রাজনীতি

যে কারণে খােকাকে পছন্দ করতেন শেখ হাসিনা

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে যারা ঘনিষ্ঠ তারা সবাই জানেন যে তিনি সদ্য প্রয়াত বিএনপি নেতা সাদেক হােসেন খােকাকে আলাদা চোখে দেখতেন।

বিএনপির আর দশজন নেতার থেকে খােকাকে আলাদা রাখতেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। ২০০৯ সালে যখন তিনি দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পান তখন ঢাকা মহানগরীর মেয়র ছিলেন সাদেক হােসেন খােকা।

সে সময় নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল আওয়ামী লীগ। তখন আওয়ামী লীগ সরকারের পক্ষে মেয়র পদ থেকে খােকাকে সরিয়ে দেওয়া ছিল খুব স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী সেই কাজটি করেননি। বরং দুই বছর খােকাকে মেয়র পদে রেখেছিলেন তিনি।

জানা যায় যে, শুধু এই ঘটনা নয়, বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে বিভিন্ন পর্যায়ে বিএনপির কারও সঙ্গে কথা বলা অথবা যােগাযােগের ক্ষেত্রে খােকার সঙ্গেই প্রধানমন্ত্রীর আলাপ হতাে। খােকার প্রতি আওয়ামী লীগ সভাপতির কেন এই পক্ষপাত? অনুসন্ধানে দেখা যায় যে, এর পেছনে কয়েকটি কারণ ছিল।

প্রথম কারণ হলাে যে, ১৯৯১ সালে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পর খােকা গােপালগঞ্জের স্কুলগুলাের জন্য ক্রীড়া । সামগ্রী বরাদ্দ অনুমােদন করেছিলেন।

কিন্তু তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেই বরাদ্দ অনুমােদন বাতিল করে দেন। তখন খােকা বেগম জিয়ার সঙ্গে দেখা করে এর প্রতিবাদ করেছিলেন। খােকার প্রতিবাদের কারণে এই বরাদ্দ শেষ পর্যন্ত পুরােটা বাতিল না করে অর্ধেক দেওয়া হয়।

২০০১ এ বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা ঘটানো হয়। বিএনপির মধ্যে থেকে যারা এই গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন এবং তারেক জিয়ার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন খােকা।

জানা গেছে যে, ওই সময় খােকা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে যােগাযােগ করেছিলেন। গ্রেনেড হামলার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন। খােকা দলীয় ফোরামে সবসময় এই ঘটনার জন্য তারেককে দায়ী করতেন। গ্রেনেড হামলার ঘটনা বিএনপির জন্য একটা বড় ভুল বলেও তিনি উল্লেখ করতেন।

প্রধানমন্ত্রী খােকাকে পছন্দ করার তৃতীয় কারণ হলাে, ওয়ান ইলেভেনের সময় খােকা আওয়ামী লীগ সভাপতির পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির দৃঢ়চিত্ত, সাহস এবং তার অবস্থানের প্রশংসা করেছিলেন খােকা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button