রাজশাহীরাজশাহী সংবাদসংবাদ সারাদেশ

ডোপ পরিক্ষায় আরো একধাপ এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনায় বাংলাদেশ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

যখন নানা ধরনের মাদক ছড়িয়ে ছিটিয়ে দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চল গুলো পর্যন্ত ধাক্কা দিয়েছে তখন শহরের কথা বলতে আর বাঁকি থাকেনা। কিছু চিহ্নিত স্থানে মাদকের অলিখিত হাট পর্যন্ত বসছে। সেই হাটের খরিদ্দার কোটপ্যান্ট লাগানো স্যারেরা। আবার একই হাটে ভিড় করছেন ফেরারি অপরাধীরা। আসলে মাদকের ফাঁদে নাম দিলে অপরাধী আর স্যারদের মধ্যে তেমন ব্যবধান থাকেনা।

একটি গবেষক দল বলছেন বাংলাদেশে সরকারি চাকরি জীবিদের ক্ষেত্রে মাদকের বিষয়ে নির্ধারিত কোন পরিক্ষা নিরিক্ষা বাধ্যতা মুলক নিয়ম না থাকায় এর প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে সিমান্ত এলাকার শহরে যে সকল প্রশাসনিক কর্মকর্তারা নিয়োজিত রয়েছেন তাদের ভেতরেই এর তীব্রতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

একটি সুত্র বলছে মাদক নির্মুলের ক্ষেত্রে  সরকারের শতভাগ ইচ্ছে প্রচেষ্টা থাকলেও নিচের অসাধু ব্যক্তিদের কারণে দুর্বল হয়ে পড়ছে প্রক্রিয়া। দীর্ঘ অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে মাদকের সাথে সরকারি কর্মকর্তাদের গভীর সম্পর্কের আভাষ। বিশেষ করে পুলিশ বাহীনি ও বিজিবি  সদস্যদের এই জগতে বেশির ভাগ আনা গোনা। একটি সমিক্ষায় এসেছে ১৬ থেকে ২৫ বছরে পা রাখা সন্তানদের ৮০ ভাগ কোন না কোন নেশায় আসক্ত। এই ৮০ ভাগের ৫০ ভাগ সর্বনিম্ন ধুমপায়ী। এই আসক্ত অবস্থা থেকেই বিভিন্ন মামা খালুর লাল নীল ফোন অথবা মোটা অংকের অর্থের দেনদরবার করে চাকরি নিচ্ছেন প্রশাসনে।

চাকরির পুর্বে কোন স্বাস্থ্য পরিক্ষায় আটকে গেলে সেখানেও করেন তদবির। সুত্রটি বলছেন এরা চাকরিতে প্রবেশ করেই হয়ে উঠেন বেপরোয়া। এদের ভেতরে এমন  বুদ্ধি কাজ করে সরকারি চাকরি পেতে যত কষ্ট- হারানো  তার চেয়ে বড় কঠিন। এমন চিন্তা নিয়ে মাদক অধ্যষিত এলাকায়  দুই একজন মাদক আসক্ত অথবা ব্যবসায়ি নেতাদের সাথে তাদের গড়ে উঠে গভীর সখ্যতা। এমন কি মাদক ব্যবসায়িদের সুবিধার ক্ষেত্রে এই সকল পুলিশ সদস্যদের  রদবদল করে থাকেন সেই সকল মাদক ব্যবসায়িরা।

পুলিশের একটি সুত্র বলছে মাদকের   সাথে পুলিশের সম্পর্কের যে অভিযোগ রয়েছে সেটি নির্মুল করা সম্ভব নয়- সুত্রটি বলেন এটি কমিয়ে আনা সম্ভব ।আর এর জন্য সর্ব প্রথম প্রয়োজন ডোপ পরিক্ষার মাধ্যমে পুলিশের সকল পদে লোক নিয়োগ করা । যে নিয়োগের  স্বাস্থ্য পরিক্ষাতেও থাকবেনা কোন ঘাপলা বাজি।

এ ছাড়াও প্রতি মাসে পুলিশের সকল পদের সদস্যদের ডোপ পরিক্ষা করাতে হবে। সেই পরিক্ষা কোন দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দিয়ে করানো যাবেনা। ক্লিন ইমেজের পুলিশ কর্মকর্তাদের দিয়ে এই সকল পরিক্ষা সম্পন্ন করাতে হবে। বিজিবির ক্ষেত্রেও একই কৌশল অবলম্বন করাতে হবে। সিমান্তবর্তী এলাকায় যে সকল সদস্য নিয়োজিত থাকবে তাদের মুঠোফোন রিতিমত নজরদারি করাতে হবে। অচমকা তাদের ডোপ পরিক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। আবার ছুটি থেকে কর্মস্থলে ফিরলে ডোপ পরিক্ষার মাধ্যমে তাদের কর্মস্থলে যোগদান করাতে হবে।

প্রশাসনের সকল সদস্যদের উপর কঠোর নজরদারি করতে হবে যে সকল নজরদারির দায়িত্বে থাকবেন ক্লিন ইমেজের প্রশাসনের সদস্যরা। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি সুত্র বলছে ভয়ংকর মাদকের থাবা থেকে প্রশাসনকে ফেরাতে পারলেই প্রধানমন্ত্রীর মাদক নির্মুলের প্রতিশ্রুতি বাস্তবে রুপ নিবে। অপরাধ নির্মুলের দায়িত্বে যারা কাজ করেন তারাই যদি অপরাধের সাথে জড়িয়ে যায় তাহলে কখনোই অপরাধ নির্মুল করা সম্ভব নয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button