জাতীয়

সারাদেশে এদিন অনুষ্ঠিত হয় গায়েবানা জানাজা

চলমান ডেস্ক:  ১৯৭১-এর মার্চের এদিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, ‘বিশ্ববাসী দেখুক, বাংলাদেশের নিরস্ত্র ছাত্র-শ্রমিক-জনতা বুলেটের মুখেও কী দুর্দান্ত সাহস ও দৃঢ়তার সঙ্গে নিজেদের অধিকার হরণের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে।’ এদিন সারাদেশ ছিল হরতালে স্তব্ধ। প্রতিবাদ বিক্ষোভে তপ্ত। সারাদেশে অনুষ্ঠিত হয় গায়েবানা জানাজা। সভা-সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে বীর বাঙালি নেয় স্বাধীনতার শপথ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেকোন মূল্যে সংগ্রাম চালিয়ে যাবার অঙ্গিকার ব্যক্ত করে বেশ কিছু নির্দেশ জারি করেন।

সরাদেশে চলছিল হরতাল। ওষুধের দোকান, হাসপাতাল, অ্যামবুলেন্স, চিকিৎসক ও সাংবাদিকদের গাড়ি, পানি-বিদ্যুত-গ্যাস সরবরাহ, স্থানীয় টেলিফোন ও বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় টেলিফোন যোগাযোগ, দমকল ও আবর্জনার গাড়ি হরতালের আওতায় আসবে না বলে জানানো হয়। পূর্ব-পাকিস্তানের (বর্তমানে বাংলাদেশ) টেলিফোন কর্মীরা পশ্চিম পাকিস্তানে ট্রাঙ্কল বুক ও টেলিগ্রাম প্রেরণ থেকে বিরত থাকেন।

গভর্নরের বেসামরিক দায়িত্বে নিয়োজিত মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী বেশকিছু প্রস্তাব নিয়ে এদিন রাতে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে যান। তার সেই প্রস্তাবের জবাবে বঙ্গবন্ধু বাঙালিরা কিভাবে মারা যাচ্ছেন তার বর্ণনা দেন এবং দৃঢ়তার সঙ্গে তার দাবি মেনে নেয়ার কথা বলেন। এমন সময় সেখানে তাজউদ্দীন আহমদ উপস্থিত হয়ে বলেন এখন আর এক ছাদের নিচে আমাদের অবস্থান সম্ভব নয়। এরপর আর সেই আলোচনা এগোয়নি।

এদিন রাজারবাগ পুলিশ লাইন ও পিলখানা থেকে ইপিআর-এর বাংলাদেশি জওয়ানরা রাজপথে মিছিলকারীদের সঙ্গে একাত্ততা ঘোষণা করে জয় বাংলা স্লোগান দিতে থাকেন। পূর্ব-পাকিস্তান সাংবাদিক ইউনিয়ন আন্দোলনের সঙ্গে একাত্ততা ঘোষণা করে সামরিক শাসন প্রত্যাহারের দাবি জানায়।

এর দুইদিন আগেই একটি বিবৃতির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু নির্দেশ দিয়েছিলেন, ‘পেশাদার উস্কানিদাতাদের সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে। মুক্তি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চলবে।’ তিনি আরো জানিয়েছিলেন ‘ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করা প্রতিটি বাঙালি সরকারি কর্মচারির কর্তব্য।’

এদিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জেনারেল ইয়াহিয়ার আমন্ত্রণকে শক্ত ভাষায় নাকচ করে বলেন, ‘এটা নিষ্ঠুর কৌতুক। যা নিরস্ত্র বেসামরিক লোকদের ব্যাপক হত্যা ডেকে আনবে।’

অসহযোগী মার্কিন আচরণ:
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানের পক্ষে থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের বিরুদ্ধে কাজ করে। মার্চে শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের কয়েক দফায় বৈঠক হয়েছিল। এ থেকে প্রমাণ হয় যে, একাত্তরে যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা ততটা নিষ্ক্রিয় ছিল না।

এদিকে, সিআইএ তৎকালীন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনকে বলেছিলেন, ‘মুজিব সম্মেলনে যেতে নারাজ। কারণ, সেখানে যেতে তার জনগণের চাপ নেই।’ সিআইএ এদিন ঢাকায় মার্কিন কনসাল জেনারেল আর্চার ব্লাডের কী ধারণা, তাও নিক্সনকে জানিয়েছিল। নিক্সন ও তার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার আর্চার ব্লাডকে বাঙালিদের প্রতি সহানুভূতিশীল বিবেচনায় একাত্তরে ঢাকা থেকে তাকে নাটকীয়ভাবে প্রত্যাহার করেছিলেন।

এনএসসি স্টাফ হেরল্ড স্যান্ডার্স ও স্যামুয়েল হকিনসন একাত্তরের ৪ মার্চ কিসিঞ্জারকে তথ্য দেন যে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রোববার (৭ মার্চ) স্বাধীনতার ‘সমতুল্য’ ঘোষণা দেবেন।

প্রসঙ্গত, আর্চার ব্লাড, ‘১৯৭১ সালে পূর্ব-পাকিস্তানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের কনসাল জেনারেল নিযুক্ত হয়েছিলেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে তৎকালীন চলমান নৃশংসতা বন্ধে ব্যর্থ হওয়ায় কঠোর ভাষায় একটি টেলিগ্রাম বার্তা পাঠানোর জন্য বিখ্যাত।

সূত্র:
একাত্তরের দিনগুলি: জাহানারা ইমাম
মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস: মুহম্মদ জাফর ইকবাল
অসহযোগ আন্দোলন: একাত্তর: রশীদ হায়দার
প্রথম আলো, ২৬ মার্চ, ২০১৮

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো পড়ুন
Close
Back to top button