নাটোররাজশাহীরাজশাহী সংবাদ

আবারো নাটোরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর আবির্ভাব-নৌকা বিজয় করতে এম পি শিমুলের নির্লস পরিশ্রম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

নাটোরের ৭টি ইউনিয়নের নৌকা প্রতিক জয়ী করতে সংসদ আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম শিমুল এবারো মাঠে নেমেছেন এক ভিন্ন রুপে। সংসদের এমন অগাধ পরিশ্রম দেখে নৌকা প্রার্থীরা তাদের জয়ের বিষয়ে অনেকটাই আশাবাদি হয়েছেন। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করতে দলের পুর্বের তালিকাভুক্ত ব্যক্তিরা এবারো মাথা জাগা দিয়ে উঠেছে।

তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এবারো তাদের মনোনীত ব্যক্তিদের দিয়ে ইউপি নির্বাচন করানোর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন। এইসব স্বতন্ত্র নামক প্রার্থীদের মদদ দাতা হিসেবে নাটোর জেলার  দলের ভেতরের উই পোকাদের দায়ীকরছেন দলদরদীরা। সুত্র মতে নিজের ৭টি ইউনিয়নের পাশাপাশি জেলার সকল নৌকা প্রতিককে জয়ী করতে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম শিমুল। যারা জেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পদের উপর ভরকরে নৌকার বিরোধীতা করছেন তাদের উপর পুর্বে ও অভিযোগ রয়েছে  তারা  একই ভাবে দলের ভাব মুর্তি নষ্ট করেছেন বিভিন্ন সময়। এই উই পোকাদের মধ্যে সংসদ পর্যন্ত জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

নাটোর জেলা আওয়ামীলীগের কর্ণধর হিসেবে পরিচিত সংসদ শফিকুল ইসলাম শিমুলের অগাধ পরিশ্রমে গত নির্বাচনে ও নৌকার জয় হয়েছিল এই বি এন পি অধ্যষিত জেলাটিতে। তবে আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম শিমুল বলেন যারা গোপনে  নৌকার বিরোধীতা করছে তারা কোন দিন দলের একচুয়াল হতে পারেনা তারা ভার্চুয়াল হয়ে দলের মধ্যে বিভেদ সৃস্টি করছে। তাদের প্রকৃত নৌকা প্রেমি হয়ার আহব্বান জানান সংসদ শিমুল। নাটোর নলডাঙ্গার নৌকা প্রেমিদের একমাত্র গার্জিয়ান হিসেবে এই সংসদের নাম ভাসছে সুশীল সমাজে। এই সংসদ কে বিতর্কিত করতে বিভিন্ন সময় গুজব ছড়িয়েছেন উই পোকাদের একটি চক্র।

কিন্তু জোট সরকারের আমলে বিভিন্ন সময়ে নির্যাতিত হওয়া এই সংসদের উপর রয়েছে দেশ নায়ক বিশ্বের গৌরব শেখ হাসিনার  শতভাগ আস্থা। আর এরই ফল প্রসুত নাটরের ২ আসনের মনোনয়ন দেন আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম শিমুলকে। বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে তিনি প্রমান করেন সততা আর শক্তি দুটোই রয়েছে তার ভেতরে। দীর্ঘ ৮ বছরে তিনি নাটোর জেলাকে অনেকটাই সাজিয়ে নিয়েছেন। মাদক, সন্ত্রাস, দমন থেকে শুরু করে গুরুতর সিদ্ধান্তের পেছনে রয়েছে এই সংসদের কৃতিত্ব।

এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যেন কোন অপশক্তি প্রবেশ করে নৌকাকে বিতর্কিত  করতে না পারে সেই দিকে খেয়াল রেখেই নেতা কর্মীদের নির্বাচনী প্রচারনা করার নির্দেশ দেন সংসদ শফিকুল ইসলাম শিমুল। তবে দলের ভেতরে কাথা গায়ে দেওয়া এমন ব্যক্তিরা বিরোধী দলের চেয়েও ভয়ংকর বলে মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের একজন সদস্য। তিনি বলেন যিনি দল গোছানোর কাজে ব্যস্ত তার পেছনে পড়ে না থেকে তাকে সহযোগীতা করুন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চোখ কিন্তু সকল জায়গায় রয়েছে তাই সাধু সাবধান হয়েযান। আপনি এম পি মন্ত্রী যেই হোন না কেন আপনার নোট জায়গা মত রয়েছে।

নাটোরের সংসদ শিমুলের বিষয়ে তিনি বলেন সংসদ শিমুল ৮ বছরে দলকে যেভাবে সংগঠিত করেছে তা অনেক মন্ত্রীরা ও করতে পারেনাই। আর দল গোছাতে গেলে একজন মানুষ সকলের নিকট প্রিয় হতে পারেনা। নাটোর জেলা থেকে সংসদ শিমুলের প্রতিপক্ষ হয়ে যারা কাজ করছেন তাদেরকে সংশোধন হতে হুশিয়ারি দেন এই কেন্দ্রীয় নেতা। দলের পদ নিয়ে মানুষের গিবত না করে মানুষের পাশে থেকে কাজ করার আহব্বান জানান তিনি।

ভালোকাজে প্রভাব বিস্তার করান, কোন খারাপ কাজ করে দলের ভাব মুর্তি নষ্ট করার অধিকার কারো নেই। যারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আস্থা ভাজন তারা কোন দিন গোপনে নৌকার বিরোধীতা করেনা। নাটোর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হয়ে তিনি যে কাজ গুলো করছেন তা সকল জেলা আওয়ামীলীগ মিলে করা সম্ভব নয় বলে আমি মনে করি। এই অধ্যষিত নাটোর  শহর আজ শান্তির শহরে পরিনত হয়েছে একমাত্র শফিকুল ইসলাম শিমুলের কারনে।             

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button