খেলাধুলা

আজ বঙ্গবন্ধু বিপিএল, শুরু হচ্ছে ব্যাট-বলের লড়াই

যেন সবুজ গালিচা। দূর থেকে দেখে বুঝবার উপায় নেই, দিন তিনেক আগে এই গালিচার ওপর দিয়ে কী ঝড়টাই না বয়ে গেছে। উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে হয়েছে কনসার্ট, নাচগানের জন্য সাজানো হয়েছিল বিশালকায় এক মঞ্চ। মঞ্চের সামনে পাতা হয়েছিল সারি সারি চেয়ার, হাজারো মানুষের সমাগম আর হইহুল্লোড়, মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের সবুজ গালিচাটাকে যথেষ্টই ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। চেয়ারগুলো নেই, নেই মঞ্চটাও। তবে হোম অব ক্রিকেটের বুকে ক্ষতচিহ্নগুলো ঠিকই রয়ে গেছে। এরই মধ্যে আজ শুরু হচ্ছে ব্যাট-বলের ধুমধাড়াক্কা লড়াই।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এবারের বিপিএলকে তাঁর নামে উৎসর্গ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’ নাম পাওয়া টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টটা এবার পুরোপুরিই বিসিবি তত্তাবধান করবে। দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি নিজেদের জৌলুস দেখানোর জন্য বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করেছে বর্ণাঢ্য আয়োজনে, রোববার ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনদিন পর আজ বুধবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর দেড়টায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স আর সিলেট থান্ডারের ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াচ্ছে বিপিএলের বিশেষ এই সংস্করণ।

রাত পোহালেই যে ময়দানে বিপিএলের ব্যাট-বলের লড়াই শুরু, স্টেডিয়ামের বাইরে থেকে দেখে তার কিছুই বোঝার উপায় নেই। স্টেডিয়াম সংলগ্ন বুথে টিকেট বিক্রি হচ্ছে মাইকিং করে, একাডেমি মাঠে সারাদিন দলগুলোর শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি এবং লঙ্কান কিউরেটর গামিনি ডি সিলভা আর তার বাহিনীর মাঠ পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত থাকার বিষয়টা বাদ দিলে মঙ্গলবার বোঝার উপায় ছিল না, কয়েক ঘণ্টা পর এখানেই ঘরোয়া ক্রিকেটের সবথেকে জৌলুসপূর্ণ আসরটি শুরু হবে। প্রাণচাঞ্চল্য কম, যেন দায়সারা গোছের আয়োজন! সবচেয়ে দৃষ্টিকটু ছিল সন্ধ্যায় অধিনায়কদের অফিসিয়াল ফটোসেশন।

বিশেষ বিপিএল, এই বিপিএলকে ত্রুটিমুক্ত রাখতে বিসিবি তৎপর। কিন্তু উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ‘ক্রিকেট বিবর্জিত’ হওয়ায় তা যথেষ্টই সমালোচনা জন্ম দিয়েছে।

সমালোচনার জন্ম দিল মঙ্গলবার অধিনায়কদের ফটোসেশন পর্বও। ঘড়ির কাঁটা তখন প্রায় ৬টা ছুঁই ছুঁই। পাঁচ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম (খুলনা টাইগার্স), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স), মোসাদ্দেক হোসেন (সিলেট থান্ডার), আন্দ্রে রাসেল (রাজশাহী রয়্যালস), দাসুন শানাকার (কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স) সঙ্গে ঢাকা প্লাটুনের প্রতিনিধি হিসেবে হাজির হলেন মুমিনুল হক। ঢাকা প্লাটুনের তবু প্রতিনিধি ছিল, রংপুর রেঞ্জার্সের সেটাও থাকল না। উপস্থিত ছিলেন না দলটির কেউই।

অধিনায়কদের ফটোসেশনে ছিল না ট্রফিটাও! সব অধিনায়কদের এক জায়গায় করা হলো, অথচ ট্রফি উন্মোচন পর্বটা রাখা হয়নি! বিষয়টা বিস্ময়ই। অনুষ্ঠানটা কি আরেকটু গুছিয়ে, আরেকটু পরিকল্পিতভাবে করা যেত না, এমন প্রশ্ন ছিল বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজনের কাছে। তিনি গোটা বিষয়টার একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করালেন এই বলে, ‘আজ প্রতিটি দলের অনুশীলন ছিল। কিছু সীমাবদ্ধতার কারণে অধিনায়কদের কেউ কেউ আসতে পারেনি।

তবে আমরা সবাইকে জানিয়েছিলাম। সবার কথা ভেবে, আপনাদের (সংবাদকর্মী) কথাও ভেবে শুরু করে দিলাম।’
এত এত প্রশ্নবিদ্ধ কাজের ভিড়ে এবারের আসরে অংশ নিতে যাওয়া সাত দল কিন্তু ব্যস্ত মাঠের লড়াইয়ে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের প্রস্তুতিতে। স্টেডিয়াম সংলগ্ন একাডেমি মাঠ হয়ে উঠেছে ক্রিকেটারদের মিলনমেলা। সংবাদ সংগ্রহে সংবাদকর্মীরাও ভিড় জমাচ্ছেন সেখানে।

শেষবেলায় দলগুলোর জার্সি উন্মোচন করা হচ্ছে, সেখানেও ছুটতে হচ্ছে তাদের। অন্যদিকে দিনভর চলছে অনুশীলন। এ বেলা এই দল তো ওবেলা অন্য দল। একইসঙ্গে গাদাগাদি করে দুই-তিনটি দল অনুশীলন করছে। জার্সির ভিন্নতা না থাকলে দূর থেকে বোঝার উপায় ছিল না, একাধিক দলের অনুশীলন একই সময়ে চলছে।

দল সাতটি হলেও অনুশীলনের মাঠ এই একটিই, তাই দলগুলোর অনুশীলনের সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এতে বিদেশি যেসব তারকা ক্রিকেটার বিপিএলে খেলতে এসেছেন, তাদের সামনে বিসিবির দীনতাই প্রকাশ পাচ্ছে।

এদিকে অবশ্য নজর নেই কারও। আপাতত বিসিবি কর্তাদের বেশিরভাগই ব্যস্ত নিজ নিজ দল সামলানো নিয়ে। যেহেতু বিসিবির তত্ত¡াবধানে এই বিশেষ বিপিএল, সব দলের তদারকির ভার বর্তেছে বিসিবি কর্তাদের ওপর। পৃষ্ঠপোষকদের সঙ্গে নিয়ে তারাই দল পরিচালনা করছেন। দুটো দলের পৃষ্ঠপোষকই ছিল না।

বিসিবি সরাসরি সেগুলোর তদারকি করেছে। ওই দুটো দলের একটি রংপুর রেঞ্জার্স আবার এরইমধ্যে স্পন্সর পেয়ে গেছে। স্পন্সর হয়েছে ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস।
ইনসেপটার মালিক এনায়েত হোসেন সিরাজ বিসিবির পরিচালকও।

রংপুর রেঞ্জার্সের দায়িত্ব সামলাবেন তিনিই। শুরুতে এই দায়িত্বটা পেয়েছিলেন বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান। এই বিষয়টা নিয়েও বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে রংপুরের জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে সিরাজ বললেন, ‘এটা আসলে ঘটনাচক্রে হয়েছে। যেহেতু আমি ইনসেপটার মালিক, আমাদের দলও যখন এই টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে, সেখানে আমার তো ভ‚মিকা থাকবেই।

এই দলে আকরাম ছিল, আমি ছিলাম রাজশাহীতে। রাজশাহীতে কে যাবে সেটা জানি না, তবে আকরাম আমার সঙ্গেই থাকবে। আমাকে বোর্ড থেকে এমনটাই বলা হয়েছে।’

সে যাই হোক, বঙ্গবন্ধু বিপিএলে শুরুটা দারুণভাবে করতে চায় রংপুর রেঞ্জার্স। আফগান অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবির নেতৃত্বাধীন দলটি আজ সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের মুখোমুখি হবে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button