জাতীয়

দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয় ঘেরাও-সম্পাদক আটক

সংবাদ চলমান ডেস্ক : রাজধানীর বড় মগবাজারে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় জামায়াতে ইসলামীর মুখপত্র হিসেবে পরিচিত দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার কার্যালয় ও ছাপাখানা ভাঙচুর করা হয়েছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগকর্মীদের সহযোগিতায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাকর্মীরা ভাঙচুরে অংশ নেন বলে সংগ্রামের সাংবাদিকরা দাবি করেছেন। তারা বলছেন, ভাঙচুরের পর হাতিরঝিল থানার পুলিশ এসে সংগ্রাম কার্যালয় থেকে সম্পাদক আবুল আসাদকে আটক করে নিয়ে যায়।

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লাকে ‘দৈনিক সংগ্রাম’ গত বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) তাদের এক প্রতিবেদনের শিরোনামে ‘শহীদ’ বলায় এ হামলা চালানো হয় বলে সংগ্রামের সংবাদকর্মীরা জানিয়েছেন। এ বিষয়টি ফেইসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচিত হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে সেখানে পুলিশের টিম পাঠিয়েছি। সম্পাদককে আটক করার বিষয়টি আমার জানা নেই।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সংগ্রামের যুগ্ম বার্তা সম্পাদক শহীদুল ইসলাম জানান, গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামে একটি সংগঠনের শতাধিক কর্মী সংগ্রাম কার্যালয় ঘেরাও করে রাখে। তারা কাউকে প্রবেশ বা বের হতে দেয়নি। পরে এক পর্যায়ে লাঠিসোটাসহ বড় মগবাজারের আল-ফালাহ প্রিন্টিং প্রেসে যায়। তারা ভবনের বার্তা কক্ষ, সম্পাদনা কক্ষ, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন বিভাগসহ বেশ কয়েকটি বিভাগের কম্পিউটার, আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন জিনিস ভাঙচুর ও তছনছ করে। তিনি আরও জানান, ৫৮টি কম্পিউটার ও পত্রিকার ছাপানোর সব উপকরণ আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে তারা।

হাতিরঝিল থানার ওসি আবদুর রশীদ জানান, ‘কারা ভাঙচুর করেছে সেটা নিয়ে পরে কথা বলব। সম্পাদককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে।’ এছাড়া সংগ্রাম কার্যালয় ভাঙচুরের পর বেশকিছু উত্তেজিত জনতা রাতে হাতিরঝিল থানার সামনে অবস্থান নেয়। তারা ‘জয় বাংলা’সহ বিভিন্ন সেস্নাগান দেয়।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মাহমুদ বলেন, ‘বিজয়ের মাসে রাজাকার কাদের মোল্লাকে সংগ্রাম পত্রিকা “শহীদ” অভিহিত করে সংবাদ প্রকাশ করেছে। আমরা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে এখানে এসেছি। একই কাজের জন্য পত্রিকার সম্পাদককে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।’ এর আগে কাদের মোল্লাকে শহীদ আখ্যা দেওয়ায় সংগ্রাম কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

ভাঙচুর ও সম্পাদককে থানায় নিয়ে যাওয়ার পর সংগ্রামের প্রধান প্রতিবেদক রুহুল আমিন গাজী বলেন, ‘এ ধরনের সংবাদ গত পাঁচ বছর থেকেই ছাপা হচ্ছে। কোনো সংবাদে কেউ সংক্ষুব্ধ হলে তারা নিয়ম মোতাবেক প্রতিবাদ দিতে পারেন। কিন্তু তা না করে হামলা-ভাঙচুর ও আইন হাতে তুলে নেওয়ার অধিকার কারও নেই। এটা অন্যান্য গণমাধ্যমের জন্যও হুমকিস্বরূপ।’

এদিকে কাদের মোল্লার ফাঁসিকে দৈনিক সংগ্রাম ও জামায়াতের সমর্থকরা ‘শহীদ’ হিসেবে দাবি করে আসছে। পত্রিকাটি বিভিন্ন সংবাদে বরাবরই তাকে শহীদ লিখে আসছে। গত বৃহস্পতিবার প্রতিবেদনে কাদের মোল্লাকে শহীদ লেখায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। তিনি বলেন, ‘এটা অবশ্যই গর্হিত এবং রাষ্ট্রবিরোধী সংবাদ। আমরা এই সংবাদ প্রত্যাখ্যান করি, এটি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এমন সংবাদের তীব্র বিরোধিতা করছি। দৈনিক সংগ্রামকে এর দায় নিতে হবে এবং জবাবদিহির মুখোমুখি করা হবে।’

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্পেন সফররত তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ দেশে ফিরলে করণীয় এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব। আমি ও মন্ত্রী একসঙ্গে অফিশিয়াল প্রতিক্রিয়া জানাব।

জামায়াতের মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত দৈনিক সংগ্রামে গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠায় ‘শহীদ কাদের মোল্লার ৬ষ্ঠ শাহাদাত বার্ষিকী আজ’ শিরোনামে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘আজ ১২ই ডিসেম্বর শহীদ কাদের মোল্লার ৬ষ্ঠ শাহাদাত বার্ষিকী। ২০১৩ সালের এই দিনে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করে সরকার। জাতিসংঘের মহাসচিব থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব, মানবাধিকার সংগঠনের অনুরোধ উপেক্ষা করেই ফাঁসি কার্যকর করা হয়।’

যুদ্ধাপরাধের মামলায় প্রথম ফাঁসি কার্যকর করা হয় কাদের মোল্লার। তাকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয় ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর রাতে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জল্লাদ শাজাহান ভূঁইয়ার নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি দল সেদিন ফাঁসি কার্যকর করে।

এর আগে ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রম্নয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধে রাজাকার কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন সাজা দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। রায়ের পর সাধারণ মানুষ বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। বিক্ষুব্ধ জনতা সেদিন বিকেল থেকে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে জড়ো হতে থাকে। সাধারণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে শাহবাগ চত্বরে গড়ে ওঠে গণজাগরণ মঞ্চ।

গণদাবির মুখে সরকার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিটি) আইন সংশোধন করার উদ্যোগ নেয়। ১৭ ফেব্রম্নয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনালস) সংশোধন বিল জাতীয় সংসদে পাস হয়। এ সংশোধনের ফলে ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল করার সুযোগ তৈরি হয়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button