চারঘাটদূর্গাপুরপুঠিয়াবাগমারামোহনপুররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

অবশেষে দুর্গাপুরের সাংবাদিক পরিচয় দান কারী বুলবুল ও আবির গ্রেপ্তার

মোঃসোহাগ আলীঃ

রাজশাহীর দুর্গাপুরের সেই প্রতারক ভুয়া ডিবি সাংবাদিক পরিচয়দান কারি বুলবুল ও আবির প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব । মঙ্গলবার দুপুরে পুঠিয়া থানার বানেশ্বরে একটি ক্লিনিকে তাদের আটক করেন র‍্যাব সদস্যরা।

র‍্যাব জানায় দুর্গাপুর উপজেলার রৈপাড়া গ্রামের মৃত বেরাজের ছেলে বুলবুল ও দুর্গাপুর উপজেলায় শামপুর গ্রামের আক্কাসের ছেলে ফরিদ আহম্মেদ আবির দীর্ঘদিন ধরেই দুর্গাপুর উপজেলা সহ পুঠিয়া ও চারঘাট উপজেলায় অনলাইন সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অপকর্মকরে আসছিল। এরই ধারা বাহিকতায় দীর্ঘদিন বিভিন্ন সংস্থা তাদের অনুসন্ধান করে আসছিল। আজ ৮ জুন এই সিন্ডিকেটের সদস্য দুর্গাপুরের বহরম পুরের লতিফের ছেলে কুরবান ও শামপুরের পান চোর নামে পরিচিত মশিউর ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেলেও চিহ্নিত চাঁদাবাজ বুলবুল ও প্রতারক আবির র‍্যাবের জালে চাঁদা বাজির প্রমান সহ আটক হন। আটক কৃত বুলবুলের নামে আর এম পির বেলপুকুর থানায় ভুয়া ডিবি সাজার মামলা ও আইসিটি মামলা চলমান রয়েছে।

অপর আটককৃত ব্যক্তি ফরিদ আহম্মেদ আবিরের নামে ও আইসিটি মামলা চলমান রয়েছে। দুর্গাপুর থানা পুঠিয়া থানা ও চারঘাট থানা সুত্রে জানা গেছে এদের নামে বিভিন্ন থানায় অভিযোগ ও জিডি রয়েছে এরা রাজশাহীতে ভয়ংকর প্রতারক হিসেবে তালিকা ভুক্ত রয়েছে। আটক কৃত বুলবুলের নিকট থেকে অনিবন্ধিত রাজশাহীর খবর ২৪ ঘন্টা নামক একটি অনলাইনের কার্ড পাওয়া গেছে। আটক কৃত ফরিদ আহম্মেদ আবিরের নিকট থেকে নির্ভীক সংবাদ নামক একটি আবেদন বিহীন অনলাইনের কার্ড পাওয়া গেছে। গোপন সুত্রে জানা গেছে এই আবির বুলবুল সহ আরো দুই জনের গুরুতর অপরাধ উল্লেখ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ প্রশাসনের নিকট একটি অভিযোগ দিয়েছেন একজন গনমাধ্যম কর্মী ।

দুর্গাপুর পুঠিয়া ও চারঘাট এলাকায় এই প্রতারকদের গ্রেপ্তারের খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন জায়গায় মিস্টি বিতরণ শুরু হয়েছে। রাজশাহীর গনমাধ্যম কর্মীরা স্বস্তির নিস্বাস ফেলে বলেন এরা চাঁদা বাজির পাশাপাশি জামাত বি এন পির ক্যাডার হিসেবে কাজ করত। এরা ভুয়া অনলাইনে কাজ করার নামে উল্লেখিত অঞ্চল গুলো ত্রাসের রাজত্ব গড়ে তুলেছিল। তাদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসন বিশেষ করে র‍্যাব সদস্যদের ধন্যবাদ জানান রাজশাহীর সাংবাদিক সমাজ। রাজশাহী এই চিহ্নিত সদস্যরা গ্রেপ্তার হয়ার সাথে সাথেই এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে রাজশাহী মডেল প্রেসক্লাব।

মডেল প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আরিফ বলেন আমরা কোন ভাবেই এই সকল চাঁদা বাজদের ছাড় দেবনা। পত্রিকার নামে যারা অপকর্ম করবে তারা দেশের শত্রু। মডেল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি রাফিকুর রহমান বলেন এই সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন সাংবাদিকদের বদনাম করে আসছিল এদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনকে ধন্যবাদ। মডেল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক বলেন এরা দুইজন সাংবাদিক পরিচয়ে বিভিন্ন স্থানে মাদক সেবন করে থাকেন সেটির ও প্রমান রয়েছে। এদের গ্রেপ্তার করে পুরো সাংবাদিক সমাজ কে বদনামের হাত থেকে বাঁচিয়েছেন র‍্যাব সদস্যরা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button