জাতীয়

হাইকোর্টের রায়ে ভাগ্য ফিরছে ৪৭ হাজার গ্রাম পুলিশের

সংবাদ চলমান ডেস্ক :
সারা দেশের ৪৭ হাজার গ্রাম পুলিশ সদস্যের জন্য আশাজাগানিয়া এক রায়ে গ্রাম পুলিশের মহল্লাদারদের জাতীয় বেতন স্কেলের ২০তম গ্রেডে এবং দফাদারদের ১৯তম গ্রেডে বেতন নির্ধারণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

এছাড়া আদালত তার রায়ে মুজিব বর্ষ শুরুর আগেই গ্রাম পুলিশদের প্রাপ্য বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালতে গ্রাম পুলিশদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হ‌ুমায়ূন কবির পল্লব। তার সাথে ছিলেন অ্যাডভোকেট নূর আলম সিদ্দিক। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস আল হারুনী ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহফুজুর রহমান।

আজকের রায়ের বিষয়ে ব্যারিস্টার হ‌ুমায়ূন কবির পল্লব বলেন: এর আগে ২০০৮ সালে গ্রাম পুলিশের সদস্যদের জাতীয় বেতন স্কেলের চতুর্থ শ্রেণিতে অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না হওয়ায় ২০১৭ সালে ৩৫৫ জন গ্রাম পুলিশ সদস্য হাইকোর্টে একটি রিট করেন।

সেই রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট একটি রুল জারি করেন। রুলে ২০০৮ সালের সিদ্ধান্ত অনুসারে গ্রাম পুলিশ সদস্যদের চতুর্থ শ্রেণিতে অন্তর্ভুক্তির নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। এরপর এই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে আজ রায় দিলেন হাইকোর্ট।

মোট ৩৫৫ জন গ্রাম পুলিশ সদস্য এই রিট করলেও সারা দেশের ৪৭ হাজার গ্রাম পুলিশই এই রায়ের আওতায় আসবেন বল জানান রিটের পক্ষের আইনজীবী হ‌ুমায়ূন কবির পল্লব।

এই আইনজীবী আরো বলেন, বর্তমানে গ্রাম পুলিশের দফাদারেরা ৭ হাজার ও মহল্লাদাররা সাড়ে ৬ হাজার টাকা বেতন ভাতা পান। এতে পরিবার নিয়ে তাদের জীবন ছিল কষ্টের। তাই ৪৭ হাজার গ্রাম পুলিশ সদস্যের জন্য আজকের রায় অবশ্যই আশাজাগানিয়া। ২০তম ও ১৯তম গ্রেডে বেতন পেলে এদের জীবন মান পাল্টে যাবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো পড়ুন
Close
Back to top button