আন্তর্জাতিক

লোকসভায় মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব বিল পাস

সংবাদ চলমান ডেস্ক:
কংগ্রেসসহ বিরোধী দলগুলোর প্রবল আপত্তি এবং উত্তর-পূর্বে ব্যাপক বিক্ষোভকে উপেক্ষা করেই পাস হলো নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল।

সোমবার (৯ ডিসেম্বর) লোকসভায় ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বিলটি পেশ করেন। পরে ৯০ মিনিট ধরে চলা উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের পর ২৯৩-৮২ ভোটের ব্যবধানে এটি পাস হয়। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিলটিকে ‘মুসলিমবিরোধী’ আখ্যা দেয়া হয়েছে।

এদিন শুরুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বিলটি পেশ করেন। বিলটি সংখ্যালঘুদের বিপক্ষে নয় বলে এদিন স্পষ্ট করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ২০১৯-এর বিরুদ্ধে সরব বিরোধী শিবির।

এই বিলকে বিজেপির ‘বিভাজনের রাজনীতির’ কৌশল বলে তোপ দেখেছে বিরোধিরা।

এর আগে সোমবার ‍দুপুরে বিলটি সংসদের উত্থাপন করেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি বিলটির পক্ষে নানান যুক্তি তুলে ধরেন।

পাশাপাশি ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে প্রতিবাদ বন্ধ করার আহ্বানও জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘সব উদ্বেগের সমাধান করা হয়েছে। আমরা উত্তর-পূর্বের নাগরিকদের সামাজিক ও ভাষাগত স্বাতন্ত্র্যকে রক্ষা করব। কারও ভয় পাওয়ার প্রয়োজন নেই। আমরা যথেষ্ট করেছি। প্রতিবাদ এবার বন্ধ হওয়া দরকার।’

তার দাবি, বিল সংসদে পেশ করার আগে ১৪০টি বেসরকারি সংস্থা ও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কথা তিনি বলেছেন। উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলোর মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও ১১৯ ঘণ্টা ধরে কথা বলেছেন।

শুরু থেকেই বিলটির তীব্র বিরোধীতা করছে কংগ্রেসসহ বেশ কয়েকটি দল। তাদের দাবি, এই বিল ভারতের সংবিধানের মূল চরিত্র ধর্মনিরপেক্ষতায় আঘাত। ধর্মের নামে বিভাজন তৈরি করা হচ্ছে।

ভারতেন সংখ্যালঘুদের লক্ষ্য করেই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল আনা হয়েছে মন্তব্য করে লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী ববলেন, এই বিলের মাধ্যমে সংবিধানের সমানাধিকার সংক্রান্ত ১৪ ধরার লঙ্ঘন করা হয়েছে।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে বিলের কপি ছিঁড়ে ফেলেন হায়দ্রাবাদের সাংসদ আসাদুদ্দিন ওয়াইসি। তিনি বলেন, ‘এটা দেশকে ভাগ করার প্রচেষ্টা। প্রস্তাবিত আইনটি আমাদের দেশের সংবিধানের বিরোধী।’

অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন-এর এই নেতা দাবি করেন, এই নাগরিকত্ব বিল আরও একবার দেশভাগের কথা বলছে। এটা করা হচ্ছে মুসলিমদের রাষ্ট্রহীন করার জন্য।

এই বিল নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, অর্থনৈতিক মন্দা থেকে জনগণের দৃষ্টি সরাতেই কেন্দ্র এই বিলটি সামনে এনেছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জি একই মুদ্রার দু’টি দিক। আমরা পশ্চিমবঙ্গে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের পরিচালনা করতে দেব না।

অবশ্য এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন অমিত শাহ।

গত ৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান থেকে নির্যাতিত হয়ে ভারতে আসা অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে ‘নাগরিকত্ব (সংশোধনী) বিল-২০১৯’ অনুমোদন দেয় দেশটির কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

বিলটি ভারতের সংসদের দুইকক্ষে পাস হলে প্রতিবেশী এসব দেশের হিন্দু, খ্রিস্টান, শিখ, জৈন, বৌদ্ধ ও পার্সী এই ৬টি সম্প্রদায়ের মানুষ ভারতীয় নাগরিকত্ব পাবে।

এর আগে ২০১৬ সালে আনা ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল’ বিগত লোকসভায় পাস করতে পারলেও সংখ্যাগরিষ্ঠতার অভাবে রাজ্যসভায় তা পাস করতে পারেনি মোদি সরকার। আবার ক্ষমতায় এসে নতুন করে তা পাসের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button