রাজশাহী সংবাদ

রাবির ছাত্রী ধর্ষণ, আদালতে দুই আসামির স্বীকারোক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণের ঘটনার মূল আসামি মাহফুজুর রহমান শারুদ ও রাফসান বুধবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বর্তমানে তারা জেলহাজতে রয়েছেন।

এদিকে ধর্ষককে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কারসহ ছয় দফা দাবিতে ক্যাম্পাসে বিশাল মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ মানববন্ধন থেকে প্রধান আসামি শারুদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ যৌন নিপীড়ন সেলের কার্যকারিতা বৃদ্ধি, আইনের ফাঁক গলিয়ে যেন অপরাধী বের না হতে পারে, সে জন্য প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ, নারীবান্ধব ক্যাম্পাস তৈরী, বহিরাগতদের চলাচল নিয়ন্ত্রণ ও ক্যাম্পাসে মোটরসাইকেলের সর্বোচ্চ গতি ২০ কিলোমিটার করার দাবি জানানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মতিহার থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহমান জানান, আসামিরা আদালতে ধর্ষণ ও ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের সত্যতা স্বীকার করেছে। তারা ঘটনার আগের দিন নগরীর তালাইমারীর এলাকার এশটি রেস্টুরেন্টে বসে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও করে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনায় মাহফুজুর রহমানের সঙ্গে ছিল তারেক মাহমুদ জয়, জীবন, রাফসান ও প্লাবন তালুকদার। পরে আসামি বিশাল তাদের সাথে যুক্ত হয়। মাহফুজুর তার বন্ধুদের বলেছিল ওই ছাত্রী তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে। কিন্তু সে বিয়ে করতে চায় না। তাই তাকে (ছাত্রী) দূরে সরিয়ে দিতে ও তার পরিবার থেকে টাকা আদায় করতেই ধর্ষণ ও ভিডিও করার পরিকল্পনা করে।

ভিকটিমের পরিবার জানায়, মামলার প্রধান আসামি শারুদ ও রাফসানের পরিবার থেকে বারবার মামলা তুলে নিতে তাদের নানাভাবে চাপ দেয়া হচ্ছে। একইসঙ্গে বিভিন্ন প্রলোভনও দেখানো হচ্ছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার প্রধান আসামি মাহফুজুর শারুদের পরিবার থেকে ভিকটিমের পরিবারকে ফোনে হুমকি দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে কোনো অভিযোগ করেছেন কি-না? জানতে চাইলে ভিকটিমের পরিবার থেকে বলা হয়, ‘সে (ভিকটিম) হলের আবাসিকতার জন্য আবেদন করেছে। কিন্তু এখনও সিট পায়নি। ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থান করা সম্ভব নয় বলে ভিকটিম এখনো ক্যাম্পাসে ফিরতে পারেনি। ক্যাম্পাসে ফিরলেই তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনে শারুদের ছাত্রত্ব বাতিলের আবেদন করবেন।’

উল্লেখ্য, ২৪ জানুয়ারি রাবির অর্থনীতি বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহফুজুর শারুদ তার বান্ধবীকে (রাবি ছাত্রী) কাজলা সাঁকোপাড়ার মেসে বেড়ানোর কথা বলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। ওই ধর্ষণের দৃশ্য অপর আসামিরা মোবাইল ফোনে ভিডিও করে। পরে তারা ভুক্তভোগীর কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদাদাবি করে। টাকা না দিলে ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে ওই ছাত্রীকে ছেড়ে দেয়। ঘটনাটি পরিবারের কাছে প্রকাশ করলে ২৭ জানুয়ারি ভিকটিম ছয়জনকে আসামি করে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেন। পাঁচ আসামি গ্রেফতার হলেও বিশাল এখনো পলাতক।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button