চাপাইনবাবগঞ্জরাজশাহী সংবাদ

সোনামসজিদ স্থলবন্দর এখন খেলার মাঠ

সংবাদ চলমান ডেস্ক: চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম চার মাসে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। সোনামসজিদ স্থলবন্দর কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে চলতি অর্থ বছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ৪৫০ কোটি ৫৮ লক্ষ ৫১ হাজার টাকা।

গত চার মাসের রাজস্ব আয়ের লক্ষমাত্রা ছিলো ১৪৯ কোটি ৬৮ হাজার টাকা। কিন্তু প্রথম চার মাসে রাজস্ব আয় হয়েছে ৪৭ কোটি ২৩ লাখ ২১ হাজার টাকা। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১০১ কোটি ৭৭ লাখ ৪৭ হাজার টাকা রাজস্ব আয় কম হয়েছে।

রাজস্ব আয় কম হওয়ার কারণ জানতে চাইলে সোনামসজিদ কাষ্টমস্, আমদানী-রপ্তানীকারক গ্রুপ সিএন্ডএফ এজেন্ট, শ্রমিক সমন্বয় ও পানামার নেতৃবৃন্দ এক বাক্যে জানান, বানিজ্যিক ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলির সমন্বয়ের অভাবে ভারত থেকে পন্য আমদানী পর্যায়ক্রমে কমে যাচ্ছে যে কারণে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হচ্ছে না।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল সোনামসজিদ বন্দরের ব্যবসা বাণিজ্যের গতিশীলতা ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করলে গত মার্চ ও এপ্রিল মাসে স্থলবন্দরে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে গতিশীলতা কিছুটা ফিরে আসলেও পরবর্তীতে আবারো ভাটা পড়েছে আমদানী-রপ্তানী বাণিজ্যে।

সোনামসজিদ স্থলবন্দর পাথরের বন্দরে পরিনত হলেও বর্তমানে মাত্র ১০০/১২৫টি পাথর ভর্তি ট্রাক মহদিপুর স্থল বন্দর থেকে পানামা ইয়ার্ডের ভেতর প্রবেশ করছে। সোনামসজিদ বন্দর দিয়ে ৩৫ ধরনের আমদানী যোগ্য পন্যের মধ্যে শুধু মাত্র পাথর আমদানী হচ্ছে।
গত ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত সরকার পিয়াজ রপ্তানীতে নিষেধাজ্ঞা জারি করাই বর্তমানে পিয়াজ আমদানী বন্দ রয়েছে। তবে ২৮শে সেপ্টেম্বরের আগে এলসি করা পিয়াজ মাঝে মধ্যে কিছু কিছু আসছে।

সোনামসজিদ স্থল বন্দরের আমদানী-রপ্তানী কমে যাওয়ায় স্থল বন্দরে বিভিন্ন পেশায় কর্মরত প্রায় ১১হাজার মানুষ কর্মহীন হয়েছে। পানামা কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মচারীদের নিয়মিত ভাবে বেতন দিতে পারছেনা।

আমদানী-রপ্তানীকারক গ্রুপ, সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোশিয়েশন তাদের কর্মচারীদের কয়েক মাস থেকে নিয়মিত বেতন ভাতা দিতে পারছেনা। সোনামসজিদ স্থলবন্দরের আমদানী-রপ্তানী ক্ষেত্রের যে অবস্থা তা থেকে অনেকেই মনে করছেন সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানী-রপ্তানী শূণ্যের কৌটায় দাঁড়াতে পারে।

স্থল বন্দরে পন্য আমদানী হ্রাস পাওয়ার কারণ হিসেবে সংগঠনগুলির স্থানীয় গ্রাম্য রাজনীতি, অনির্বাচিত সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোশিয়েশন। সোনামসজিদ স্থলবন্দরের আমদানী-রপ্তানীর ক্ষেত্রে গতিশীলতা ফিরাতে হলে, সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোশিয়েশনের নির্বাচিত কমিটি হতে হবে, শ্রমিক সমন্বয়ও নির্বাচিত কমিটি হতে হবে।
পানামা কর্মকর্তাদের পন্য দ্রুত ছাড়ের ক্ষেত্রে জনবল বৃদ্ধি করতে হবে। পানামায় সকল শ্রমিকের পরিচয়পত্র করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

বানিজ্যিক সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলিকে গ্রাম্য রাজনীতির গ্যাড়াকল থেকে বেরিয়ে এসে উদার মনোভাব নিয়ে আমদানী-রপ্তানীর গতিশীলতা ফিরাতে মনোযোগ দিতে হবে বলে স্থল বন্দরের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা এই প্রতিনিধিকে জানান।

অন্যদিকে স্থল বন্দরের দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের আমদানীকৃত পন্য ছাড়ের ক্ষেত্রে সমস্যাগুলি দূর করে দ্রুত পন্য ছাড়করণের ব্যাবস্থা করতে হবে বলে আমদানীকারকরা জানায়।

পানামা সোনামসজিদ পোর্ট লিংক লিমিডেটের ডেপুটি পোর্ট ম্যানেজার মাইনুল ইসলাম জানান, ইতি পূর্বে পানামায় ৪০০টি থেকে ৪৫০টি ভারতীয় পন্যবাহী ট্রাক পানামা ইয়ার্ডের ভিতরে প্রবেশ করলেও বর্তমানে নেমে দাঁড়িয়েছে ১শ থেকে ১৩০ এ।

সোনামসজিদ স্থল বন্দরে কাস্টমস এর একজন রাজস্ব কর্মকর্তা দেয়া তথ্য অনুযায়ী জানা যায়, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে সোনামসজিদ স্থলবন্দওে প্রায় ২ লাখ ভারত থেকে পন্য ভর্তি ট্রাক প্রবেশ করে। এ থেকে সরকার রাজস্ব পায় প্রায় ৫’শ ৩৩ কোটি টাকা।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ভারত থেকে ৬৭ হাজার ২’শ ১৮টি ভারত থেকে পন্য ভর্তি ট্রাক আসে। কিন্তু চলতি ২০১৯-২০ অর্থ বছরে প্রথম চার মাসে সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ভারত থেকে পন্য আমদানী উল্লেখ করার মত হয়নি।

স্থল বন্দরের পন্য আমদানী কমে যাওয়ার ব্যাপারে কাস্টমসের সাথে যোগাযোগ করে জানা যায়, সোনামসজিদ বন্দরে কাস্টমস কর্তৃক শত ভাগ রাজস্ব আদায়ের কারণে সুবিধাভোগী ব্যবসায়ীরা অন্য বন্দরে সুযোগ সুবিধা পাওয়ায় ঐ সব বন্দর দিয়ে পন্য আমদানী করছে।

গত কয়েকদিনে গিয়ে বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে যোগাযোগ করে স্থলবন্দরে বাণিজ্যিক গতিশীলতার কমে যাওয়া ও বৃদ্ধি ক্ষেত্রে উপরোক্ত তথ্যাদি পাওয়ায়।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button