রাজশাহী সংবাদ

রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের সম্মেলনে তৃণমূলের দাবি নির্বাচনে হোক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামিকাল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। রাজশাহীর মাদরাসা মাঠে অনুষ্ঠিত হবে উত্তরের গুরুত্বপূর্ণ এ ইউনিটের নেতৃত্ব নির্বাচনের কাজ। সামনের দিন দল চালাতে ৩৯৫ জন কাউন্সিলর তাদের নতুন নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করবে।

তৃণমূলের দাবি যেনো গোপন ভোটের মাধ্যমে তাদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার সুযোগ দেওয়া হয়। এদিকে সম্মেলন ঘিরে নতুন সাজে সেজেছে পুরো রাজশাহী। সম্মেলন স্থলের সাজ সজ্জা চলছে পুরোদমে। আর দীর্ঘ ৫ বছর পর এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝেও তৈরী হয়েছে উচ্ছাস ও উদ্দিপনা। আর তাতে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে নগর আওয়ামীলীগের রাজনীতি। তেমনি বিভিন্ন পদ পেতে ঘুম হারাম করে এতদিন কর্মীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন পদ পত্যাশীতরা। এখন তাদের চলছে শেষ সময়ের দৌড়ঝাঁপ। কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে তারা নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাংগঠনিক যোগাযোগ যেমন বাড়িয়েছেন, তেমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হয়ে উঠেছেন সক্রিয়। পদপ্রত্যাশীদের পোস্টার-ব্যানারের মাধ্যমে কেও কেও প্রার্থীতার বিষয়ে প্রচারনা চালাচ্ছে। প্রচার চালানো হচ্ছে সব ধরনের যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতেও। শেষ সময়ে এসেও প্রচারণায় কোন ঘাটতি রাখতে চাননা তারা।

কাউন্সিল ঘিরে শুরু হয়েছে নেতাকর্মীদের মাঝে নানা সমীকরণ। তবে শীর্ষ দুই পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে নানা সমীকরণ করছেন নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে ছোটাছুটি করছেন আটের অধিক নেতা। সভাপতি পদে বর্তমান সভাপতি রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের বিকল্প দেখছে না সর্ব সাধারন নেতাকর্মীরা। যদিও রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী ও আরডিএর সাবেক চেয়ারম্যান বজলার রহমান সহ সভাপতি প্রার্থী হিসেবে কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। কিন্তু তারা সরাসরি নিজে প্রার্থীতা গোষণা না করে কেন্দ্রের দিকে তাকিয়ে আছে বলে নেতা কর্মীদের একটি অংশ মনে করছে।

তবে নানা সমীকরণ চলছে সাধারণ সম্পাদক পদটি নিয়ে। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার পদটি ধরে রাখতে ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছেন। তিনি তৃণমূলকে গুরুত্ব দিয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তরুণ সমাজের প্রতিনিধিত্ব করা ডাবলু সরকার দীর্ঘ ৫ বছরে দলকে সময় দিয়ে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যেতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন। তাই তিনি এবারো আশাবাদি। এ পদে শক্তিশালী প্রার্থী রয়েছে রাজশাহী মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী ও আওয়ামীলীগের বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু। এছাড়াও প্রার্থী রয়েছে বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা ও নওশের আলী, যুগ্ম সম্পাদক নাইমুল হুদা রানা। তারা সবাই এই শীর্ষ এই পদ পেতে ব্যাপক তৎপর রয়েছেন। চালাচ্ছেন ব্যাপক প্রচারণা। মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বাদশা এর আগে মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ও এবার সাধারণ সম্পাদক পদটি পেতে ইতিমধ্যে দৌড়-ঝাপ শুরু করেছেন। সহ-সভাপতি নওশের আলী ও যোগাযোগ বাড়িয়েছেন নেতা কর্মীদের সাথে। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাঈমুল হুদা রানা ,বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদে থেকে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং দলের জন্য এখনো সরব রয়েছেন। তিনিও এবার সাধারণ সম্পাদক পদটি পেতে চান। সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু ও সাধারন সম্পাদক পদটি পেতে ছোটাছুটি করছেন। তিনি ব্যাপক প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি নগরীতে ছেয়ে ফেলেছেন পোষ্টার ও ফেষ্টুনে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক পিন্টু, রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান বাবুও এ পদটি পাওয়ার জন্য চালাছেন জোর প্রচারণা।

এছাড়াও এ পদটি পাওয়ার জন্য ব্যাপক প্রচারণা চালাছেন সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী। দীর্ঘ ৩৯ বছরের বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবন তার। রমজান আলী ১৯৮১ সালের পর থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে যুক্ত। তিনি ১৯৮৫ থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত নগরীর ২১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৭ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত মহানগর যুবলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০০৪ সালে প্রত্যক্ষ ভোটে সভাপতি নির্বাচিত হন ২০০৪ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন এর পর ২০১৬ বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় পুনরায় সভাপতি নির্বাচিত হন। এখন পর্যন্ত মহানগর যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনিও এবার সাধারন সম্পাদক পদটি পেতে মরিয়া।

এদিকে সম্মেলন সামনে রেখে বেশ কিছু তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে যানা গেছে, তাদের দাবি তারা নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চায়। তারা মনে করছে গোপন ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে পারলে নেতার কাছে তাদের মূল্যায়ন থাকবে। আর কর্মীর উপর তাদের থাকবে দায়বদ্ধতা। তবে তারা মনে করে কেন্দ্রীয়ভাবে যদি নেতার নাম ঘোষণা করা হয় তাহলে যেন ত্যাগি ও কর্মীবান্ধব কাউকে ঘোষণা দেওয়া হয়। তানা হলে সাধারন কর্মীদের মনোবল ভেঙ্গে যাবে। তাই তারা চাইছে তাদের হাতেই যেন থাকে নেতা নির্বাচনের দায়িত্ব।

এ বিষয়ে  তৃণমূলের কয়েকজন নেতার সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বিভিন্ন মন্তব্য করেন। রাজশাহী মহানগরের ১৪ নং ওয়ার্ড পশ্চিম আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও রাসিকের ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন আনার বলেন, আমরা চাই নবীন ও প্রবীনের সমন্নয়ে একটি পরিচ্ছন্ন কমিটি যারা আগামী দিনে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বিপন্ন সরকার বলেন, আমরা হাইব্রিট মুক্ত ও ত্যাগী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চাই। যারা দলকে সু-সংহত করতে পারবে ও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

১৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সৈয়দ মন্তাজ আহম্মেদ বলেন, আমাদের প্রাণের দাবি বর্তমান সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে পুনরাই দায়িত্ব দিয়ে রাজশাহী মহানগর আওয়ামীলীগকে আরো শক্তিশালি করা দরকার। তিনি বলেন, বর্তমান নেতৃত রাজশাহীতে আওয়ামীলীগের ঘাটি তৈরি করেছে। তাই তাদের বিকল্প নেই।

৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আশরাফ উদ্দিন খান বলেন, তৃনমূলকে গুরুত্ব দিতে হলে নতুন প্রজন্মের নেতা ডাবলু সরকারের বিকল্প নেই।
১৮ নং ওয়ার্ড দক্ষিন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মজিবর রহমান বলেন, কর্মীবান্ধব ত্যাগী নেতা নির্বাচন করতে হবে। যাতে প্রকৃত আওয়ামীলীগের কর্মীদের উপকার হয়।

রাজশাহী মহানগর সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও রাসিকের ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন বলেন, রাজশাহীতে লিটন ভায়ের বিকল্প নেই। আমরা চাই তার নেতৃত্বে একটি পরিচ্ছন্ন ও শক্তিশালি কমিটি হোক।

 

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button