খেলাধুলা

১ রান নিয়ে ৩ বলে ৪ উইকেট হারালো রংপুর

সংবাদ চলমান ডেস্ক : ইনিংসের তখন বাকি ৩টি বল। বাজে শুরুর পর ঘুরে দাঁড়িয়ে রংপুর রেঞ্জার্সের সংগ্রহ তখন ৫ উইকেটে ১৪৭ রান। উইকেটে ছিলেন সেট ব্যাটসম্যান জহুরুল ইসলাম ও নতুন আসা নাদিফ চৌধুরী। শেষ তিন বলে যত বেশি সম্ভব রানের চাহিদাই ছিলো রংপুরের।

শেষ তিন বলে রংপুরের রানের খাতায় যোগ হয় ১টি মাত্র রান, সেটিও ওয়াইডের বদৌলতে। বিনিময়ে সাজঘরে ফেরেন ৪ জন ব্যাটসম্যান। শুনতে অদ্ভুত মনে হলেও, শেষের ৩ বলে ৪টি উইকেটই হারিয়েছে রংপুর রেঞ্জার্স। যার ফলে দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯ উইকেটে ১৪৮ রান।

থিসারা পেরেরার করা ইনিংসের শেষ ওভারের চতুর্থ বলে স্কুপ খেলার চেষ্টা করেছিলেন জহুরুল হক। কিন্তু লো ফুলটস ডেলিভারিটিতে ব্যাট ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। যার ফলে তা সরাসরি আঘাত হানে অফস্টাম্পে। ২৪ বলে ২৮ রান করে ফিরে যান জহুরুল।

পরের বলে উইকেটে আসেন তাসকিন আহমেদ। থিসারার করা ইয়র্কার লেন্থের ডেলিভারিতে করার কিছুই ছিলো না আনাড়ি ব্যাটসম্যান তাসকিনের। জহুরুলের মতো তিনি বোল্ড হয়ে যান সরাসরি। দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান থিসারা।

তবে মোস্তাফিজুর রহমানের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক বলে ওয়াইড ডেলিভারি করে সেই সুযোগ হেলায় হারান থিসারা। সেই বলটিতে অবশ্য আউট ঠিকই হয়েছিলেন মোস্তাফিজ। ওয়াইড ডেলিভারিটি উইকেটরক্ষকের গ্লাভসে যাওয়ার আগেই ননস্ট্রাইক প্রান্ত থেকে বেরিয়ে আসেন নাদিফ, কিন্তু সেভাবে প্রস্তুত ছিলেন না মোস্তাফিজ। সহজ সুযোগ পেয়ে বোলিং প্রান্তে তাকে রানআউট করেন পেরেরা। উইকেট পড়লেও ওয়াইড থেকে ১টি রান পায় রংপুর।

পরে শেষ বলে আবারও রানআউট হয় রংপুরের ইনিংসে। এবার থিসারার ফুল লেন্থের ডেলিভারি লংঅনে ঠেলে দিয়ে রান নেয়ার জন্য দৌড়ান নাদিফ। কিন্তু অপর প্রান্তে আরাফাত সানির আলসেমির সুযোগ নিয়ে তাকে রানআউট করে দেন ঢাকার উইকেটরক্ষক এনামুল হক বিজয়। যার ফলে শেষ তিন বলে ওয়াইডের কল্যাণে পাওয়া ১ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট হারায় রংপুর।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button