খেলাধুলা

‘রাসেল ঝড়ে’ রাজকীয় কায়দায় ফাইনালে রাজশাহী

সংবাদ চলমান ডেস্ক: পাওয়ার প্লে’তে রাজশাহীর শুরুর তেজ শেষ! ৩৪ রানে নেই ৩ উইকেট। শুরুর ১০ ওভারে স্কোরবোর্ডে জমা ৩ উইকেটে ৬৪। ম্যাচ জিততে শেষ ৪২ বলে রাজশাহী রয়্যালসের প্রয়োজন দাড়ায় ৮৭ রান। রান ও বলের সেই বিশাল ব্যবধান। আন্দ্রে রাসেলের জন্য ব্যাটিং মঞ্চ প্রস্তুত ছিল। বিগ হিটার খ্যাত রাসেল নামলেন। এবং ব্যাট হাতে যা করলেন তাকে বলে ঝড়!

ছক্কা-চারের ঝড়। সেই ঝড়েই উড়ে গেল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন। ২ উইকেটে ম্যাচ জিতে বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনালে উঠে এলো রাজশাহী রয়্যালস। ১৭ জানুয়ারির বঙ্গবন্ধু বিপিএলের সেই ফাইনালে তাদের জন্য অপেক্ষা করছে খুলনা টাইগার্স।

সত্যিকার অর্থেই রয়্যালসরা রাজকীয় কায়দায় এই ম্যাচ জিতে ফাইনালে খেলছে। ২২ বলে হার না মানা ৫৪ রান করে আন্দ্রে রাসেল অবিস্মরনীয় কায়দায় প্রায় একা হাতে দলকে ফাইনালে তুলে আনলেন। ৭ ছক্কা ও ২ বাউন্ডারিতে ম্যাচ জয়ী ইনিংস খেলে আন্দ্রে রাসেল জানিয়ে দিলেন- টার্গেট যতই অসম্ভব হোক না কেন, ব্যাট হাতে তিনি দুর্বার!

চট্টগ্রামের ইনিংসে ২৪ বলে ৬০ রান করে ক্রিস গেইল ধামাকা তুলেছিলেন। রাজশাহীর ইনিংসে তার স্বদেশি আন্দ্রে রাসেলের ব্যাটিং সেই হিসেবও চুকিয়ে দিল।

অথচ ব্যাটিংয়ের শুরুটা এই ম্যাচে রাজশাহী রয়্যালসকে প্রায় ডুবিয়ে দিয়েছিল। প্রচুর ডটবল এবং ধীরগতির ব্যাটিংয়ে ম্যাচের কোন সময় রাজশাহী জয়ী অবস্থানে ছিল না। ৩৪ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর ইরফান সুকুর ও শোয়েব মালিক চতুর্থ উইকেট জুটিতে যে গতিতে ব্যাট করেন সেটা রাজশাহীর সমস্যা আরো বাড়িয়ে দেয়। এই জুটিতে রাজশাহী পায় ৪৬ বলে ৪৬ রান। ততক্ষনে প্রয়োজনীয় রানরেট অনেক বেড়ে গেছে। ইরফান সুকুর যে স্ট্রাইক রেটে রান করেন সেটাও যে টি- টোয়েন্টির ষ্টাইলের সঙ্গে সাযুজ্যপূর্ণ নয়।

রাজশাহীর স্বপ্ন দেখছিল-রানরেট যত বেশিই থাকুক না কেন আন্দ্রে রাসেল এসে উদ্ধার করে দেবেন। ব্যাট হাতে সেই মিশনই সম্পন্ন করলেন রাসেল।

শেষ ৩৬ বলে চাই ৮৩ রান। অতো বিপুল রানের চাহিদা মেটাতে রাজশাহী রয়্যালসের প্রয়োজন ছিল শেষের এক ঝড়ের। রুবেল হোসেনের তৃতীয় এবং ইনিংসের ১৬ নম্বর ওভারে রাসেল ও মোহাম্মদ নওয়াজ মেরেকেটে ১৯ রান আদায় করেন। দুই ছক্কা, ১ বাউন্ডারি ও তিন সিঙ্গেলসে রুবেল হোসেনের খরুচে সেই ওভারে ম্যাচে ফিরে আসার শক্তি পায় রাজশাহী রয়্যালস। রায়াদ এমরিত তার শেষ ওভারে দুই উইকেট পেলেও খরচা করেন ২০ রান। আর ম্যাচ জয়ের আসল কাজটা করলেন আন্দ্রে রাসেল মেহেদি হাসান রানার শেষ ওভারে। ইনিংসের ১৯ নম্বর সেই ওভার থেকে রাজশাহী তুলে নিল ২৩ রান।

শেষ ওভারে ম্যাচ জিততে চাই ৮ রানের। অ্যাসেলা গুনেরত্নের তৃতীয় বলে ম্যাচের নিজের সাত নম্বর ছক্কা হাঁকিয়ে আন্দ্রে রাসেল রাজশাহীকে তুলে দিলেন বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনালে।

আরেকবার প্রমানিত হলে-ক্রিকেটে আসলে শুরুটা নয়, শেষটাই আসল!

সংক্ষিপ্ত স্কোর: চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ১৬৪/৯ (২০ ওভারে, গেইল ৬০, মাহমুদউল্লাহ ৩৩, গুনেরতেœ ৩১, নওয়াজ ২/১৩, আফিফ ১/২০, কাপালি ১/১৯)। রাজশাহী রয়্যালস: ১৬৫/৮ (১৯.২ ওভারে, ইরফান সুকুর ৪৫, শোয়েব মালিক ১৪, রাসেল ৫৪, রুবেল ২/৩২, এমরিট ২/৪১)। ফল: রাজশাহী রয়্যালস ২ উইকেটে জয়ী। ম্যাচ সেরা: আন্দ্রে রাসেল।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button