ঘাটটি মেসাস রজব এন্ড ব্রাদার্স নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ৬ কোটি ২৪ লাখ টাকায় ইজারা নেন। তবে ইজারার শুরু থেকেই এই ঘাটের ইজারাদার কে বিভিন্ন ভাবে আইনী জটিলতা দেখিয়ে অধিক সময় বালু উত্তোলন থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সেই সাথে একটি মহলের রষানলে পড়ে ইজারাদার প্রিষ্ঠানটি লাভের পরিবর্তে লোকসান গুনতে বসেছে। আর ফলে শতাধিক পরিবার তাদের কর্ম হারাতে বসেছে। অনেকের দাবি আমাদের পরিবারের কর্মের ব্যবস্থা হয় এই বালুঘাটে হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম করে। সরে জমিনে মতিহার থানাধীন শ্যামপুর পুর বালুঘাটে গেলে মিডিয়া কর্মীদের দেখে ছুটে আসে শতাধিক দরিদ্র মানুষ তাদের আহাজারি যেন এই ঘাটের কার্যক্রম চলমান থাকে।এই বালুঘাট কে কেন্দ্রকরে শতাধিক পরিবার জীবন যাবন করে থাকেন।

স্থানিয়রা আরো বলেন এই ঘাট থেকে বালু নেওয়া খুব সহজ ও সাধ্যের মধ্যে হবে বলেই এই ঘাটের বালু উত্তোলন শুরু হলে সব চাইতে লাভবান হবে রাজশাহী মহানগর বাসি।ঘাটের কোন প্রকার জটিলতা আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সুশীল সমাজের একাধিক ব্যক্তি বলেন আমরাতো কোন জটিলতা দেখতে পাইনা, তারা বলেন যেহেতু ঘাট শ্যামপুরের নামে বরাদ্ধ তাই সংশ্লীষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান শ্যামপুরেই বালু উত্তোলন করছেন শুধু বালু নেওয়ার ক্ষেত্রে তারা নিজেরাই রাস্তা তৈরি করে নিচ্ছে সে বিষয়ে কারো কোন প্রকার অভিযোগ থাকার কথা নয়।

তবে একটি সিন্ডিকেট এই সহজ বিষয়টি মেনে না নিয়ে তাদের রষানলে ফেলতে চাইছে বালু মহলের ইজারাদার সহ সংশ্লীষ্ট মহল কে। বালু উত্তোলনের স্থান পদ্মা নদীর নির্ধারিত স্থানে গিয়ে দেখাযায় সেখানে লিজ কৃত জায়গাতেই চলছে বালু উত্তোলন। এইনিয়ে কোন অভিযোগ না থাকলেও সংশ্লীষ্ট ব্যক্তিরা অভিযোগ তুলেছে বালু পরিবহন করা সহ নানা ক্ষেত্রে যা নিয়ে চলছে বিভিন্ন মন্তব্য।

তবে আইনীভাবে বালু উত্তোলনের ক্ষেত্রে কোন প্রকার নিয়ম বহিভুত ভাবে কিছু হচ্ছেনা বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়য়ের একজন কর্মকর্তা তিনি বলেন বালু উত্তোলনের জন্যই তো সরকার নির্ধারিত জায়গা ইজারা দিয়েছেন আর সরকারি নিয়ম মেনে ইজারাদার নির্ধারিত টাকাও জমা দিয়েছেন সে ক্ষেত্রে অনিয়মের কোন সুযোগ নেই।

সুত্রটি বলেন আসলে বালু পরিবহনের ক্ষেত্রে রাস্তা ঘাটের বিষয় নিয়ে যে অভিযোগ উঠেছে সেটি ভিন্ন বিষয়, আর সেটিকে কেন্দ্রকরে কোন ইসু তৈরি করছে হয়ত কেউ। তিনি আরো বলেন বালু উত্তোলন করে যদি সেই বালু রাস্তাদিয়ে নিতে না পারে তাহলে তারা নিবে কিভাবে। বিষয়টি রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নজরে রয়েছে বলেও জানান তিনি। রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নিজস্ব দপ্তরের দায়িত্ব প্রাপ্ত একটি সুত্র বলেন পদ্মা নদীতে প্রতি বছর ইজারার মাধ্যমে সরকারের যে আয় আসে সেটি বড় ধরনের উৎস আর এই আয়ের উৎসকে প্রতি বছর বিতর্কিত করতে একটি মহল মরিয়া হয়ে উঠে।

আসলে তারা নিজেরা সুবিধা ভোগ করতে না পেরেই এমন বিতর্কের সৃষ্টি করে। সরকারের উচিত আয়ের উৎস যেখানে রয়েছে সেখানে আরো কঠোর নজর দারি করা। জানতে চাইলে বালু মহল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রজব এন্ড ব্রাদার্স বলেন আমরা সরকারের সকল নিয়ম মেনেই আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছি তিনি বলেন যে বিষয় গুলো নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল সেই বিষয় গুলোর উপর আমরা মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা নিয়ে এসেছি এবং রাজশাহীর জেলা প্রশাসকের নির্দেশ মেনেই আমরা আমাদের কার্যক্রম অব্যহত রেখেছি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button