রাজনীতি

দুই সিটিতে জয়ের সম্ভাবনা থাকলেই মনোনয়ন দেয়া হবে: কাদের

সংবাদ চলমান ডেস্ক : ঢাকা সিটি নির্বাচনে যাদের জয়ের সম্ভাবনা আছে, তাদেরই মনোনয়ন দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার ভোগরা-জয়দেবপুর-মদনপুর (ঢাকা-বাইপাস) সড়কের পিপিপির আওতায় নির্মাণাধীন ছয় লেন বিশিষ্ট এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নীতকরণ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে করতে নির্বাচন কমিশনকে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা করা হবে। সরকার ও সরকারি দল সিটি নির্বাচনে কোন হস্তক্ষেপ করবে না।

সেতুমন্ত্রী জানান, আগামীকাল মনোনয়ন বোর্ডের সভায় দুই সিটির ১৭২ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ঢাকা এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই শেষ হবে। মাঝখানে প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ নিয়ে কিছু জটিলতা সৃষ্টি হওয়ার কারণে এক্সপ্রেসওয়ের কাজ কিছুটা মন্থর গতিতে চলেছিল। অর্থ বরাদ্দের বিষয়টি এরইমধ্যে সমাধান হয়েছে। যে কারণে এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এই প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

মন্ত্রী বলেন, চায়নার বেসরকারি কোম্পানি সিচুয়ান রোড অ্যান্ড ব্রিজ গ্রুপ কর্পোরেশন লিমিটেড, শামীম এন্টারপ্রাইজ প্রাইভেট লিমিটেড এবং ইউডিসি কনস্ট্রাকশন লিমিটেড যৌথভাবে ২০১৮ সালের ৬ ডিসেম্বর পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ চুক্তি স্বাক্ষর করে এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ কাজের জন্য। পিপিপির আওতায় ঢাকা বাইপাস সড়কের নির্মাণ কাজ আগামী তিন বছরের মধ্যে শেষ হবে। প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পের নির্মাণকাজ চলছে। এরমধ্যে ২২৩ কোটি টাকা অর্থমন্ত্রণালয় অনুদান হিসেবে বরাদ্দ দেবে। বাকি টাকা পিপিপির আওতায় চুক্তিপত্র বদ্ধ বিদেশি দুইটি কোম্পানি বহন করবে। জমি অধিগ্রহণ ও সার্ভিস চার্জ হিসেবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ পাঁচশত কোটি টাকা ব্যয় করবে। বাকি ৩২৭৬ কোটি টাকা বেসরকারি বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করবেন। ২০২২ সালের মধ্যে ঢাকা-বাইপাস সড়কের ৬ লেন বিশিষ্ট এক্সপ্রেস সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জীবিকার চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি। এজন্য তিনি সবাইকে সড়কে চলাচলের জন্য ট্রাফিক আইন মেনে চলা ও মটরসাইকেল ব্যবহারকারীদের হেলমেট ব্যবহারের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, উঠতি বয়সের তরুণরা নৈতিক নেতারা ঢাকা এবং ঢাকাসহ সারাদেশ ট্রাফিক আইন মেনে চলে না। মহাসড়কগুলোতে রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় নছিমন-করিমন-ভটভটি থ্রি হুইলার চলাচল করছে। তাদের ভোটের জন্য এই পরিবহনগুলো ব্যবহারে উৎসাহিত করছে। এই পরিবহনগুলো সড়ক ও মহাসড়কে দুর্ঘটনার জন্য অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশে বিগত দিনে সড়ক দুর্ঘটনার হার কমলেও সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর হার বেড়েছে। শুধুমাত্র ট্রাফিক আইন মেনে না চলার কারণে। তিনি সবাইকে সড়ক ব্যবহারে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন- বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, সড়ক ও জনপদ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী জাওয়াদ আলম, এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্প পরিচালক সবুজ উদ্দিন খান, চীনের রাষ্ট্রদূত এইচ ই লি জিমিং সহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button