দূর্গাপুররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুরে চলছে পাল্লা দিয়ে অবৈধ পুকুর খনন-সংশ্লীষ্ট মহল নিরব

স্টাফ রিপোর্টার দুর্গাপুরঃ

দুর্গাপুর পৌর মেয়র পদ প্রার্থীর ছেলের বিরুদ্ধে অবৈধ পুকুর খননের অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, দুর্গাপুর উপজেলার চৌবাড়িয়া বিলে অবৈধ পুকুর খনন করছেন তিনি।

দুর্গাপুর পৌরসভার মেয়র পদ প্রার্থী মোঃ আব্দুল ফিরোজ মান্নান এর ছেলে রাসেল, মিঠুন ও টুটুলের সহযোগিতায় ৩ ফসলি জমিতে অবৈধ পুকুর খনন করছেন কতিপয় ব্যক্তি। আর এই সব পুকুরের মাটি টাকটারে করে গ্রামীন কাঁচা পাকা রাস্তা নষ্ট করে এলাকার লোক জনের কাছে বিক্রি করছেন।

বর্তমানেে একই জায়গায় পাশাপাশি ২ টা ৩০ বিঘার অবৈধ পুকুর খনন করছেন। সেখানে অবৈধ পুকুর খননের ভেকু সরবরাহ করছেন, ঢাকা থেকে আগত সেই ভেকুর নাম করা দালাল সলিম। অপর দিকে দুর্গাপুর উপজেলার পুরান তাহেরপুর মাজেদ ও মেন্দিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নাজিম ভিটা জমির খেজুরের গাছ, পানের বরজ কর্তন করে করছে অবৈধ পুকুর খননের কাজ। অবৈধ পুকুর খনন বিষয়ে মাজেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুর্গাপুর ভূমি অফিসে চাকরি করেন মুনজুর ভাই আমাকে পুকুর খননের অনুমতি দিয়েছেন। তার কথাতেই আমি পুকুর খনন করছি।

অপর দিকে, এখনো অবৈধ পুকুর খনন বন্ধ করেনি দুর্গাপুর মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি কে হুমকি দাতা সেই ভেকু দালাল মোশারফ সে প্রকাশে দিনে রাতে তেবিলা উচ্চ বিদ্যালয়ের দক্ষিন পার্শের বিলে ৩ ফসলি জমিতে তেবিলা গ্রামের জাহাঙ্গীর মাস্টারের ২৫ বিঘা অবৈধ পুকুর খনন করছেন। সেখানেও ভেকু সরবরাহ করছেন, দালাল মোশারফ, কৃষ্ণমত তেকাটিয়ার আনছার ভিটিবির রেজাউল করিম অবৈধ পুকুর খনন করছেন, ৩০ বিঘা। সেখানে ভেকু সরবরাহ করছেন চট্টগ্রাম থেকে আসা ভেকু দালাল মোশারফ।

 সরে জমিনে দেখা যায় তেবিলার সৌরভ অবৈধ পুকুর খনন করছেন ৩০ বিঘা। সেখানেও ভেকু সরবরাহ করছেন, ভেকু দালাল মোশারফ। অপর দিকে , কৃষ্ণমত তেকাটিয়ার আকরাম আলীর ছেলে জিয়া অবৈধ পুকুর খনন করছেন ২০ বিঘা। সেখানে ৩ ফসলি জমিতে ভেকু দালাল মোশারফের অলৌকিক ক্ষমতার দাপটে অবৈধ পুকুর খনন করছেন।

উল্লেখ যে, গত ১০ তারিখে অবৈধ পুকুর খননের তথ্য সংগ্রহের জন্য দুর্গাপুর উপজেলার তেবিলা গ্রামে গেলে সেখানে অবৈধ পুকুর খননকারী ভেকু দালাল মোশারফ, রেজাউল করিম, জিয়া, জাহাঙ্গীর আলম ও অজ্ঞাত ৬/৭ মিলে সাংবাদিকদের কে  প্রান্নাশের হুমকি প্রদান করেন।

 এরই প্রেক্ষিতে দুর্গাপুর মডেল প্রেসক্লাবের সভাপতি বাদী হয়ে দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও দুর্গাপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ দায়ের করার ৫ দিন অতিবাহিত হয়ে গেল ও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেন নাই সংশ্লীষ্ট কেউ।এই  ব্যাপারে দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ হাসমত আলীর সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন, তদন্ত করছি  প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button