আন্তর্জাতিক

মহানবীকে (সা.) নিয়ে কটূক্তি, পাকিস্তানে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের ফাঁসির আদেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক – মহানবী হযরত মুহম্মদ (সা.)-এর বিরুদ্ধে কটূক্তির অভিযোগে পাকিস্তানে জুনায়েদ হাফিজ নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন দেশটির আদালত।

শনিবার মুলতানের কেন্দ্রীয় কারাগারে এক আদালতে ওই রায় দেয়া হয়। খবর দ্য ডনের।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ইসলামের মহানবীকে অসম্মান করার অভিযোগে ৩৩ বছর বয়সী সাবেক লেকচারার জুনায়েদ হাফিজকে শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন মুলতানের জেলা ও সেশন কোর্টের বিচারক।

মুলতানে বাহাউদ্দিন জাকারিয়া ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজি সাহিত্য বিভাগে ভিজিটিং লেকচারার ছিলেন তিনি। ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ২০১৩ সালের ১৩ মার্চ তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বিচারকাজ শুরু হয় ২০১৪ সালে।

ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার কারণে তিনি ধর্ম অবমাননার অভিযোগে অভিযুক্ত হন বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। এ অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড এবং ৫ লাখ রুপি জরিমানা করেন অতিরিক্ত সেশন জজ কাশিফ কাইয়ুম।

জরিমানা অনাদায়ে তাকে আরও ৬ মাস জেলে থাকতে হবে। নিউ সেন্ট্রাল জেল মুলতানে উচ্চ নিরাপত্তাসংবলিত ওয়ার্ড নম্বর দুইয়ে রাখা হয়েছে হাফিজকে।

এর আগে ২০১৪ সালের মে মাসে কট্টরপন্থীরা প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়ে হাফিজের প্রথম আইনজীবীর অফিসে ঢুকে তাকে গুলি করে হত্যা করে। হাফিজের বর্তমান আইনজীবী নিজেও কট্টরপন্থীদের হুমকির মুখে রয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি আল-জাজিরাকে জানিয়েছেন, রায়ের বিরুদ্ধে তিনি লাহোর হাইকোর্টে আপিল করবেন। তার আশঙ্কা, এমন বাস্তবতায় কোনও বিচারক ন্যায়বিচার করার ঝুঁকি নেবে না।

সরকার পক্ষের আইনজীবীরা এই রায়ের পর ‘আল্লাহু আকবার’ স্লোগান দিয়ে সহকর্মীদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন। রায়ের পর যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, এই রায় ন্যায়বিচার পরিপন্থী। এতে তারা অত্যন্ত হতাশ।

এ বছরের শুরুতে সাবেক প্রধান বিচারপতি আসিফ সাঈদ খোসার কাছে সন্তানকে মামলা থেকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন হাফিজের পিতামাতা। তারা ছেলের মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button