জাতীয়

রেল হয়ে উঠছে আতঙ্কের নাম!

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
‘১৭৯ কিলোমিটারের মধ্যে ১৩টি সেতুই ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে পাঁচটি ‘ডেড স্টপ’-এর আওতাধীন। অনেক জায়গায় স্লিপারের নাট-বল্টু নেই। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে রেলের পাটাতনে ২-৩টি স্লিপারের পর একটি করে ক্লিপ লাগানো।’

সংস্কারের অভাবে সিলেটের রেলপথে দিন দিন দুর্ঘটনা বাড়ছে। ঘটছে প্রাণহানি। দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি। জরাজীর্ণ এই রেললাইনে বগি লাইনচ্যুতের ঘটনাও এখন হরহামেশাই ঘটছে। স্বাচ্ছন্দ্য আর নিরাপদ যাতায়াতে একমাত্র রেলই ছিল সাধারণ মানুষের অন্যতম ভরসা; কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে একের পর এক ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনায় রেলসেবার মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে মানুষের মনে। রেল হয়ে উঠছে আতঙ্কের অন্য নাম।

জানা গেছে, ২০১৯ সালে সিলেট রুটে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির ঘটেছে।

সর্বশেষ গত সোমবার রাত পৌনে ৯টায় চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন ১৬টি কোচে ৭০৩ জন যাত্রী নিয়ে সিলেট রেলস্টেশন ছেড়ে যায়। ট্রেনটি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় পৌঁছালে ঢাকা অভিমুখী ‘তুর্ণা নিশীথা’র সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ১৬ জন যাত্রী নিহত হন, আহত হয় শতাধিক।

এদের মধ্যে গুরুতর জখম নিয়ে অনেকে হাসপাতালের বেডে ছটফট করছেন। এর আগে গত ২৩ জুন রাতে মৌলভীবাজারের বরমচাল এলাকায় ট্রেন দুর্ঘটনায় ৪ যাত্রী নিহত ও শতাধিক আহতের ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জরুরিভিত্তিতে রেলপথের দিকে সরকারের মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন। শুধু সিলেট রুটেই নয়, সারাদেশে রেলপথের সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছে। একইসাথে রেলে আধুনিক সুযোগ-সুবিধাও বাড়াতে হবে।

রেলওয়ে সূত্রমতে, গত ১৯ জুলাই সিলেট থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া আন্তঃনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনটি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া জংশন রেলস্টেশনে ঢোকার সময় যাত্রীবাহী বগি লাইনচ্যুত হয়। তবে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। গত ৪ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী জালালাবাদ এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়।

গত ১৭ সেপ্টম্বর সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের মাইজগাঁও রেলস্টেশনে জালালাবাদ ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। এর মাত্র দুই সপ্তাহ আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মল্লিকপুরে গত ১৬ মে ফেঞ্চুগঞ্জের মাইজগাঁও রেলস্টেশনে ঢাকাগামী আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হয়। ২০ জুলাই সকালে একইস্থানে ঢাকাগামী আন্তঃনগর কালনী এক্সপ্রেসের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়।

এর আগে ৫ এপ্রিল বেলা আড়াইটায় সিলেট-মাইজগাঁও রেলস্টেশনের মধ্যবর্তী মোগলাবাজার এলাকায় কুশিয়ায়া এক্সপ্রেস লোকাল ট্রেনটিতে ইঞ্জিন থেকে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এদিন রাত পৌনে ১১টার দিকে মাইজগাঁও স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় শাহজালাল সারকারখানা থেকে সার বহনকারী বিসি স্পেশাল ট্রেনের বগিটি লাইনচ্যুত হওয়ায় ব্যাহত হয় যোগাযোগ ব্যবস্থা।

গত ৯ মার্চ ফেঞ্চুগঞ্জে অল্পের জন্য বেঁচে যায় জয়ন্তিকা ট্রেনের যাত্রীরা। ট্রেনটি ফেঞ্চুগঞ্জ কুশিয়ারা রেলসেতুর পাশেই ভয়াবহ দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায়। এদিন কুশিয়ারা রেলসেতুর দক্ষিণে রেললাইন এক ফুট জায়গা ভেঙে যায়। এটা দেখে স্থানীয় ব্যবসায়ী ছালিক মিয়া তাৎক্ষণিক মাইজগাঁও স্টেশনে জানালে তারা ফোন করে দুই পাশের ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেন। তাৎক্ষণিক রেল যোগাযোগ বন্ধ করা না হলে ভয়ানক কিছু ঘটতে পারতো।

রেলওয়ের প্রকৌশল শাখা সূত্রে জানা গেছে, সিলেট-আখাউড়া সেকশনের অনেকগুলো সেতুই অতি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে, শমসেরনগর-টিলাগাঁও সেকশনের ২০০ নম্বর সেতু, মোগলাবাজার-মাইজগাঁও সেকশনের ৪৩, ৪৫ ও ৪৭ নম্বর সেতু, কুলাউড়া-বরমচাল সেকশনের ৫ ও ৭ নম্বর সেতু, সাতগাঁও-শ্রীমঙ্গল সেকশনের ১৪১ নম্বর সেতু, শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সেকশনের ১৫৭ নম্বর সেতু, মাইজগাঁও-ভাটেরাবাজার সেকশনের ২৯ নং সেতু এবং মনতোলা-ইটাখোলা সেকশনের ৫৬ নম্বর সেতু। সেতু সংস্কারের কোনো প্রকল্প না থাকায় এগুলো সংস্কার হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, গত ১৩ অক্টোবর রেলসেবার মানোন্নয়নে রেল মন্ত্রণালয়ে চারটি বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চিঠি পাঠিয়েছে সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। চিঠিতে সিলেট-ঢাকা রুটে আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন ট্রেনের এসি কোচ সংযোজন, সিলেট-চট্টগ্রাম রুটে এসি কোচ সংযোজন, সিলেট-আখাউড়া ১৭৮ কিলোমিটার রেলপথ সংস্কার এবং ট্রেনের মেয়াদোত্তীর্ণ ইঞ্জিন ও জরাজীর্ণ বগি পরিবর্তন করার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আখাউড়া-সিলেট রেলপথের ১৭৯ কিলোমিটারের মধ্যে ১৩টি সেতুই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সিলেট থেকে মোগলাবাজার স্টেশন পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে আটটি এবং মোগলাবাজার থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ১৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে পাঁচটি সেতু ‘ডেড স্টপ’-এর আওতাধীন রয়েছে।

এ রুটের রেললাইনের অনেক জায়গায় স্লিপারের নাট-বল্টু নেই। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে রেলের পাটাতনে ২-৩টি স্লিপারের পর একটি করে ক্লিপ লাগানো থাকে। যে কারণে ট্রেন দ্রুত চলতে গেলে লাইনচ্যুত হয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে।

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালে বিএনপি-জোট সরকারের আমলে আধুনিক অবকাঠামোয় গড়ে ওঠা রেলস্টেশনের উদ্বোধন করেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমান। এরপর দেড়দশকেও সিলেট রেলওয়ে স্টেশনে অবকাঠামোগত উন্নয়নে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button