রাজশাহী

রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে ঘিরে জমে উঠেছে ফুল ব্যবসা

ফরিদ আহমেদ আবির: পহেলা ফাল্গুন, ভালোবাসা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আর বিয়ের অসংখ্য লগ্নকে উপলক্ষ্য করে শুভেচ্ছা বিনিময়, অভিনন্দন জ্ঞাপন, দিবস উদযাপন, সাজসজ্জা, বিয়ের আয়োজন, ধর্মীয় অনুষ্ঠান-সর্বত্রই ফুলের প্রয়োজন। রাজশাহীতে এখন জীবনধারায় নিত্য সহচর  হয়ে উঠেছে ফুল।

সবাই এখন ফুল কিনতে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছেন। তাই একুশে ফেব্রুয়ারী

ঘিরে ফুল ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠেছে রাজশাহী ফুলের বাজার। তাছাড়া ফুল বিপননের পরিধি ও ক্রমশ বাড়ছে রাজশাহী মহানগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্টে ও নিউমার্কেট এখন একুশে ফেব্রুয়ারী ঘিরে ফুল ব্যবসীয়রা ব্যস্ত সময় পার করছেন। রাজশাহী নগরীর সাহেব বাজার এলাকায় গেলে সহজেই চোখ পড়ে যায় ফুলের দোকানে। ফুলের বাহারী রঙ আর সুবাসে মুগ্ধ হয় মন। বিভিন্ন ফুলঘর সহ রাজশাহীর সবগুলো ফুলের দোকানে।

হানিফ নামে এক ফুল ব্যবসায়ী জানান, তার এই ফুল ব্যবসায় নিজে ছাড়াও ছেলে ও স্বামীকে নিয়ে সামলাচ্ছেন তিনি, আরো আছে তিন-চারজন কর্মচারী। আর দোকানে শোভা পাচ্ছে গোলাপ, রজনীগন্ধা, জারবেরা, জিপসী, গডিওলাস, চেরী, বেলী, গাঁদাসহ রকমারী ফুলের ডালার সমাহার। দিবস উপলক্ষে অন্য সময়ের চেয়ে এখন ব্যবসায় কয়েক গুণ বেশী বলে জানালেন অপর ফুল ব্যবসায়ী শাহাদত হোসেন।

ফুল ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপচারিতায় জানা গেল, দিনে প্রত্যেকের বিক্রি ২০ হাজার টাকার কম না। তিন-চারজন কর্মচারীর সহযোগিতায় তাঁরা ব্যবসায় পরিচালনা করছেন। সব ব্যবসায়ীর পরিবারের ভরন-পোষণ চলছে এই একটিমাত্র ব্যবসায়কে উপলক্ষ করে।


ফুলের দোকানে রাজশাহী সরকারী সিটি কলেজের বাংলা বিভাগের বিনয় জানান, বাড়ীতে পূজার ফুল সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ফুল কিনছি, নিয়মিতই কিনি, আজকেও একুশে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে একটি ফুলের ডালা কিনেছি।
একজন সফল ফুল ব্যবসায়ী শফিক বলেন, আগে বাড়ী থেকে ফুল বা তোড়া বিক্রি করতাম, এখন বিভিন্ন অর্ডারে ফুলের সামগ্রী বিক্রি করি, সাজসজ্জার কাজ করি।
রাজশাহীতে বিভিন্ন উপলক্ষ্যে অসংখ্য ক্রেতা তৈরী হয়েছে। ব্যবসায়ের সমস্যা সম্পর্কে তিনি বলেন, অনেক দূর-যশোর থেকে ফুল আনতে হয়। কাঁচা ফুল তিন দিনের বেশী ভালো থাকে না। তাই অনেক লোকসানের সম্ভাবনা থাকে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button