বাগমারারাজশাহী

এমপি এনামুলের প্রচেষ্টায় নৌকার মাঝি হলেন মালেক মন্ডল

বাগমারা প্রতিনিধিঃ

গতকাল শনিবার রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে আর এই নির্বাচনে নৌকার মাঝি হয়েছেন প্রবিন ব্যক্তিত্ব আব্দুল মালেক মন্ডল।সকাল থেকেই উৎসব মূখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে  বিকেল ৪ টা পর্যন্ত বিপুল পরিমান ভোটারদের  উপস্থিতিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

কনকনে শীত আর ঘন কুয়াশাকে উপক্ষো করে ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন পুরুষ ও নারী ভোটারগন। ভোটররা কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সম্পন্ন হয়েছে এই  নির্বাচন। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডেই ব্যাপক হারে নারী এবং পুরুষ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হাজির হয়েছিলেন। স্থানিয় সুত্র মতে তারা ভোট ও দিয়েছেন সঠিক ভাবে। তবে এর জন্য ভবানিগঞ্জ বাসি পুরো কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন রাজশাহীর ৪ আসনের এম পি ও দেশের বিশিষ্ট সমাজ সেবক ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের প্রতি। সরে জমিনে সাংবাদিকদের সামনে একাধিক ব্যক্তি বলেন নৌকা প্রতিক কে ভালোবেসে ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক সকল নেতা কর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছিলেন নৌকাকে জয়ী করতে।নির্দেশনা দিয়ে তিনি কনকনে শীতে সাধারন মানুষের মাঝে ছুটেছেন সরকার দলীয় নির্দেশনা উজ্জ্বল রাখতে।

কোন ব্যক্তি যেন ভোট কেন্দ্রে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে না পারে সে বিষয়ে ও  আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রতি কঠোর নির্দেশনা দিয়েছিলেন তিনি। সকল শ্রেনির মানুষ যেন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে সেই বিষয়েও তারই নির্দেশনা ছিল।

এই নির্বাচনে বিপুল ভোটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, ভবানীগঞ্জ পৌরসভা আ’লীগের সভাপতি মেয়র আব্দুল মালেক মন্ডল বিজয়ী হয়েছেন এই সংবাদ পেয়েই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক এম পি গামছা কোমরে বেধে উল্লাসে নেমে পড়েছে অনেকেই বলছেন এত সাদা সিদে এম পি বাগমারা বাসির জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে।

নৌকা প্রতীক  ৭ হাজার ৩ শত ১৬ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে দ্বিতীয় বারের মতো নির্বাচিত হন তিনি।
তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী এস.এম. মামুনুর রশিদ জগ প্রতীকে ২ হাজার ৭শত ৫৭ ভোট। অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী সাবেক ময়ের আব্দুর রাজ্জাক প্রামানিক ধানের শীষ প্রতিকে পেয়েছেন ১ হাজার ৮২ ভোট এবং স্বতন্ত্র আরেক প্রার্থী নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন মাত্র ১৭ ভোট।

অপর দিকে ভবানীগঞ্জ পৌরসভার তিনটি ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে জয়লাভ করেছেন  ১,২ এবং ৩ নং ওয়ার্ডে রোনা বিবি অটোরিক্সা প্রতীকে পেয়েছেন ৯৬৯ ভোট। ৪,৫ এবং ৬ নং ওয়ার্ডে চশমা প্রতীকে শাহানারা খাতুন পেয়েছেন ১৬৫ ভোট এবং ৭,৮ এবং ৯ নং ওয়ার্ডে চশমা প্রতীকে আনোয়ারা বিবি ২১৪৬ ভোট পেয়ে তারাওনির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়াও সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে ১ নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে ৭৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ২ নং ওয়ার্ডে সেলিম রেজা পাঞ্জাবী প্রতীকে ৬২৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন , ৩ নং ওয়ার্ডে আহাদ আলী প্রামানিক পাঞ্জাবী প্রতীকে ৪৮৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৪ নং ওয়ার্ডে দোলাহার হোসেন উটপাখি প্রতীকে ৪১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৫ নং ওয়ার্ডে হাসান আলী পানির বোতল প্রতীকে ৭৭৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৬ নং ওয়ার্ডে আব্দুল হান্নান ডালিম প্রতীকে ৫৮৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৭ নং ওয়ার্ডে ফয়েজ উদ্দীন মন্ডল উটপাখি প্রতীকে ৫৮০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৮ নং ওয়ার্ডে আব্দুল মজিদ উটপাখি প্রতীকে ৬৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন এবং ৯ নং ওয়ার্ডে আলমগীর হোসেন উটপাখি প্রতীকে ৪৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

সেই সাথে পৌরসভার ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে পলিনা খাতুন চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৯৬৪ ভোট, জবা প্রতীকে নারগিস বিবি পেয়েছেন ৭৫৯ ভোট, আনারস প্রতীকে আক্তারুন বিবি পেয়েছেন ৫১৬ ভোট এবং বলপেন প্রতীকে বিউটি খাতুন পেয়েছেন ২৫৯ ভোট।

৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডে বলপেন প্রতীকে ছামেনা বেগম পেয়েছেন ১১২৯ ভোট, আনারস প্রতীকে হিরা খাতুন পেয়েছেন ৪৯৮ ভোট, অটোরিক্সা প্রতীকে ফাইমা বেগম পেয়েছেন ১৪২ ভোট এবং ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে আনারস প্রতীকে রাবেয়া বেগম পেয়েছেন ৭৮১ ভোট, জবা ফুল প্রতীকে জহুরা বেগম পেয়েছেন ৬৫৩ ভোট এবং অটোরিক্সা প্রতীকে জরিনা বিবি পেয়েছেন ২২২ ভোট। সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১ নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে সদও উদ্দীন মৃধা পেয়েছেন ৪৬৫ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে আফজাল হোসেন পেয়েছেন ২২ ভোট, ২নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে ইসমাইল হোসেন পেয়েছেন ৫২১ ভোট, ৩ নং ওয়ার্ডে পানির বোতল প্রতীকে মামুনুর রশিদ পেয়েছেন ২৯৬ ভোট, ডালিম প্রতীকে আবু সাইদ পেয়েছেন ২৬২ ভোট এবং উটপাখি প্রতীকে আইনুল হক পেয়েছেন ২৪৮ ভোট, ৪ নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ৩৯৪ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে মুন্টু পেয়েছেন ২৪৬ ভোট, ৫নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে আশরাফুল ইসলাম পেয়েছেন ২৫২ ভোট, ৬নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে মাইনুল ইসলাম পেয়েছেন ৩০৯ ভোট, পাঞ্জাবী প্রতীকে আনিছুর রহমান পেয়েছেন ২১২ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে আব্দুর রহিম পেয়েছেন ২০৬ ভোট, ৭নং ওয়ার্ডে পানির বোতল প্রতীকে আবু বাক্কার সিদ্দিক পেয়েছেন ৩৯৫ ভোট, ডালিম প্রতীকে জান বক্স পেয়েছেন ৩২৮ ভোট এবং পাঞ্জাবী প্রতীকে মতিউর রহমান পেয়েছেন ২৮ ভোট, ৮নং ওয়ার্ডে টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে জিল্লুর রহমান পেয়েছেন ৪৬৩ ভোট, ডালিম প্রতীকে আমজাদ হোসেন পেয়েছেন ৮৩ ভোট এবং পাঞ্জাবী প্রতীকে এরশাদুল ইসলাম পেয়েছেন ২৫ ভোট, ৯নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে শহিদুল ইসলাম পেয়েছেন ৩৮০ ভোট, ডালিম প্রতীকে আমানুতুল্লাহ পেয়েছেন ৩৭০ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে ওমর আলী মোল্লা পেয়েছেন ১০৯ ভোট। ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় চলতি বছর মোট ভোট গ্রহন হয়েছে ১১ হাজর ২ শ ৮৯ভোট। রাজশাহীর বাগমারা কে বিন্ন ভাবেই দেখছেন দলের কেন্দ্রীয় নেতারা, একটি সুত্র বলছে রাজশাহীতে এখনো বাগমারা ৪ আসনের এম পি দলের ক্লিন ইমেজ হিসাবে নজরে রয়েছেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button