জাতীয়

ঘাটতির দেশ থেকে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্তের বাংলাদেশ

সংবাদ চলমান ডেস্ক : মাত্র ১১ বছরে ৪৭ শতাংশ থেকে ৯৫ শতাংশ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার। এই সময়ে ১০০টির বেশি নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের সুবাদে বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ ঘাটতির দেশ থেকে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত হয়েছে। নানা পরিকল্পনা আর উদ্যোগ বাস্তবায়নের ফলে মুজিববর্ষের (২০২০ সালের ১৭ মার্চ-২১ সালের ১৭ মার্চ) মধ্যেই শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আসবে বাংলাদেশ।

জানা গেছে, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর বিদ্যুতের উন্নয়নে ৪০ বছর মেয়াদি একটি মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। এরপর ২০১৬ সালে নেয়া হয় ‘শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ শীর্ষক প্রকল্প। এ প্রকল্পের আওতায় ২০২১ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার কথা রয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ২০০৯ সালে দেশের ৪৭ শতাংশ মানুষ বিদ্যুতের আওতায় ছিলো। বিভিন্ন পদক্ষেপের কারনে ২০১৯ সালে ৯৫ শতাংশ মানুষ বিদ্যুতের আওতায় চলে এসেছে। ২০০৯ সালে সারাদেশে বিদ্যুতের গ্রাহক ছিল মাত্র এক কোটি ৮ লাখ। আর ২০১৯ সালে গ্রাহক বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন কোটি ৫৭ লাখ। সে হিসাবে গত ১১ বছরে দুই কোটি ৪৯ লাখ নতুন গ্রাহক বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছে। এটি সরকারের অনেক বড় সাফল্য হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

পলিসি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, ২০০৯ সালের আগে বিদ্যুতের অভাবে দেশের অর্থনীতি ছিল ভঙ্গুর; শিল্প, বাণিজ্য ছিল স্থবির এবং জনজীবনে লোডশেডিং ছিল অসহনীয়। তবে গত কয়েক বছরে বিদ্যুৎ খাতে সরকারের অতুলনীয় ও অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে। দেশে অবোকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি দূরদর্শী, সাহসী ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে বিদ্যুৎ খাতে এ অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে।

পাওয়ার সেলের তথ্য অনুযায়ী, ২০০৯ সালে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ছিল ৪ হাজার ৯৪২ মেগাওয়াট। বর্তমানে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২২ হাজার ৭২৭ মেগাওয়াট। সে হিসাবে ১১ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা বেড়েছে ১৭ হাজার ৭৮৫ মেগাওয়াট। ২০০৯ সালে দেশের বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৭টি। ২০১৯ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৭টি। ২০০৯ সালে বিতরণ লাইন ছিল মাত্র ২ লাখ ৬০ হাজার কিলোমিটার। ২০১৯ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৫০ হাজার কিলোমিটার।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব আহমদ কায়কাউস বলেন, চাহিদা হিসাব করেই বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়ানো হয়েছে। গত ১০ বছরে ১০০টির বেশি নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের সুবাদে বাংলাদেশ এখন বিদ্যুৎ ঘাটতির দেশ থেকে বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত হয়েছে।

এদিকে, ২০২১ সাল নাগাদ দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৪ হাজার মেগাওয়াট, ২০৩০ সাল নাগাদ ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সাল নাগাদ ৬০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সরকার। এছাড়া শতভাগ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করার দিকেও নজর দিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন চলছে।

জানা গেছে, বর্তমানে মোট ১৫ হাজার ৯৩৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৪৮টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণাধীন রয়েছে। এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো ২০১৯ থেকে ২০২৭ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে চালু হবে। এছাড়া ৩ হাজার ২৭৭ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৪টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষর প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যেগুলো ২০২১ থেকে ২০২৪ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে চালু হবে।

অন্যদিকে, এক হাজার ১৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৮টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে দরপত্র প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ২০২১ সাল থেকে ২০২৪ সালের মধ্যে পর্যায়ক্রমে চালু হবে। এছাড়া ১৯ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৭টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ পরিকল্পনাধীন রয়েছে। এ নিয়ে মোট ৮৭টি কেন্দ্র থেকে ৩৯ হাজার ৮৬২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে।

এদিকে, বিদ্যুৎ খাতের তিনটি বড় প্রকল্প রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, মাতারবাড়ি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র সরকারের মেগা প্রকল্পে স্থান পেয়েছে। প্রকল্পগুলোকে ‘ফাস্ট ট্র্যাক’ হিসেবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে পাবনা জেলার ঈশ্বরদী থানার পদ্মা নদী তীরবর্তী রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করা হয়। প্রকল্পের কাজ ২০১৬ সাল থেকে শুরু হয়ে আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে এ প্রকল্পের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। এতে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে রাশিয়া।

২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন দেশের প্রথম এ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি ৯১ লাখ টাকা। মূলপর্বের কাজ বাস্তবায়নে প্রকল্প সহায়তা হিসেবে রাশিয়া ৪ শতাংশ সুদ হারে ৯১ হাজার ৪০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে। প্রকল্পের তথ্য অনুযায়ী, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ৬০ বছর নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। এর পেছনে বার্ষিক খরচ হবে মাত্র এক হাজার কোটি টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে বিদ্যুৎ খাতে অনেক এগিয়ে যাবে দেশ।

এদিকে, ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়িতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়। এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি হবে ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন। প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের আগস্টে মাতারবাড়ীতে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে ৩৬ হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন করে সরকার। মহেশখালীর মাতারবাড়ী ও ঢালঘাটা ইউনিয়নের এক হাজার ৪১৪ একর জমিতে হচ্ছে এই বিদ্যুৎ প্রকল্প।

এছাড়া বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ উদ্যোগে বাগেরহাটের রামপালে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। ২০২১ সালের শেষ দিকেই রামপাল থেকে বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে আসতে শুরু করবে বলে আশা করছে সরকার। এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ১৬ হাজার কোটি টাকা।

বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন নিয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, এ খাতে আগে কোনো পরিকল্পনা ছিলো না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্ব গ্রহণের পর বর্তমান সরকার সবার জন্য বিদ্যুৎ সুবিধা ও ভবিষ্যতে বিদ্যুতের চাহিদার কথা বিবেচনা করে উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধির মহাপরিকল্পনা নেয়। আগামী বছরই দেশের শতভাগ জনগণ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আসবে। এছাড়া তিন থেকে চার বছরের মধ্যে শতভাগ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, দেশে বিদ্যুৎ খাতে গত কয়েক বছরে যে পরিমাণ উন্নয়ন হয়েছে, তা আর কোনো সরকারের আমলে হয়নি।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button