দূর্গাপুররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

দুর্গাপুর থানার এ এস আইয়ের কান্ড- বদলির আদেশ পেয়েই সাংবাদিক কে ফোন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

অবশেষে রাজশাহীর দুর্গাপুর থানা পুলিশের সহ কারি উপ পরিদর্শক (এ এস আই শাহিন কে অনত্র বদলি করেছে প্রশাসনের উপর মহল। আর  নতুন কর্মস্থলে যোগদান করার আগে আজ বুধবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক কে মুঠো ফোনে ফোন করে প্রতিহিংসা মুলক কথায় জড়িয়ে পড়েন এ এস আই শাহিন। জানাগেছে এ এস আই শাহিন দুর্গাপুর থানায় যোগদান করার পর থেকেই বিভিন্ন অনিয়মে জড়িয়ে পড়ে।

উপজেলার অবৈধ পুকুর খনন থেকে শুরু করে থানায় নিজের দাপট ক্ষমতা নিয়েই তিনি বেশিরভাগ সময় ব্যস্ত থাকতেন। অভিযোগ রয়েছে শাহিন দুর্গাপুর উপজেলার একাধিক ব্যক্তিকে নিজের পুলিশি ক্ষমতার ভয়ভিতি দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতেন বিভিন্ন সময়। অভিযোগ রয়েছে শাহিনের সাথে কথা না বলে কোন পুকুর খনন কারি কোন ভাবেই পুকুর খনন করতে শাহস পেতেন না যদি কেউ কোন ভাবে শুরু করতেন তাহলে তার ভেকু মেশিনের চাবি চলেযেত শাহিনের হাতে। দুর্গাপুর উপজেলার নারায়ন পুরের একাধিক ব্যক্তি শাহিনের নামে অভিযোগ করে বলেন তিনি সরা সরি নগদ অর্থের লেনদেন করতেন।

থানার নাম কর। উপজেলার আংরার বিলের অনেকের অভিযোগ রয়েছে তার উপর। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি সুত্র বলেন আমরা পুলিশ হয়রানির ভয়ে বিষয় গুলো থানার ওসিকে বলিনি। সুত্রটি বলেন শাহিনের শাস্তি স্বরুপ বদলির খবর শুনে আমাদের এলাকায় মিস্টি বিতরন হয়েছে। তবে গোয়েন্দা সংস্থার একটি সুত্র বলছে শাহিন ছোটখাট মাদক ব্যবসায়িদের সাথেও গোপনে যোগাযোগ রাখতেন। শাহিনের অনিয়মের বিষয় নিয়ে পুলিশের উপর মহলেও খবর রয়েছে বলে জানান সুত্রটি।  মুঠো ফোনের মাধ্যমে শাহিনের সাথে অবৈধ লেনদেন হয়েছে এমন তথ্য রয়েছে গনমাধ্যম কর্মীদের নিকট। এত ঘটনার নায়ক হয়ে কিভাবে দুর্গাপুর থানায় এত দিন চাকরি করছিলেন তিনি সেই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সুশীল সমাজের নিকট। দুর্গাপুর থানার একটি সুত্র বলছে শাস্তি মুলক শাহিনের চট্রগ্রাম রেঞ্জে বদলি হলেও শাহিন বলছেন আমার খুটির জোরেই আমি বদলি নিয়েছি।

থানার সুত্রটি আরো বলেন তিনি থানায় চাকরি করলেও তার ভাবছিল ভিন্ন, সকল সময় নিজের খেয়াল খুশিমত করতেন সকল কাজ। কখনো বলতেন তার উপর মহল দিয়ে সে যখন তখন যা কিছু করার ক্ষমতা রাখেন। পুলিশের সিনিয়র অফিসারদের নামেও বদনাম করার সভাব রয়েছে এই শাহিনের। পূর্বে এমন ঘটনার কারনে পুলিশের খাতায় ভিন্ন ভাবে নাম ও রয়েছে তার।বেপরোয়া হয়ার কারনে শাস্তি মুলক পদক্ষেপ নেওয়ার ঘটনাও রয়েছে শাহিনের চাকরি জীবনে। শাহিনের বিষয়ে রাজশাহী জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন আমার নিকট একটি অভিযোগ এসেছিল তার বিষয়ে বিষটি আমি তেমন গুরুত্ব দেইনাই। কিন্তু পরে শুনছি সে আরো লাগামহীন হয়ে পড়েছে।তিনি বলেন আসলে পুলিশে চাকরি করতে এসে এমন বেপরোয়া হওয়া ব্যক্তিদের চট্রগ্রামে বদলি নয় তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করে চাকরি থেকে বিদায় দেওয়া উচিত। উল্লেখ্য থাকে যে শাহিনের অনিয়মের বিষয় নিয়ে সংবাদ চলমান অনলাইন পত্রিকা ও জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশ কন্ঠ পত্রিকায় একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এই ধরনের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
%d bloggers like this: