রাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে বেপরোয়া ক্লিনিক নামের কষাইখানা গুলো

মো: জাকারিয়া : রাজশাহী জেলার প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে শুরু করে শহর অবধি বিভিন্ন নামে গড়ে উঠেছে বেসরকারি হাসপাতাল, যাদের অনেকের নাম আছে ট্রেড লাইসেন্স ও নেই।

দীর্ঘ অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমন কয়েক ডজন হাসপাতাল। অনেকেই উপরে আবেদন দেওয়ার অযুহাত দিয়েই দীর্ঘ সময় এই সকল কোষাই খানা নামক হাসপাতাল পরিচালনা করছে বলেও এর সত্যতা মিলেছে।

অভিযোগ আছে এই সকল হাসপাতালে সিভিল সার্জন এর নাম করে রিতিমত একটি পক্ষ লেনদেনের দরবার ও করে থাকেন। জেলার চারঘাট উপজেলার দুইটি, বাঘা উপজেলার তিনটি, পুঠিয়া উপজেলায় এক ডজনের মত, বিশেষ করে ক্লিনিক দিয়ে নিজেই ডাক্তার সেজে রুগীদের অপোরেশন করেন এমন অভিযোগ রয়েছে পুঠিয়ার একজন ক্লিনিক ব্যবসায়ীর উপর তিনি একজন ডাক্তারের সাথে ঘোরা ফেরা করলেও নিজেকে ডাক্তার দাবী করেন।

অভিযোগ রয়েছে তিনি পুঠিয়ার বাইরেও দুর্গাপুরে একটি ক্লিনিকে প্রতি নিয়ত যাতায়াত করেন ডাক্তার হিসেবে। সেখানে তিনি সিজার, পিত্ত থলিতে পাথর সহ বিভিন্ন অপোরেশন করেন এমন অভিযোগ রয়েছে তার উপর।

বানেশ্বর বাজারে পুস্প নাম দিয়ে তিন বছর যাবৎ একটি ক্লিনিক চলছে যার নাম গন্ধ নেই সিভিল সার্জন অফিসে। খবর নিয়ে জানাগেছে বানেশ্বর বাজারে মডেল, গ্রিন সহ সব ক্লিনিকের উপর অভিযোগ রয়েছে বৈধ্য কাগজপত্রের ব্যপারে। বাগমারার ভবানীগঞ্জ বাজার যেন হয়ে উঠেছে ক্লিনিকের স্বর্গ রাজ্য।

সেখানে দেখা মিলেছে হাতুড়ে ডাক্তারদের সাথে অনেকেই নার্সিং থেকে এসেছে ডাক্তার সেজে, কেউবা কুমিল্লা থেকে কাগজ পত্র বিহিন ডাক্তার, মিডিয়া কর্মীরা তাদের যোগ্যতার বিষয়ে জানতে চাইলে কৌশলে সটকে পড়েন কেউবা দলীয় নেতা কর্মী ডাকেন ভুগোল বুঝ দেবার জন্য।

তবে এই সকল অনিয়মের বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের কেই দায়ী করছেন সিভিল সার্জন অফিসের একজন কর্মকর্তা তিনি বলেন এই সকল ক্লিনিকের চুড়ান্ত তালিকা তৌরি করে যদি আমাদের কে দেওয়া হয় তাহলে আমরা অইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারি, এই সকল দ্বায়ীত্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার।

সিভিল সার্জন অফিসের অপর একটি সুত্র সংবাদ চলমান কে বলেন, উপজেলার ডাক্তারদের সাথে ক্লিনিক মালিকদের সু- সম্পর্ক থাকার কারনেই এই সকল অবৈধ্য ক্লিনিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা সম্ভব হচ্ছেনা

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো পড়ুন
Close
Back to top button