রাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

রাজশাহীতে  প্রতি মাসে পুলিশের ডোপ পরিক্ষা সহ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

দেশের পশ্চিমের প্রধান বিভাগীয় শহর হিসাবে রাজশাহীকে অনুসরণ করা হলেও প্রাচীন কাল থেকেই  রাজশাহীতে রয়েছে মাদকের প্রাদুর্ভাব। এর কারন হিসাবে প্রতিবেশী দেশ ভারত কেই দ্বায়ী করছেন, গোপন সংস্থার একটি  সুত্র।

তাদের দাবি রাজশাহী থেকে প্রতিবেশী দেশ ভারত খুব কাছাকাছি হয়ার কারনেই সাধারণ মানুষের পাশাপাশি প্রশাসনের অনেক সদস্যই ঝুকে পড়েছে মাদকের মত ভয়ংকর নেশায়। আর তাদের কোন ভাবেই নিয়ন্ত্রন করা যাচ্ছেনা এই মাদকের ভয়ংকর থাবা থেকে।

অভিযোগ রয়েছে এই জেলায় অনেক শিক্ষানুবিশ পুলিশ কর্মকর্তা প্রশিক্ষন নিতে এসেও মাদকের মরন থাবার জালে আটকে যায়। অনেক পুলিশ সদস্য রয়েছে যারা হাতের নাগালে খুব সহজে মাদক পাওয়ার কারনেই আসক্ত হয়ে যায় ভয়ংকর মরন নেশায়। রাজশাহীর সিমান্তবর্তী এলাকার মাদকের প্রধান রুট হিসাবে শহর সংলগ্ন চরমাজার দিয়ার, বুলনপুর, নবগঙ্গা,ও গোদাগাড়ী থানার কয়েকটি স্থানকে দ্বায়ী করছেন আরেকটি সুত্র।

দ্বায়ী করছেন চারঘাট থানার ইউসুফপুর, মুক্তারপুর, বাঘা থানার মিরগঞ্জ সহ কয়েকটি চিহ্নিত রুটকে। অভিযোগ রয়েছে এই সকল রুটে বেশীর ভাগ সময় ফেন্সিডিল ও হিরোইন প্রবেশ করে। ভারতীয় শাড়ি কাপড় আগের তুলনায় কমপ্রবেশ করলেও মাঝে মধ্যে বিভিন্ন প্রকার অস্ত্র আটক হয় এই সকল পথে।

একটি সুত্র বলছেন বাংলাদেশ পুলিশের যোগ্য মহাপুলিশ পরিদর্শক  র‍্যাব থেকে পুলিশে এসে পুলিশ প্রধান হিসাবে যোগদান করার পরেই  যে সকল নির্দেশনা পুলিশ বাহীনির জন্য দিয়েছেন সেই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে রাজশাহীতে কঠোর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন রাজশাহীর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক ও রাজশাহী রেঞ্জের ডি আই জি আব্দুল বাতেন বি পি এম, পিপি এম, অভিযোগ রয়েছে এর পরেও পুলিশ সদস্যদের অনেকেই গোপনে করছে বিভিন্ন মাদক সেবন। গত কয়েকদিন পূর্বে  কয়েকজন পুলিশ সদস্যদের ডোপ পরিক্ষায় মাদকের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ মিলেছে।

মানবাধিকার সংস্থার একটি সুত্র বলছে আগামি সময়ে প্রতি মাসেই  প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে ডোপ পরিক্ষার মাধ্যমে পুলিশ বাহীনির নামে উঠা বদনাম অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব। সুত্রটি বলছেন এই উদ্যেগ গ্রহন করলে পুলিশ সাধারণ মানুষের নিকট ভরসার দিক দিয়েও শত ভাগ আস্থা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হবে। রাজশাহী মহানহর ও জেলাতে এমন কিছু পুলিশ সদস্য রয়েছে যারা দীর্ঘ একযুগ বা তারও বেশী সময় ঘুরে ফিরে একই স্থানে চাকরি করছেন তাদের মুল উদ্দেশ্য উৎঘাটন করা জরুরি বলে মনে করছেন মানবাধিকার সংস্থাটি। অনেক পুলিশ সদস্য এরই মাঝে কনেষ্টবল থেকে  প্রমোশনে এস আই পর্যন্ত হয়েছেন ঘুরে ফিরে  এই রাজশাহীতে তাদের বেশীর ভাগ মাদকের সাথে কোন ভাবে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

এই সকল পুলিশ সদস্যদের নগদ টাকা ও সম্পদ হিসাব করা সহ তাদের বিরুদ্ধে জরুরি ব্যবস্থা গ্রহন করা জরুরি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট মহল। রাজশাহী মহাগরীতে বিলাশ বহুল বাড়ি গাড়ি সহ ডজন অভিযোগ নিয়েও এই শহরে চাকরি করছেন এমন পুলিশ সদস্যের সন্ধান রয়েছে বিভিন্ন সংস্থার নিকট। এত অভিযোগের বোঝা মাথার উপর নিয়ে কিসের ক্ষমতায় তারা পুলিশ বাহীনিকে প্রশ্ন বিদ্ধ করছেন সেটির ও অনুসন্ধান মুলক ব্যবস্থা গ্রহন করা জরুরি বলে মনে করছেন মানবাধিকার কর্মীরা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button