জাতীয়

জল থৈ থৈ সচিবালয়: লিফটে পানি, হাতে পায়ের জুতো!

সংবাদ চলমান ডেস্ক: প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়। সেই সচিবালয়ে জল থৈ থৈ অবস্থা। আশ্বিনের দুপুরে অবিরাম বৃষ্টির পর সচিবালয়জুড়ে ঢেউ খেলছে বৃষ্টির পানি। পানিবন্দি সবাই, মন্ত্রী-সচিব থেকে শুরু করে কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সাধারণ দর্শনার্থীও। বিপাকে পড়েছেন সচিবালয়ের অভ্যন্তরের সবাই।
কর্মদিবস মঙ্গলবার (০১ অক্টোবর) দুপুর থেকে প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়। প্রায় দুই ঘণ্টার বৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়ার উপক্রম চারদিক। সচিবালয়েও যেন পানির তোড়ে ভেসে যাচ্ছে।
সচিবালয় গেটগুলো, ভবনের চার পাশ, এমনকি কোনো ভবনের লিফটেও পানি উঠেছে। যারা সচিবালয়ে ঢুকছেন বা বের হচ্ছেন তারা সবাই পায়ের জুতো হাতে নিয়ে হাঁটছেন।
সচিবালয়ে ৭ নম্বর ভবনের দুটি লিফটে পানি উঠেছে। পানির কারণে পূর্ব দিকের লিফট প্রথমে বন্ধ রাখা হয়। পরে দক্ষিণের লিফটও বন্ধ হয়ে যায় বলে জানান দক্ষিণের লিফটম্যান রাজু।


তিনি বলেন, দুই বছর আগে একবার লিফটে পানি উঠেছিল। তবে এবার পানির পরিমাণ বেশি।
নির্দিষ্ট পথ ছেড়ে দক্ষিণের এই লিফটের পাশ দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জুতোর সোল ডুবানো পানির মধ্যে হেঁটে গাড়িতে উঠেন।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভবনের বারান্দা সমান পানি উঠে যায়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সামনে ছাড়াও সবগুলো ভবনের চারদিকে পানি থৈ থৈ করছে। সচিবালয়ের গাড়িগুলো প্রায় অর্ধেকটা পানিতে ডুবে গেছে।
৭ নম্বর ভবনের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রাণালয়ের কর্মী মিজানুর রহমান বলেন, সচিবালয়ে এমন পানি দেখিনি কোনো দিন।
এদিকে সচিবালয়ে থৈ থৈ পানির এই অবস্থা মোবাইল ক্যামেরায় বন্দি করছেন অনেকে। সেলফি নিচ্ছেন কেউ কেউ। এরই মাঝে কাউকে কাউকে বলতেও শোনা যায়, সচিবালয়ের এই অবস্থা হলে সারা দেশের কী অবস্থা হয়?
সচিবালয় থেকে বের হতে গিয়ে সবাই খুঁজছেন পানিবিহীন পথ! কিন্তু সেই পথের দেখা পাচ্ছেন না কেউ-ই। বাধ্য হয়ে জুতা খুলে হাতে নিয়ে বের হচ্ছেন অনেকে। আর যাদের গাড়ি আছে তারা ৭ নম্বর ভবনের মাঝের লিফট এবং পাশের সিড়ি দিয়ে নেমে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এতে সেখানে জটলার সৃষ্টি হয়।
আর পানির কারণে সচিবালয়ের সামনের রাস্তাতেও প্রচণ্ড যানজট তৈরি হয়েছে। ফলে সচিবালয়ের ভেতরেও বিকাল নাগাদ যানজটের রেশ পড়ে যায়।
সচিবালয়ের সামনে হাটু সমান পানি জমে থাকার কারণে এক কর্মকর্তাকে ৫ টাকা দিয়ে রিক্সায় চড়ে ঢুকতে দেখা যায়।
বেলা ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত ঢাকাতে সর্বোচ্চ ৪৫ দশমিক ৩ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস এ তথ্য জানিয়ে বলেন, চট্টগ্রাম বিভাগের নোয়াখালীর মাইজদী কোর্টে ৩ ঘণ্টায় ৬২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।
তবে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে আসবে বলে জানান তিনি

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো পড়ুন
Close
Back to top button