জাতীয়

বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)-র মধ্যে মহাপরিচালক পর্যায়ে আজ থেকে পাঁচ দিনব্যাপী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম জানান, আজ থেকে আগামী ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ভারতের নয়াদিল্লিতে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম, বিজিবিএম (বার) এনডিসি, পিএসসির নেতৃত্বে ১১ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ প্রতিনিধিত্ব করবেন।

অপরদিকে বিএসএফ মহাপরিচালক শ্রী ভিভেক জোহরী, আইপিএস-এর নেতৃত্বে ১৯ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল উক্ত সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। ভারতীয় প্রতিনিধিদলে বিএসএফ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, ফ্রন্টিয়ার আইজিগণ এবং ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ প্রতিনিধিত্ব করবেন।

একই সাথে সীমান্ত সম্মেলন উপলক্ষে উভয় দেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান সুসম্পর্ক আরও সুসংহত করতে বিজিবি পরিচালিত সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির সভানেত্রী সোমা ইসলামের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের প্রতিনিধিদল ভারতে গমন করবেন।

প্রতিনিধিদল বিএসএফ পরিচালিত বিএসএফ ওয়াইভ্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিদলের সাথে পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন এবং অ্যাসোসিয়েশনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করবেন। পরিদর্শনের প্রথম দিনে নয়াদিল্লিস্থ বিএসএফের চাওলা ক্যাম্পে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক বৈঠক শুরু হবে।

তিনি আরও জানান, এবারের সম্মেলনের আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে, সীমান্তে নিরস্ত্র বাংলাদেশি নাগরিকদের ওপর গুলি চালানো ও আহত, হত্যা করা সম্পর্কে প্রতিবাদ জানানো এবং এধরনের কর্মকাণ্ড বন্ধে করনীয়।

ভারত হতে বাংলাদেশে ইয়াবা, ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা, হেরোইন, এবং ভায়াগ্রা সেনেগ্রাসহ বিভিন্ন প্রকার অবৈধ মাদকদ্রব্যের চোরাচালান রোধ। এছাড়া ভারতের অভ্যন্তরে ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্যের কারখানা, গুদাম এবং মাদকের চোরাচালান রোধ, মাদক পাচারকারীদের সম্পর্কিত তথ্য বিনিময়।

এছাড়া, ভারত হতে বাংলাদেশে অস্ত্র ও গোলাবারুদ চোরাচালান রোধ করা। বিএসএফ এবং ভারতীয় নাগরিক (মিয়ানমার নাগরিকসহ) কর্তৃক সীমানা লংঘন, অবৈধ পারাপার, অনুপ্রবেশ রোধ।

আবার সীমান্তব্যবস্থাপনা এবং সীমান্ত সম্পর্কিত সমস্যা দ্রুত সমাধানের জন্য ‘কার্যকর সমন্বিত সীমান্তব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বাংলাদেশ কর্তৃক সীমান্ত সড়ক নির্মাণসংক্রান্ত আলোচনা।

উক্ত সম্মেলনে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম, ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন।

তাছাড়া, বিজিবি-বিএসএফ সীমান্ত সম্মেলন উপলক্ষে আগামী ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯ চাওলা ক্যাম্প স্টেডিয়ামে বিজিবি ও বিএসএফ ভলিবল টিমের মধ্যে ‘মৈত্রী কাপ টুর্নামেন্ট (ভলিবল)’ অনুষ্ঠিত হবে।

এরপর ২৯ ডিসেম্বর সীমান্ত সম্মেলনের ‘যৌথ আলোচনার দলিল’ স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি হবে। উক্ত সম্মেলন শেষে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল আগামী ৩০ ডিসেম্বর দেশে প্রত্যাবর্তন করবেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button