রাজশাহী সংবাদ

লিটন- ডাবলু, নগর আ.লীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক হিসেবে পুন:নির্বাচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:  এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও ডাবলু সরকার রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পুন:নির্বাচিত হয়েছেন। আজ রোববার মহাগরীরর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে তারা নির্বাচিত হন।
এর আগে বেলা ১১ টায় দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন সম্মেলনের প্রধান অতিথি কেন্দ্রীয় আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নানক জাহাঙ্গীর কবির, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভাপতি মন্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান, তথ্য মন্ত্রী ড: হাসান মাহমুদ, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও হুইপ সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদ সদস্য আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ উপদেষ্টা ড: আব্দুল খালেক ও ড: সাইদুর রহমান খান, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডু ও আখতার জাহান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সুবিধাবাদীদের আওয়ামী লীগে জায়গা নেই। সুবিধাবাদীদের দরকার নেই। তারা সুসময়ে আছে, দুঃসময় এলে এরা পালিয়ে যাবে। যার যার পছন্দের লোককে নেতা বানাবেন? আর সেই নেতারা বিপদের দিনে সাইবেরিয়ার পাখির মতো পালিয়ে যাবে। এই ধরনের আমাদের দলে দরকার নেই। আজকে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের দিয়ে আওয়ামী লীগকে নতুন করে ঢেলে সাজাতে হবে।
তিনি বলেন, যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বাস করেন তাহলে আমি বলে যেতে চাই দুর্নতিকে না বলুন, সন্ত্রাসকে না বলুন, চাঁদাবাজিকে না বলুন, মাদকাসক্তিকে না বলুন। যদি আদর্শের অনুসারী হন, তাহলে সেবার আদর্শ নিয়ে এগিয়ে যাবেন। মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে। মুজিবাদর্শে আমাদের শপথ হবে, আমরা ত্যাগের মহিমায়, ভোগের লিপ্সা পরিহার করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা গড়ে তুলব। আমরা আওয়ামী লীগে কোনো সুবিধাবাদী , দুর্নীতবাজ সন্ত্রাসীকে জায়গা দেব না। এক সময় রাজশাহীতে ১০০ জন কর্মী খুঁজে পেতাম না। একটি কর্মীসভা করার জন্য। আজকে হাজার হাজার নেতাকর্মী তারুন্যের উচ্ছ্বল আলোয় উদ্ভাসিত এ সম্মেলন কেন্দ্র। আধুনিকতার সঙ্গে বাস্তববাদিতার সংমিশ্রন ঘটিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে সামনের দিকে। আজকে কেউ নিজস্ব বলয়, নিজস্ব সিন্ডিকেট সৃষ্টি করতে পারবেন না। ঘরের মধ্যে ঘর করা যাবে না। মশারির মধ্যে মশারী খাটানো যাবে না। দুঃসময়ের ত্যাগী কর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। আওয়ামী লীগের ভালোর লোকের অভাব নেই।

মন্ত্রী কবিতার ছলে বলেন, আবার যদি ইচ্ছে করে আবার আসিব ফিরে দুঃখ সুখের ঢেউ খেলানো পদ্মা নদীর তীরে।
সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন।
এছাড়াও সম্মানিত অতিথি হিসেবে ছিলেন, সংসদ সদস্য রাজশাহী-১ আলহাজ ওমর ফারুক চৌধুরী,সংসদ সদস্য রাজশাহী-৩ আয়েন উদ্দিন, সংসদ সদস্য রাজশাহী-৪ ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক,সংসদ সদস্য রাজশাহী-৫ ডা: মুনসুর রহমান, প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, সংরক্ষিত সংসদ সদস্য আদিবা আনজুম মিতা, রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্রা ও সাধারন সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button