রাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

তানোরে ভুয়া কবিরাজের রাজবাড়ি; এলাকায় চমক সৃষ্টি

তানোরে ভুয়া কবিরাজের রাজবাড়ি; এলাকায় চমক সৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর
তানোর উপজেলার চান্দুরিয়া গ্রাম এখন কবিরাজের গোয়াল ঘরে পরিনত হয়েছে হাত বাড়ালেই বিখ্যাত কবিরাজ। বিশেষ করে জার্জিস কবিরাজ ও কালাম কবিরাজের আসন হিসেবে এরই মধ্যে আলোচিত হয়েছে গ্রামটি। জেলার বাইরে থেকে আসা একাধিক রুগীর সাথে প্রতারনা করেছে কবিরাজ জার্জিজ ও কালাম এমন তথ্যের অনুসন্ধানে সরে জমিনে গেলে জার্জিজ কবিরাজের কলেজ পড়ুয়া ছেলে মিডিয়া কর্মীদের দেখে তানোর থানার জৈনক পুলিশ কর্মকর্তার সাথে মুঠো ফোনে কথা বলার জন্য ফোন ধরিয়ে দিতে আসে, তার সাথে কথা না বললে কিছুক্ষনের মধ্যেই হাতের মধ্যে কিছু টাকা দিতে এগিয়ে আসে কবিরাজের ছেলে। এই বাড়ি কার ? তৈরিতে কত টাকা ব্যায় হয়েছে জানতে চাইলে কবিরাজ জার্জিজ কোন উত্তর না দিয়ে তার পুরাতন মাটির ঘরে চলে যায়। তার ছেলে জানান, আমাদের বাড়ি, দয়া করে আপনারা এইটা লিখেন না, আপনাদের সকল কেই তো দেখি।
চিকিৎসা নিতে আসা কাটাখালির পাক ইসলাম পুরের জামাল জানান, আমার মায়ের হাড়ের সমস্যার জন্য এসেছিলাম তিনি চার হাজার টাকা নিয়েছে কোন উন্নতি হয়নি। চান্দুরিয়ার মকবুল হোসেন দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আমার এলাকার সংসদ সদস্যের এমন বাড়ি আছে কি না সন্দেহ, কিভাবে প্রতারনার মাধ্যমে এত সম্পদের ও তাজ মহলের মত বাড়ির মালিক হলেন সেটি খতিয়ে দেখার বিষয়। চান্দুরিয়া গ্রামের আরেক কবিরাজের বস কালামের বাড়ি যেতেই মিডিয়ার গাড়ি দেখে কালো মোটা এক ব্যক্তি এসে বলেন আপনাদের পরিচয়? পরিচয় দিতেই ফোন হাতে বেরিয়ে আসেন কালাম কবিরাজ তিনিও এসেই বলেন কথা বলেন, কার সাথে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বললেই বুঝবেন ফোন ধরতেই তিনি বলেন আমি তানোর বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির নেতা, তিনি রাজশাহী তানোরের একাধিক মিডিয়া কর্মীর নাম করে বলেন, এরা আমার কাছের। আপনারা কেন এসেছেন, উনি ভালো কবিরাজ। কালাম কবিরাজের বৈঠক খানায় প্রায় দুই ডজন অপেক্ষাকৃত রুগীর একজন নাচোলের অামিনুল বলেন, এবার দিয়ে তিনবার এলাম এই কবিরাজের কাছে , তিনি অারো বলেন
বিভিন্ন অজুহাতে আমার নিকট ১৩ হাজার টাকা নিয়েছে এই ভন্ড কবিরাজি এবার এসছি শেষ বোঝার জন্য। এ বিষয়ে জানতে চেয়ে তানোর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট মুঠো ফোনে ফোন করলে তিনি বলেন, এই ধরনের কোন অভিযোগ এখনো পাইনি। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি ।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button