আন্তর্জাতিক

যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন গভীর সংকটে রয়েছে

চলমান ডেস্ক: যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন একটি গভীর সংকট মুহূর্তে রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘের রাষ্ট্রদূত মার্টিন গ্রিফিথ। মারিব প্রদেশে ভ্রমণের সময় তিনি এ কথা বলেন।

মার্টিন গ্রিফিথ বলেন, আমার বিবেচনায় ইয়েমেন একটি গভীর সংকট মুহূর্তে রয়েছে। সম্প্রতি ভয়াবহ সংঘর্ষের ফলে প্রায় ১০ হাজার ইয়েমেনি উত্তরের প্রদেশ আল-জাওফ থেকে পালিয়ে গেছে। আমরা যুদ্ধ বন্ধ এবং একটি রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় যেতে চায়। যদি এরকমটা না করতে পারি তাহলে সামনের দিকে আরও বড় আকারের সংঘাত দেখা দিবে।

তিনি আরও বলেন, যুদ্ধ এখনি বন্ধ করা উচিত। সামরিক হঠকারীরা অঞ্চলটি দখলে ব্যর্থ হয়েছে। আর এই সংঘাত ইয়েমেনকে আরও বহু বছরের যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে ইয়েমেনের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে হুতি বিদ্রোহীদের ব্যাপক লড়াইয়ের পর আল-হাজম দখল করে নেয় ইরান সমর্থিত হুথিরা। যার ফলে ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলে আবার সহিংসতা বৃদ্ধি পেয়েছে। অঞ্চলটিতে যুদ্ধরত রাজনৈতিক দলগুলোর আলোচনা ব্যর্থ হওয়ার পর সংঘাতের পরিমাণ আরও বেড়ে যায়।

রেড ক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটি (আইসিআরসি) জানায়, যুদ্ধরত পক্ষগুলোর মধ্যে লড়াইয়ে কয়েক হাজার মানুষ আল-জাওফ থেকে মারবি প্রদেশে পালিয়ে গেছে।

শনিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) আইসিআরসি ও ইয়েমেনের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি থেকে এক যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়, লড়াইয়ের পর থেকে আমরা প্রায় ৭০ হাজার মানুষকে খাবার, তাঁবু, কম্বল ও বিভিন্ন স্বাস্থ্যকর কীট দিয়ে সহায়তা করেছি। কিন্তু আল-জাওফের সরকারি সংঘর্ষ বৃদ্ধির ফলে রোগী এবং অভাবীদের সাহায্য করার প্রচেষ্টা ব্যাহত হচ্ছে।

গত সপ্তাহে জাতিসংঘের মানবিক সমন্বয় সংস্থা ওসিএইচএ জানিয়েছিল, পহেলা মার্চ পর্যন্ত কমপক্ষে ২ হাজার ১০০ পরিবার মারিবে পৌঁছেছে।

২০১৪ সালে সানা দখলের পর থেকে ইয়েমেনের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতপ্রাপ্ত সরকার হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে।

২০১৫ সালের মার্চ থেকে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীদের ওপর হামলা চালিয়ে আসছে। ইয়েমেনের যুদ্ধে এ পর্যন্ত দেশটিতে প্রায় ১০ হাজার বেসামরিক নাগরিক মারা গেছে। এছাড়া বাস্তুচ্যুত হয়েছে কয়েক মিলিয়ন ইয়েমেনি। জাতিসংঘের মতে, বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে ভয়াবহ মানবসৃষ্ট মানবিক বিপর্যয় ঘটেছে ইয়েমেনে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button