বাঘারাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

বাঘায় ১৫ লক্ষ টাকার সরকারি জলাশয় ৪ লক্ষ টাকায় লিজ

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘায় ১৫ লক্ষ টাকার সরকারি জলাশয় মাত্র ৪ লক্ষ টাকায় লিজ প্রদান করার অভিযোগ উঠেছে। ৪ টি পুকুর লিজের জন্য ৪৯ জন দরপত্র ক্রয় করলেও জমা দেন মাত্র ৫ জন।

এরমধ্যে সর্বচ্চ দরদাতা সিহাবে আব্দুল হান্নান কে ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকায় পুকুর লিজ দেন কতৃপক্ষ। পরে ১১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা মুল্য ধরে ৭ লক্ষ ১০ হাজার টাকা ভাগা-ভাগি করেন ঠিকাদারগণ। বুধবার (০৪-১২-১৯) দুপুরে উপজেলার মীরগঞ্জ রেশম বীজাগারে এ ঘটনা ঘটে।

মীরগঞ্জ রেশম বীজাগারের ব্যবস্থাপক আব্দুল জলিল জানান, গত মাসের শেষ সপ্তাহে উপজেলার মীরগঞ্জ রেশম বীজাগারে অবস্থিত ১০ বিঘা পরিমানের চারটি পুকুর ৩ বছরের জন্য লিজ দেয়ার বিজ্ঞপ্তি ঝুলিয়ে দেয়া হয় বাঘা উপজেলা পরিষদ, দু’টি পৌর সভা ও ৭ টি ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের সোটিশ বোর্ডে। সেখানে উল্লেখ করা হয়, সর্বচ্চ দরদাতাকে পুকুর লিজ প্রদান করা হবে। সেই আলোকে ৪৯ জন ঠিকাদার ২ হাজার টাকা করে দরপত্র ক্রয় করেন।

কিন্তু ব্যাংক ড্রাপ(বিডি)জমাদেন মাত্র ৫ জন। এদের মধ্যে আব্দুল হান্নান নামে স্থানীয় একজন ঠিকাদারকে সর্বচ্চ দরদাতা হিসাবে ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকায় বুধবার দুপুরে পুকুর লিজ প্রদান করা হয়। স্থানীয় জামাল উদ্দিন, জোবাইদুল ও হানিফ সহ অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, চারটি পুকুর লিজের জন্য কর্তৃপক্ষের যোগ সাজসে ফজলুল হক নামে একজন ঠিকাদার সকল দরপত্র ক্রয়কারীদের নাম ও বোবাইল নম্বর সংগ্রক করে তাদের সাথে (নিকুজিশান) চুক্তি করে।

ফলে ১৫ লক্ষ টাকা মুল্যের ৪ টি পুকুরের সর্বচ্চ দরপত্র জমা পড়ে মাত্র ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকা। সর্বশেষ বুধবার দুপুরে এ লিজ চুড়ান্ত হওয়ার পর বিকেলে ৪৯ জন ঠিকাদার অতিরিক্ত ৭ লক্ষ ১০ হাজার টাকা ভাগ-বাটোরা করেনেন। তবে এ কথা অকপটে অস্বীকার করেন ঠিকাদার ফজলুল হক। তিনি বলেন, যারা সিডিউল ক্রয় করেছে তারা প্রকৃত মাছ চাষী না। সবাই মিলে টাকা ভাগ খাবে আর একজনের উপর গড়াবে এ টা হতে পারে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন দরপত্র ক্রয়কারী জানান, তিন বছরের জন্য চারটি পুকুর ১৫ লক্ষ টাকায় এবার লিজ দেয়া সম্ভব ছিলো। কিন্তু বিগত তিন বছরে কালাম মোল্লা নামে স্থানীয় এক প্রভাবশালী কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে মাত্র ২ লক্ষা ১০ হাজার টাকায় সেই পুকুর আবাদ করেছেন।

বিগত ৪ মাস পুর্বে তিনি মৃত্যু বরণ করায় তারই প্রতিবেশী আরেক প্রভাবশালী ফজলুল হকের নেতৃত্বে ৪৯ জন ঠিকাদারের সাথে সমান্বয় করে এবার এই পুকুল লিজ দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেশম বোর্ড রাজশাহী অঞ্চলের উপ-পরিচালক সেলিম হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিধি মোতাবেক তিন বছরের জন্য ৪ টি পুকুর ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকায় লিজ দেয়া হয়েছে। তাহলে ৪৯ জন দরপত্র ক্রয় করার পর মাত্র ৫ জন (সিডিউল ড্রপ) জমা দিলেন কেন ? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button