আন্তর্জাতিক

আগামী সপ্তাহে ইরানের নির্বাচনে কী হতে যাচ্ছে?

চলমান ডেস্ক: আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি ইরানের পার্লামেন্ট নির্বাচন। এ উপলক্ষে দেশটিতে চলছে প্রচার-প্রচারণা। ভোটাররা বলছেন, অর্থনীতি সংস্কারসহ যারা ইরানের সার্বিক উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেবেন, নির্বাচনে তারাই জয়ী হবেন।

তবে বিভিন্ন অভিযোগে এরই মধ্যে নির্বাচনী দৌড় থেকে ছিটকে পড়েছেন বহু সংস্কারপন্থী।

ছাপাখানার এমন খটখট আওয়াজ এখন তেহরানসহ ইরানের বিভিন্ন জায়গায়। আসন্ন পার্লামেন্ট নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের পোস্টার, স্টিকার ছাপাতে ব্যস্ত দেশটির মুদ্রণ শ্রমিকরা। দিন-রাত পরিশ্রম করেও ক্রেতাদের ফরমায়েশ পূরণ করতে পারছেন না তারা। অন্যদিকে নানা উপায়ে ভোটারদের মন জয়ে ব্যস্ত প্রার্থীরা।

প্রার্থীদের নানা প্রতিশ্রুতির বিপরীতে ভোটাররাও মেলাচ্ছেন সমীকারণ। নানা অজুহাতে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে ইরানের ভঙ্গুর অর্থনীতি সংস্কারের দিকেই নজর তাদের।

তারা বলছে, চলমান নিষেধাজ্ঞা মোকাবিলায় কিছু করতেই হবে। ক্ষমতাসীনরা সাধারণ মানুষের কোনো উন্নতি করতে পারেনি। একজন শ্রমিক হিসেবে আমি বলতে পারি, দিন দিন আমার অবস্থা খারাপ হচ্ছে, ক্রয় ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে। আমি এই অবস্থার পরিবর্তন চাই।

প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়িতেও নাখোশ অনেকে। আসন্ন নির্বাচনে যারা জয়ী হবেন, তারা কথার চেয়ে কাজে বেশি মনোযোগী হবেন বলেও আশা সাধারণ ভোটারদের।

ভোটাররা বলছে, তারা অনেক ভালো কথা বলেন, অনেক প্রতিজ্ঞা করেন। কিন্তু পরবর্তীতে কিছুই বাস্তবায়ন করতে পারেন না।

অনেক ভোটার আবার জানান, নারী স্বাধীনতাসহ কট্টর বিধানের বিরুদ্ধে রায় দিতে এই নির্বাচনকে বেছে নিয়েছেন তারা।

তারা বলছে, যেসব নারী অবাধে স্টেডিয়াম কিংবা কনসার্টে যেতে চান, তাদেরকে বলবো ভোট দিতে যেতে। নারীদের অধিকার আদায়ের জন্য এই নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

বিভিন্ন অভিযোগের কারণে নির্বাচন থেকে বর্তমান পার্লামেন্টের ৯০ সদস্যসহ প্রায় সাত হাজার সংস্কারপন্থী প্রার্থী বাদ পড়েছেন। এ কারণে ইরানি পার্লামেন্ট আবারো কট্টরপন্থীদের দখলে যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

২১শে ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে ২৯০টি আসনের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন সাত হাজারের বেশি প্রার্থী। প্রায় ছয় কোটি ভোটার তাদের পছন্দের পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচন করার সুযোগ পেলেও ইরানের পররাষ্ট্রসহ গুরুত্বপূর্ণ নীতিতে তেমন পরিবর্তন আসবে না বলেই ধারণা করা হচ্ছে। কারণ দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনিই একক ক্ষমতাবলে গুরুত্বপূর্ণ সব সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button