নাটোররাজশাহী সংবাদ

উন্মুক্ত মরদেহ কাঁধে বহন, ছবি ভাইরাল

বিশেষ প্রতিবেদক:
দুই যুবককে একটি মরদেহ বহন করতে দেখা গেছে, যা ছিল উন্মুক্ত! সাধারণত কোনো মরদেহ বহনের সময় কাপড় দিয়ে ঢাকা বা কফিনের ব্যাগ ব্যবহার করা হয়। তবে এই মরদেহটি পুরোপুরি উম্মুক্ত দেখে হতবাক সোশ্যাল মিডিয়া। সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে এই ধরণের একটি ছবি ভাইরাল হওয়ার পর রীতিমত পুলিশের মানবিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

শনিবার (২৩ নভেম্বর) সকালে নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার বাসুদেবপুর বাঙ্গাল রেলওয়ে ব্রিজের নিচ থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে সান্তাহার রেলওয়ে পুলিশ।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায়, দুই যুবক কাঁধে করে মরদেহটি বহন করছেন। কিন্তু সেটি কোনো সম্মানজনক অবস্থায় নয়। উন্মুক্ত মৃতদেহটির পা মাটিতে ছুঁয়ে যাচ্ছে। মরদেহের প্রতি এমন অসম্মানজনক ছবিটি ভাইরাল হলে পুলিশের মানবিকতা ও কাণ্ডজ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সমালোচনা শুরু হয়েছে সর্বত্র।

প্রথম ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করেন নাইম পারভেজ অপু নামের এক ব্যক্তি। ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘ছবিটা দেখে মেজাজ খারাপ হয়ে গেল। এর বিচার চাই।’

সালেহীন বিপ্লব নামে আরেকজন ফেসবুক ব্যবহারকারী তার ওয়ালে ছবিটি পোস্ট করে লেখেন, ‘মরদেহের প্রতি এমন অসম্মান দেখে মানুষের মানবিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে। এটা কাম্য নয়। বাসুদেবপুর বাঙ্গাল রেলওয়ে ব্রিজের নিচ থেকে সান্তাহার রেলওয়ে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে। কিন্ত একটা মৃতদেহ দড়ি দিয়ে বেঁধে এভাবে ঝুলিয়ে নিতে বিবেক বাধলো না ওদের? ওরা কি এ দেশের নাগরিক নয়?’

এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, খবর পেয়ে মরদেহটি উদ্ধারে দুই যুবককে পাঠায় সান্তাহার রেলওয়ে পুলিশ। এ বিষয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বিশ্বনাথ কুমার বলেন, জনবল না থাকায় স্থানীয় দুই যুবককে দিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে অবশ্যই আমরা কফিন ব্যাগে মরদেহ ভরে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠাই।

বিষয়টি নিয়ে নলডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ন কবির জানান, সকালে স্টেশনের ২৩৬ নম্বর ব্রীজের নিচে পানিতে ভাসমান অবস্থায় মরদেহটি দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে নলডাঙ্গা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সান্তাহার জিআরপি পুলিশে খবর দেয়। জিআরপি থানা পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে সদর মর্গে প্রেরণ করে। তবে মরদেহের পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button