রাজশাহী সংবাদ

রাবিতে ছিনতাইকালে বহিরাগতকে মারধর করে পুলিশে সোপর্দ

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) এক শিক্ষার্থীর মোবাইল ছিনতাই চেষ্টাকালে এক বহিরাগতকে মারধর করে পুলিশে দিয়েছে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুন্নুজান হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেলে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে রামেকে ভর্তি করা হয়।

বহিরাগত যুবক ফয়সাল উদ্দীন রাহাত মেহেরচন্ডী পূর্বপাড়ার রহিজ উদ্দীনের ছেলে। তিনি নিজেকে বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী এবং ২৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কর্মী দাবি করেন। তবে ২৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ বলছে, ফয়সাল ছাত্রলীগের কেউ নয়।

ছিনতাইয়ের শিকার মার্কেটিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুবেল কাজী বলেন, ‘আমি তৃতীয় বিজ্ঞান ও রবীন্দ্র ভবনের মাঝের রাস্তা দিয়ে মোবাইলে চ্যাটিং করতে করতে টুকিটাকির দিকে যাচ্ছিলাম। এমন সময় চারুকলার দিক থেকে (পিছন থেকে) দ্রুত গতিতে একটি মোটর সাইকেল আসে।

তাতে থাকা দুই যুবকের মধ্যে পেছনে থাকা যুবক থাবা দিয়ে আমার হাত থেকে মোবাইল কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে। ছিনতাই চেষ্টায় ব্যর্থ হলেও আমার হাত থেকে মোবাইলটি পড়ে যায়। এসময় তারা মোটর সাইকেল নিয়ে লাইব্রেরির রাস্তা হয়ে প্যারিস রোডের দিকে চলে যায়।’

‘তাদের ধরতে তিনি মুন্নুজান হলের দিকে দৌড়ে যান। এবং তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি তার বন্ধু ফেরদৌস মো. শ্রাবণকে জানান। ছিনতাইকারীরা প্যারিস রোড ঘুরে এসে মুন্নুজান হলের সামনের অবস্থান করছিল। এসময় তাদের ধরতে সক্ষম হন ফেরদৌস।

তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে ছিনতাইকারী ফেরদৌসকে পাশে রাখা বাঁশ দিয়ে মারতে উদ্যত হয়। পরে ফেরদৌসের সহযোগীরা ওই বাঁশ দিয়েই ছিনতাইকারীকে মারধর করে বলে জানান রুবেল কাজী।’

তিনি আরো জানান, ‘চালক মোটর সাইকেল রেখে পালিয়ে যাওয়ায় আপাতত সেটি টুকিটাকি চত্বরে রাখা হয়েছে। শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর কাছে চাবিটি গচ্ছিত রয়েছে।’

ফেরদৌস দাবি করেন, ‘ঘটনাটি জানার পর আমরা চারদিক ছড়িয়ে পড়ি। যেহেতু তার মোটর সাইকেলটি উচ্চ শব্দ সম্পন্ন ছিলো তাই সেটাকে শনাক্ত করতে সুবিধা হয়েছে। পরে আমরা সেখানে গিয়ে তাকে আটক করি। এসময় ছিনতাইকারী উদ্ধতপূর্ণ আচরণ করে মারতে আসে। পরে ঘটনাস্থলে সে মারধরের শিকার হয়।’

তবে ছিনতাইয়ের কথা অস্বীকার করে মারধরের শিকার ফয়সাল উদ্দীন রাহাত বলেন, ‘‘এখানে আমার এক বন্ধুর সাথে দেখা করতে এসেছিলাম। আমি মোটর সাইকেলে বসে অপেক্ষা করছিলাম। হঠাত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এসে আমার মোটর সাইকেলের চাবি খুলে নেয়।

চাবি খুলে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে ‘ছিনতাইকারীর সাথে কিসের কথা’ এই কথা বলে তারা আমাকে মারধর করতে শুরু করে। আমাকে কোন কথা বলার চান্স না দিয়ে আমাকে সবাই মিলে বাঁশ দিয়ে বেধরক মারধর শুরু করে। আমি কোনভাবেই ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত নই।’’

সরেজমিনে দেখা যায়, আহত যুবককে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের জরুরি বিভাগে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে শুইয়ে রাখা হয়েছে। তার মাথায় ব্যান্ডেজ করা হয়েছে। ব্যান্ডেজে রক্ত জমে রয়েছে। মুখে ও শরীরের বিভিন্ন মারধরের চিহ্ন দেখা যাচ্ছে।

জানতে চাইলে ২৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি রুহুল আমিন সরকার প্রিন্স বলেন, ‘ফয়সালকে চিনি। সে আমার এলাকার। তবে সে আমাদের ছাত্রলীগ কমিটিতেও নেই এবং কর্মীও নয়। তাকে কোনদিন মিছিল-মিটিংয়েও দেখিনি।’ প্রিন্স বলেন, নিজেকে বাঁচাতে হয়তো সে ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর লুৎফর রহমান বলেন, ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে এক বহিরাগতকে ধরা হয়েছে এমন তথ্য মতিহার থানা পুলিশ খবর দিই। পরে পুলিশ এসে তাকে নিয়ে যায়।

বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে উপস্থিত মতিহার থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মমতাজ উদ্দিন বলেন, আহত যুবকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার মাথা দিয়ে রক্ত পড়ছে। তাকে এখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

এই ধরণের সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button