রাজশাহীরাজশাহী সংবাদরাজশাহী সংবাদ

বাঘায় ভেজাল গুড় ধ্বংশ ও জেল-জরিমানা।

কারখানায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটসহ র‌্যাব-৫ বিশেষ অভিযান চালিয়েছেন

বাঘা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী শাহাপুর, চকসিংগা, দিয়াড়পাড়া, উত্তর পাঁচপাড়া গ্রামে আবারও ভেজাল গুড় তৈরীর কারখানায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটসহ র‌্যাব-৫ বিশেষ অভিযান চালিয়েছেন। এঘটনায় আটটি কারখানায় দুই লক্ষ ১২ হাজার ২০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি দুই হাজার ৮১০ কেজি ভেজাল গুড়সহ তৈরীর উপকরন ধ্বংশ করা হয়েছে। যার মূল্য ৫০ টাকা কেজি হিসেবে নির্নয় করা হয়েছে এক লক্ষ ৪১ হাজার টাকা।
জানা যায়, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নিলুফা ইয়াসমিনসহ র‌্যাব-৫ এর মেজর জামান , ফ্লাইট ল্যাপ্টেনেট মোহাম্মদ মনির একটি দল বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন। নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও র‌্যাব-৫ গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার আড়ানী শাহাপুর, চকসিংগা, দিয়াড়পাড়া, উত্তর পাঁচপড়াা গ্রামের শরিফুল ইসলামের ২০ হাজার, ঝর্না বেগমের ১০ হাজার, জুয়েল আলীর ৫০ হাজার, ফিরোজ হোসেনের ৫০ হাজার, সাহার আলীর ১০ হাজার, মিঠন আলীর ১০ হাজার, মোস্তফা হোসেনের ২০ হাজার, মামুন হোসেনের ২৫ হাজার জরিমানা করেন। পাশাপাশি দুই হাজার ৮১০ কেজি ভেজার গুড়সহ তৈরীর উপকরন ধ্বংশ করা হয়েছে। যার মূল্য ৫০ টাকা কেজি হিসেবে নির্নয় করা হয়েছে এক লক্ষ ৪১ হাজার টাকা। ওই সময় ভেজার গুড়সহ তৈরীর উপকরন উদ্ধার করে ধ্বংশ করা হয়েছে। তাদের দুই মাস থেকে চার মাসের জেল অনাদায়ে দুই লক্ষ ১২ হাজার টাকা ২০ জরিমানা করা হয়েছে। তারা সুমুদয় টাকা জরিমানা দেয়ায় জেল থেকে মুক্তি পেয়েছে বলে জানা গেছে। উল্লেখ্য মৌসুমের শেষ সময়েও অবাধে অসাধু ব্যবসায়ী অধিক মুনাফা লাভের আশায় চিনি, চুন, ফিটকিরি, হাইড্রোজ ও কেমিক্যাল মিশিয়ে ভেজাল গুড় তৈরি করে উপজেলার হাট-বাজারে বিক্রি করছে। সেই সাথে গুড়ের রং উজ্জ্বল করতে মেশানো হচ্ছে বিষাক্ত কেমিক্যাল। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভেজার উপকরন দিয়ে এক কেজি গুড় তৈরী করতে খরচ হেেচ্ছ ২০ থেকে ২২ টাকা। পক্ষান্তরে এক কোজি গুড়ের দাম ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। সে কারনে ওই সকল ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় ভেজাল উপকরন মিশিয়ে গুড় তৈরি করেন। এসব ভেজাল গুড় কিনে ক্রেতারা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন। দিন দিন গুড়ের প্রকৃত মান কমে যাচ্ছে। একশ্রেণীর অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা এ কাজে জড়িত। এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, যেসব ব্যাপারি বা ব্যবসায়ী গুড় ক্রয় করেন, তাদের পরামর্শ ও উৎসাহে তারা গুড়ে ভেজাল মেশান। সাম্প্রতিক সময়ে গুড়ে ভেজাল সামগ্রী মেশানোর ঘটনা আরো বেড়েছে। তারা জানান, দাম বেশি পাওয়ার আশায় গুড়ে ওই সকল উপকরন মেশানো হচ্ছে। কারণ গুড়ের চেয়ে ওই সকল উপকরনের দাম কম। ফলে লোভ সামলাতে না পেরে গুড় তৈরির সাথে সম্পৃক্ত একশ্রেণীর ব্যবসায়ীরা গুড়ে ভেজাল দিচ্ছেন। ব্যাপারিরা যে ধরনের গুড় পছন্দ করেন, সে দিক খেয়াল রেখেই গুড় তৈরি করেন সংশ্লিষ্টরা। গুড় তৈরিতে তাদের কিছু পরামর্শও থাকে। বাইরের ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে ও ভালো দাম পেতে ব্যাপারিদের পরামর্শে গুড়ে ভেজাল মেশানো হয়ে থাকে বলে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছেন। আড়ানীর গুড় ব্যবসায়ী ও উৎপাদনকারীরা ভেজাল মেশানোর সত্যতা স্বীকার করে জানান, গুড়ে চিনি মেশালে রঙ ও স্বাদের কোনো পরিবর্তন হচ্ছে না। এর সাথে যোগ হচ্ছে চুন, ফিটকারি ও হাইড্রোজ। একই এলাকার অপর একজন গুড় ব্যবসায়ী জানান, বর্তমানে দ্রব্যমূলের বাজারে এক কেজি গুড় বিক্রি করে যদি এক কেজি মাছ কেনা না যায়, তাহলে সরকারের উচিত মাছ-গোশতসহ বিভিন্ন রকম তরিতরকারির দাম কমানো। তাহলে যারা এভাবে গুড় তৈরি করছেন, তারা আগামীতে আর করবেন না।
সিভিল সার্জন ডাক্তার আবদুস সুহান জানান, গুড়ের মান ঠিক রাখতে হলে কর্তৃপীয় তদারকি ও সচেতনতার বিকল্প নেই। এটি করা সম্ভব হলে গুড়ে ভেজাল মেশানো বন্ধ হতে পারে। তবে ভেজাল গুড় খেলে ক্যানসার, কিডনি ড্যামেজ হয়ে যায়। এছাড়া ভেজাল গুড় মানবদেহের জন্য ব্যাপক ক্ষতি করে।
উল্লেখ্য গত ২৬ এপ্রিল নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নিলুফা ইয়াসমিন ও র‌্যাব-৫ আড়ানী এলাকার মুক্তার হোসেন, রানা হোসেন, রায়হান আলী, সাহাবুল হোসেনেরসহ চারটি গুড় তৈরীর কারখানায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন। ওই সময় ভেজার গুড়সহ তৈরীর উপকরন উদ্ধার করে ধ্বংশ করা হয়েছে। তবে তাদের দুই মাস থেকে চার মাসের জেল অনাদায়ে ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তারা সুমুদয় টাকা জরিমানা দেয়ায় জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button